Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৪ অক্টোবর ২০২১ ই-পেপার

চোখের নীচে বসল জাল, ভাল আছেন অভিষেক

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা ২৬ অক্টোবর ২০১৬ ০২:৫৯

তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের অস্ত্রোপচার সফল এবং তাঁর শারীরিক অবস্থা আপাতত স্থিতিশীল বলে হাসপাতাল সূত্রে জানানো হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে দু’দফায় প্রায় সাড়ে তিন ঘণ্টা ধরে তাঁর চোখে অস্ত্রোপচার হয়েছে। চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, আগামী সাত দিন তাঁকে পর্যবেক্ষণে রাখা হবে। ৭২ ঘণ্টা তাঁর সঙ্গে বাইরের কাউকে দেখা করার অনুমতি দেওয়া হবে না।

বাঁ চোখের নীচের হাড়ে মূলত চোট ছিল অভিষেকের। ওই হাড় ভেঙে যাওয়ায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল অক্ষিগোলক। সেটা ঠিক করার জন্য চোখের অস্ত্রোপচারের পাশাপাশি প্রয়োজন ছিল ‘ফেসিও ম্যাক্সিলারি’ অপারেশনের। এ দিন পর পর ওই দু’টি অস্ত্রোপচার হয়। অক্ষিগোলকের নীচে টাইটেনিয়াম এর একটি জাল (মেশ) বসানো হয়েছে। বেঙ্গালুরু থেকে বিশেষ পদ্ধতিতে ওই জাল তৈরি হয়ে এসেছে বলে হাসপাতাল সূত্রে খবর।

Advertisement



অভিষেককে দেখতে হাসপাতালের পথে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।ছবি: বিশ্বনাথ বণিক।

এ দিন বেলা সাড়ে ১২টা নাগাদ অভিষেকের অস্ত্রোপচার শুরু হয়। চিকিৎসক সুকুমার মুখোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে ১১ জন চিকিৎসকের একটি দল বিষয়টির তত্ত্বাবধানে ছিলেন। ওই দলে ছিলেন চিকিৎসক অমিত রায়, অনির্বাণ ভাদুড়ি, কমলেশ্বর কোঠারী, রাজন টন্ডন, সঞ্চিতা রায়, এস বি রায়, মনোতোষ পাঁজা, এস পি দাস, অভিজিৎ চট্টোপাধ্যায়, তাপস চক্রবর্তী এবং চন্দ্রিমা গঙ্গোপাধ্যায়। অস্ত্রোপচার চলাকালীন তাঁর হার্ট বা স্নায়ু সংক্রান্ত কোনও সমস্যা হয়নি বলে তাঁরা জানিয়েছেন। রক্তচাপ এবং নাড়ির গতিও নিয়ন্ত্রিত ছিল।

চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, ১০ দিন পরে তাঁর চোখের ভিতরের সেলাই কাটা হবে। এই ধরনের অস্ত্রোপচারে পরবর্তী সময়ে সংক্রমণের ঝুঁকি থাকে। তাই চিকিৎসক ও নার্স ছাড়া তাঁর আশপাশে আগামী কয়েক দিন খুব কম লোক জনকেই যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হবে। এ দিন অপারেশন থিয়েটার থেকে তাঁকে সরাসরি কেবিনে আনা হয়। সেখানে আইটিইউ-এর পরিকাঠামো তৈরি করা হয়েছে।

গত মঙ্গলবার মুর্শিদাবাদের কর্মিসভা থেকে ফেরার পথে দুর্ঘটনায় পড়েন অভিষেক। তাঁর বাঁ চোখে গুরুতর আঘাত লাগে। অক্ষিগোলকের নীচের হাড়টিও ভেঙে যায়। অস্ত্রোপচারের প্রয়োজনীয়তার কথা তখনই জানিয়েছিলেন চিকিৎসকেরা। কিন্তু শারীরিক অবস্থা কিছুটা স্থিতিশীল না-হওয়া পর্যন্ত সেই সিদ্ধান্ত নিতে পারছিলেন না তাঁরা। সোমবার সন্ধ্যায় চিকিৎসকেরা তাঁকে দেখার পরে দীর্ঘ বৈঠক করেন। সেখানেই এ দিনের অস্ত্রোপচারের বিষয়টি স্থির হয়।

আরও পড়ুন

Advertisement