Advertisement
৩০ নভেম্বর ২০২২
Boris Johnson

Boris johnson: ফের ইউক্রেনের পাশে থাকার বার্তা বরিসের

জ়েলেনস্কির সঙ্গে ছবি তুলে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছেন বরিস। জ়েলেনস্কিকে ‘দারুণ বন্ধু’ আখ্যাও দিয়েছেন ছবিতে।

অঘোষিত সফরে গত শনিবার সন্ধেবেলায় রাজধানী কিভে পৌঁছন বরিস।

অঘোষিত সফরে গত শনিবার সন্ধেবেলায় রাজধানী কিভে পৌঁছন বরিস। ফাইল ছবি

সংবাদ সংস্থা
কিভ শেষ আপডেট: ১৯ জুন ২০২২ ০৮:০৩
Share: Save:

আরও এক বার ইউক্রেন সফরে এলেন ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। একেবারেই অঘোষিত সফরে গত কাল সন্ধেবেলায় রাজধানী কিভে পৌঁছন বরিস। ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জ়েলেনস্কির সঙ্গে বৈঠকও সারেন তিনি। সেখানে আরও এক বার ইউক্রেনের মানুষের পাশে থাকার বার্তা দিয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী।

Advertisement

জ়েলেনস্কির সঙ্গে ছবি তুলে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছেন বরিস। জ়েলেনস্কিকে ‘দারুণ বন্ধু’ আখ্যাও দিয়েছেন ছবিতে। বরিস বলেছেন, ‘‘যুদ্ধের এই পরিস্থিতিতে আমার সফরের উদ্দেশ্য খুবই সহজ ও স্পষ্ট। ইউক্রেনের মানুষকে বার্তা দেওয়া যে, আমরা এখনও তাঁদের পাশে আছি। আর শেষ পর্যন্ত পাশে থাকব।’’ জ়েলেনস্কিও জানিয়েছেন, বরিসের দেখা পেয়ে তিনি আপ্লুত। তাঁর কথায়, ‘‘আমাদের প্রতি ব্রিটেনের বন্ধুত্ব কতটা গাঢ়, তা যুদ্ধের এতগুলো দিনের মধ্যে আমরা জেনে গিয়েছি। আরও এক বার বরিস জনসনকে এ ভাবে পাশে পেয়ে আমি সত্যিই খুব খুশি।’’ জ়েলেনস্কি আরও জানিয়েছেন, রাশিয়ার বিরুদ্ধে যুদ্ধে কী করে জয়লাভ সম্ভব, তার পন্থা নিয়েও বরিসের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে তাঁর। তাঁর দেশে বরিসের জনপ্রিয়তা এখন অন্য মাত্রা নিয়েছে বলেও জানিয়েছেন প্রেসিডেন্ট। বৈঠকের শেষে বরিসকে সঙ্গে নিয়ে কিভের রাস্তা ঘুরে দেখেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট।

বৈঠকে ইউক্রেনের সেনাদের বিশেষ প্রশিক্ষণ দেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছেন বরিস। তিনি জানিয়েছেন, আগামী চার মাসের মধ্যে অন্তত ১০ হাজার ইউক্রেনীয় সেনাকে প্রশিক্ষণ দিতে আগ্রহী ব্রিটেন। দেশের বাইরে গিয়ে ইউক্রেনীয় সেনারা তিন সপ্তাহের এই প্রশিক্ষণ নিতে পারবেন। যুদ্ধের নানা কৌশলের সঙ্গে সাইবার নিরাপত্তার বিষয়েও ইউক্রেনীয় সেনাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।

সেভেরোডনেৎস্ক শহর ও তার সংলগ্ন এলাকায় আজ সকাল থেকে পরিস্থিতি আরও জটিল হয়েছে। গত কয়েক সপ্তাহ ধরেই ওই শহরের দখল নিতে সচেষ্ট রুশ বাহিনী। তবে তারা এখনও সেটা পুরোপুরি করে উঠতে পারেনি বলেই জানাচ্ছেন পূর্ব লুহানস্ক এলাকার গভর্নর সের্গি গাইডে। তাঁর দাবি, ইউক্রেনীয় বাহিনীর পাল্টা প্রতিরোধের সঙ্গে পেরে উঠতে পারছে না রাশিয়ার সেনারা। সেভেরোডনেৎস্ক শহরের পরিস্থিতি নিয়ে খুব সম্প্রতি উদ্বেগ জানিয়েছে রাষ্ট্রপুঞ্জ। সেখানে পানীয় জল ও নিকাশি ব্যবস্থার অবস্থা শোচনীয়। এ ভাবে চলতে থাকলে খুব শীঘ্রই সেখানে সংক্রামক রোগ ছড়াবে বলে আশঙ্কা করছে রাষ্ট্রপুঞ্জ। এর মধ্যেই স্থানীয় প্রশাসন গত কাল জানিয়েছে, সেভেরোডনেৎস্কের একটি কারখানায় ৩৮ জন শিশু-সহ মোট ৫৬৮ জন বাসিন্দা আটকে রয়েছেন। সংঘর্ষ বিরতির ঘোষণা না হলে বাসিন্দাদের সেখান থেকে নিরাপদ স্থানে সরানো যাচ্ছে না বলে জানিয়েছে তারা।

Advertisement

সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তেফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ

Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.