×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

০৫ মার্চ ২০২১ ই-পেপার

ফেসঅ্যাপের মতো অ্যাপ্লিকেশন নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করল এফবিআই

সংবাদ সংস্থা
ওয়াশিংটন ০৪ ডিসেম্বর ২০১৯ ১৫:২৮
ফেসঅ্যাপ নিয়ে অশঙ্কা প্রকাশ এফবিআই-এর। ছবি: টুইটার থেকে নেওয়া।

ফেসঅ্যাপ নিয়ে অশঙ্কা প্রকাশ এফবিআই-এর। ছবি: টুইটার থেকে নেওয়া।

ফটো এডিটিং অ্যাপ্লিকেশন ‘ফেসঅ্যাপ’ নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করল মার্কিন তদন্তকারী সংস্থা এফবিআই। তাদের দাবি এই অ্যাপটির ডেভ‌েলপার রাশিয়ার এক সংস্থা। সংস্থার কাছ থেকে প্রয়োজনে তথ্য সংগ্রহ করতে পারে রাশিয়ার সরকার, এমনটাই চুক্তি রয়েছে। ফলে এই অ্যাপ থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিরাপত্তার ক্ষেত্রে আশঙ্কা থেকে যাচ্ছে।

ফেস অ্যাপ ২০১৭ সালে তৈরি হয়। কিন্তু চলতি বছর সেটি ভাইরাল হয়ে যায়। প্রচুর অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএস ব্যবহারকারী এই অ্যাপ ডাউনলোড করেন। এই অ্যাপের সাহায্যে সহজেই, কম বয়সের ছবিকে বেশি বয়সের, পুরুষকে মহিলা বা মহিলাকে পুরুষের মতো করে এডিট করে ফেলা যায়। সেই সব ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচুর শেয়ারও হয়।

ফেসঅ্যাপ ভাইরাল হওয়ার পরই বেশ কিছু ইউজার নিরাপত্তা সংক্রান্ত প্রশ্নগুলি তুলছিলেন। তারপরই মার্কিন সাংসদ সংখ্যালঘু নেতা চাক শুমার মার্কিন তদন্তকারী সংস্থা ফেডেরাল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (এফবিআই)-কে বিষয়টি তদন্ত করতে বলেন। সম্প্রতি এফবিআই সেই রিপোর্ট দিয়েছে।

Advertisement

আরও পড়ুন: করমর্দন করেননি কিন্তু এই কিশোরীর বাড়িতে পৌঁছে গেলেন আবু ধাবির যুবরাজ

এফবিআই রিপোর্টে ফেসঅ্যাপকে ‘পোটেনশিয়াল কাউন্টারইন্টেলিজেন্স থ্রেট’ বলে উল্লেখ করেছে। শুধু এই অ্যাপটিই নয় রাশিয়ায় তৈরি যে কোনও অ্যাপের ক্ষেত্রেই নিরাপত্তার ঝুঁকি থেকে যাচ্ছে। এমনটাই উল্লেখ করা হয়েছে এফবিআই-এর রিপোর্টে।

আরও পড়ুন: দু’কোটির পোর্সা নিয়ে রাস্তায় বেরিয়ে প্রায় ১০ লক্ষ টাকা জরিমানার মুখে গাড়ি মালিক

এর আগে যখন ফেসঅ্যাপে তথ্য নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন ওঠে, তখন অ্যাপ প্রস্তুতকারকদের তরফে দাবি করা হয়, ব্যবহারকারীদের তথ্য (ডেটা) রাশিয়ায় ট্রান্সফার করা হয় না। যদিও এই অ্যাপের রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেপলমেন্ট টিম রাশিয়াতেই রয়েছে।

সাংসদ চাক শুমার মার্কিন নাগরিকদের আবেদন করেছেন, অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএস সব ইউজাররাই যাতে ফেসঅ্যাপের মতো সব অ্যাপ্লিকেশনই ডিলিট করে দেন।

এফবিআই শুধু রাশিয়ার এই ধরনের প্রোডাক্টই নয়, চিনের তৈরি অ্যাপের ক্ষেত্রেও আশঙ্কা প্রকাশ করেছে। এমনকি টিকটকের মতো চিনা অ্যাপগুলির উপর নজরও রাখা হচ্ছে বলে জানা গিয়েছে। সেই সঙ্গে নজরে রাখা হচ্ছে চিনা সরকার ও তথ্য প্রযুক্তি সংস্থা অ্যাপলের পারস্পরিক সম্পর্কের উপরেও।

Advertisement