×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১৮ এপ্রিল ২০২১ ই-পেপার

বিজেপির ‘জয় শ্রীরাম’ নিয়ে এ বার ফেসবুকে তোপ মমতার

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা ০২ জুন ২০১৯ ১৯:২১
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। —ফাইল চিত্র।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। —ফাইল চিত্র।

বিজেপির ‘জয় শ্রীরাম’ স্লোগানের বিরুদ্ধে ফের ক্ষোভ উগরে দিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রবিবার নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে এর বিরুদ্ধে লম্বা পোস্ট করেন মমতা। তাঁর কথায়, বিজেপি যে স্লোগান দিচ্ছে, তা রাজনীতিতে ব্যবহৃত হয় না। বরং জোর করে রাজনীতির সঙ্গে জুড়ে দেওয়া হচ্ছে। উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে ধর্মীয় স্লোগান ঢুকিয়ে দেওয়া হচ্ছে রাজনীতিতে।

এ দিন বিকালে নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে ওই পোস্টটি করেন মমতা। তাতে তিনি লেখেন, ‘‘সাধারণ মানুষকে জানাতে চাই যে, ‘ঘৃণার মতাদর্শ ছড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছে কিছু বিজেপি সমর্থক। বিজেপি প্রভাবিত সংবাদমাধ্যম মারফত, ভুয়ো ভিডিয়ো, ভুয়ো খবর তৈরি করে বিভ্রান্তি তৈরি করতে চাইছে তারা। সত্য এবং বাস্তবটাকে চাপা দিতে চাইছে।’

তিনি আরও লেখেন, ‘রামমোহন রায়, বিদ্যাসাগর-সহ আরও অনেক মহান সমাজ সংস্কারককে পেয়েছি আমরা। বাংলা চিরকাল সমন্বয়, উন্নয়ন এবং দূরদর্শিতার পরিচয় দিয়েছে। কিন্তু বিজেপির পরিকল্পিত কৌশল বাংলায় নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে।’

Advertisement

আরও পড়ুন: এলাকায় ঢুকতে বাধা, তৃণমূল বিধায়ককে আটকে দিনভর বিক্ষোভ, উত্তপ্ত খেজুরি​

রাজনৈতিক দলগুলির স্লোগান নিয়ে তাঁর কোনও আপত্তি নেই, বরং সকলকে শ্রদ্ধা করেন বলেও জানান মমতা। কিন্তু বিজেপির স্লোগানের সঙ্গে রাজনীতির কোনও যোগ নেই বলে অভিযোগ তাঁর। মমতা লেখেন, ‘‘সব দলের নিজের নিজের স্লোগান রয়েছে। আমার দলের জয় হিন্দ, বন্দে মাতরম স্লোগান রয়েছে। বামেদের রয়েছে ইনকিলাম জিন্দাবাদ। একে অপরকে শ্রদ্ধা করি আমরা। কিন্তু জয় সিয়া রাম, জয় রামজি কি, রাম নাম সত্য হ্যায়ের মতো স্লোগানগুলি ধর্মীয় এবং রাজনৈতিক ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়। এ গুলির সঙ্গে জড়িত মানুষের আবেগকে সম্মান করি। কিন্তু উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে ধর্মীয় স্লোগানকে দলের স্লোগান হিসাবে ব্যবহার করছে বিজেপি। জোর করে রাজনীতির সঙ্গে ধর্মকে মিশিয়ে দিচ্ছে। আরএসএস-এর নামে এ ভাবে বাংলার মানুষের উপর জোর করে স্লোগান চাপিয়ে দেওয়াটাকে সম্মান করি না আমরা।’

বিজেপি বাংলায় ঘৃণা ও হিংসার বাতাবরণ তৈরির চেষ্টা করছে বলেও দাবি করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। একজোট হয়ে তাদের বিরোধিতা করার ডাক দেন। এ ভাবে খুব বেশিদিন বাংলার মানুষকে বোকা বানানো যাবে না বলেও গেরুয়া শিবিরের বিরুদ্ধে তোপ দাগেন তিনি।

‘জয় শ্রীরাম’ শুনে এমনই প্রতিক্রিয়া দিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আরও পড়ুন: হাঁসফাঁস গরম থেকে মুক্তি, কলকাতা-সহ রাজ্যের নানা প্রান্তে স্বস্তির বৃষ্টি​

বিজেপির ‘জয় শ্রীরাম’ স্লোগানের বিরুদ্ধে এর আগেও প্রতিবাদ করতে দেখা গিয়েছে তৃণমূল নেত্রীকে। লোকসভা নির্বাচন চলাকালীন ৪ মে চন্দ্রকোনায় পথসভা করতে যাওয়ার সময় ‘জয় শ্রী রাম’ ধ্বনি শুনে গাড়ি থেকে রাস্তায় নেমে আসেন তিনি। গত ৩০ মে ভাটপাড়া এবং নৈহাটিতেও একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটে। ‘জয় শ্রী রাম’ শুনে সেখানেও মেজাজ হারান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। গাড়ি থেকে নেমে প্রতিবাদ জানান।

তবে মমতা একাই নন, বীজপুরে তৃণমূলের একাধিক নেতা-মন্ত্রীরাও ‘জয় শ্রীরাম’ স্লোগানের কবলে পড়েন। তা নিয়ে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে উঠলে লাঠি উঁচিয়ে তেড়ে যেতে হয় পুলিশকে।

Advertisement