Advertisement
০৪ ডিসেম্বর ২০২২
Al Qaeda

উত্তরপ্রদেশে কলকাতা পুলিশের জালে ‘আল-কায়দা সদস্য’, ব্লগার অভিজিৎ খুনে জড়িত থাকার অভিযোগ

গোয়েন্দাদের কাছে খবর ছিল, অভিজিৎ খুনের পিছনে ‘আলকায়দা ইন ইন্ডিয়ান সাবকন্টিনেন্ট’ (ভারতীয় উপমহাদেশ) নামক জঙ্গি সংগঠনের হাত রয়েছে। সেই সূত্রেই উঠে আসে হাসনাতের নাম।

গ্রেফতার সন্দেহভাজন এক আল-কায়দা সদস্য। সন্দেহ, বাংলাদেশের ব্লগার অভিজিৎ রায় খুনে তিনি জড়িত।

গ্রেফতার সন্দেহভাজন এক আল-কায়দা সদস্য। সন্দেহ, বাংলাদেশের ব্লগার অভিজিৎ রায় খুনে তিনি জড়িত। গ্রাফিক: শৌভিক দেবনাথ।

নিজস্ব সংবাদদাতা
মালদহ শেষ আপডেট: ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১৭:৪৮
Share: Save:

কলকাতা পুলিশের এসটিএফের জালে ধরা পড়লেন সন্দেহভাজন এক আল-কায়দা সদস্য। উত্তরপ্রদেশের সহারানপুর থেকে গ্রেফতার করা হয় হাসনাত শেখ নামে ওই ব্যক্তিকে। গোয়েন্দা সূত্রে খবর, হাসনাতের বাড়ি মালদহের সুজাপুরে। বাংলাদেশের ব্লগার অভিজিৎ রায় খুনে তিনি জড়িত বলে মনে করছে পুলিশ।

Advertisement

গোয়েন্দাদের কাছে খবর ছিল, অভিজিৎ খুনের পিছনে ‘আল-কায়দা ইন ইন্ডিয়ান সাবকন্টিনেন্ট’ (ভারতীয় উপমহাদেশ) নামক জঙ্গি সংগঠনের হাত রয়েছে। সেই সূত্রেই উঠে আসে হাসনাতের নাম। তাঁর সম্পর্কে খোঁজখবর করতে সুজাপুরেও যান তদন্তকারীরা। কিন্তু সেখানে তাঁকে পাওয়া যায়নি। তদন্তকারীদের সূত্রে খবর, গোপন সূত্র মারফত খবর মেলে, হাসনাত উত্তরপ্রদেশের সহারানপুরে রয়েছেন। সেই তথ্যের উপর ভিত্তি করে আবার খোঁজখবর করা শুরু হয়। হদিসও মেলে হাসনাতের। বেশ কয়েক দিন তাঁর গতিবিধির উপর নজর রেখে বুধবার তাঁকে গ্রেফতার করে এসটিএফ। হাসনাতকে কলকাতায় নিয়ে আসা হয়েছে।

হাসনাতের গ্রেফতারির খবর স্বাভাবিক ভাবেই চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে গোটা সুজাপুর জুড়ে। হাসনাতের মা রেজি বিবি বলেন, ‘‘স্থানীয় মাদ্রাসা থেকে লেখাপড়ার পর হাসনাত বর্ধমানের একটি মাদ্রাসায় ভর্তি হয়েছিল। সেখান থেকে উত্তরপ্রদেশের সহারানপুরে একটি মাদ্রাসায় ভর্তি হয় সে।’’ প্রতিবেশীরা জানান, হাসনাতেরা পাঁচ ভাই-বোন। তাঁদের মধ্যে তিন ভাই শ্রমিকের কাজ করেন। হাসনাত পড়াশোনা করতেন। ধৃতের এক ভাই বলেন, ‘‘প্রতি বছর ইদের আগে উত্তরপ্রদেশ থেকে বাড়ি আসত। ধর্মশিক্ষা নিয়েই থাকত ও।’’

Advertisement
(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.