Advertisement
২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
Mysterious Light

কলকাতা থেকে জেলা, সন্ধ্যার আকাশে অদ্ভুত আলো, প্রশ্নের জবাবে কী বলছেন জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা

কলকাতা থেকে জেলা, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার আকাশে আচমকা দেখা গেল অদ্ভুত আলো। আর তা ঘিরেই ঘনাচ্ছে রহস্য। ওই আলো ঘিরে সাধারণ মানুষের মনে তৈরি হয়েছে কৌতূহল।

সন্ধ্যার আকাশে আচমকা দেখা গেল অদ্ভূত আলো।

সন্ধ্যার আকাশে আচমকা দেখা গেল অদ্ভূত আলো।

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা শেষ আপডেট: ১৫ ডিসেম্বর ২০২২ ১৯:০৮
Share: Save:

কলকাতা থেকে জেলা, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার আকাশে আচমকা দেখা গেল অদ্ভুত আলো। আর তা ঘিরেই ঘনাচ্ছে রহস্য। ওই আলো ঘিরে সাধারণ মানুষের মনে তৈরি হয়েছে কৌতূহল।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৫টা বেজে ৫০ মিনিট থেকে ৬টার মধ্যে আকাশের পূর্ব দিকে দেখা গিয়েছে ওই আলো। তাঁরা আরও জানিয়েছেন, ওই আলো মিনিট খানেক স্থায়ী ছিল আকাশে। তা দেখতে ছিল কিছুটা সার্চলাইটের মতো। আলোটিকে একটি নির্দিষ্ট গতিপথে ছুটতেও দেখা গিয়েছে বলে দাবি করেছেন অনেকে। বাঁকুড়া, দুই মেদিনীপুর, দুই ২৪ পরগনা, হাওড়া, হুগলি-সহ উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জায়গা থেকে ওই আলোটিকে দেখা যায়। প্রত্যক্ষদর্শীরা আরও জানিয়েছেন, ওই আলো চোখ ধাঁধিয়ে দেওয়ার মতো ছিল না। তবে সেই আলো ছিল বেশ স্পষ্টও।

এই আলো ঘিরেই রহস্য দানা বেঁধেছে। জ্যোতির্বিজ্ঞানী সন্দীপ চক্রবর্তীর মতে, এই আলোর ৩টি কারণ থাকতে পারে। তিনি জানিয়েছেন, ওই আলো দেখা গিয়েছে আকাশের দক্ষিণ দিকে। তার মতে, প্রথমত এই আলো উল্কাপাতের কারণে হতে পারে। তিনি বলেন, ‘‘এখন উল্কাবৃ্ষ্টি হচ্ছে। তবে সেটা সন্ধ্যা নয়, রাত ১২টা নাগাদ হয়। কিন্তু, এটা দেখে মনে হচ্ছে আলোর আকার কিছুটা বড়। এটা যে জেমিনিড শাওয়ার নয় সে ব্যাপারে আমি নিশ্চিত।’’

তার মতে, ‘‘এটা রকেটের কোনও অংশ হতে পারে।’’ তিনি জানিয়েছেন, আলোটি বঙ্গোপসাগরের উপর দিয়ে গিয়েছে বলে মনে হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, ‘‘দেখে মনে হচ্ছে, কোনও রকেটের জ্বালানি ফুরিয়ে গিয়েছে। তারই একটি ছোট অংশ পৃথিবীর দিকে আসছে। সেই অংশটি আকারে ছোট বলেই তার আলো তত উজ্জ্বল।’’

তৃতীয় একটি সম্ভাবনার কথাও জানিয়েছেন সন্দীপ। তাঁর মতে, ‘‘কোনও জায়গা থেকে ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা করা হয়ে থাকতে পারে। তারও আলো হতে পারে এটা।’’ তাঁর মতে, ক্ষেপণাস্ত্র হলে সে ক্ষেত্রে আলো দিকচক্রবালে মিলিয়ে যাওয়ার আগে অনেক বেশি ক্ষণ ধরে দেখা যাওয়ার কথা। ফলে আলোর উৎস ঘিরে রহস্য থাকছে বলেই সন্দীপের মত। তিনি আরও জানাচ্ছেন, এই আলো মিলিয়ে যাওয়া তখনই সম্ভব যখন ক্ষেপণাস্ত্র ধীরে ধীরে আমাদের দৃষ্টিপথের বাইরে চলে যায়।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement

Share this article

CLOSE