Advertisement
০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৩
Sri Lanka

Sri Lanka: পাকিস্তানের পর এ বার অনাস্থা শ্রীলঙ্কায়, রাজাপক্ষেদের সরাতে সক্রিয় বিরোধীরা

শ্রীলঙ্কা পার্লামেন্টের ৪১ জন সদস্যের সমর্থন প্রত্যাহারে সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারায় সরকার। প্রধানমন্ত্রীকে বরখাস্ত করার দাবি তোলে বিরোধীরা।

প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া এবং প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা।

প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া এবং প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা। গ্রাফিক: সনৎ সিংহ।

সংবাদ সংস্থা
কলম্বো শেষ আপডেট: ০৯ এপ্রিল ২০২২ ১৭:২১
Share: Save:

পাকিস্তানের পর এ বার শ্রীলঙ্কা। ফের আইনসভায় সরকারের প্রতি অনাস্থা আনার কথা ঘোষণা করল বিরোধীরা।

আর্থিক বিপর্যয়ের আবহের মধ্যেই এ বার শ্রীলঙ্কায় দানা বেঁধেছে রাজনৈতিক সঙ্কট। সে দেশের পার্লামেন্টে প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপক্ষে এবং প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপক্ষের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব পেশের কথা ঘোষণা করেছেন বিরোধী দলনেতা সাজিথ প্রেমদশা। প্রধান বিরোধী দল সমগি জন বলয়েগয়ার নেতা সাজিথ শনিবার বলেন, ‘‘আমরা চাই শ্রীলঙ্কাকে বিপর্যয়ের হাত থেকে বাঁচাতে প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপক্ষে এবং প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপক্ষের (গোতাবায়ার দাদা) সব দল ঐক্যবদ্ধ হোক।

Advertisement

গত মঙ্গলবার শ্রীলঙ্কা পার্লামেন্টের ৪১ জন সদস্য সমর্থন প্রত্যাহার করায় সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারায় প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দার সরকার। এই পরিস্থিতিতে তাঁকে বরখাস্ত করার দাবি উঠেছিল বিরোধী শিবিরের তরফে। কিন্তু প্রেসিডেন্ট সেই প্রস্তাবে সায় না দেওয়ায় তাঁর বিরুদ্ধেও অনাস্থা আনার ঘোষণা করেছে বিরোধী দল।

শাসকজোট ‘শ্রীলঙ্কা পিপল্‌স ফ্রিডম অ্যালায়েন্স’-এর অন্দরেও রাজাপক্ষে ভাইদের নিয়ে অসন্তোষ রয়েছে বলে দাবি করেছেন সাজিথ। তিনি বলেন, ‘‘বর্তমানে যে পরিবার দেশ চালাচ্ছে, তাদের দিয়ে বেহাল আর্থিক পরিস্থিতির উন্নতি সম্ভব নয়।’’ পাশাপাশি, শ্রীলঙ্কায় প্রেসিডেন্ট-নির্ভর শাসন ব্যবস্থার বদলে পার্লামেন্টের হাতে বেশি ক্ষমতা দিয়ে গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা শক্তিশালী করার সওয়ালও করেন তিনি। সাজিথ বলেন, ‘‘অতীতে একাধিক বার প্রেসিডেন্টের স্বৈরাচার দেখেছে শ্রীলঙ্কা। আমরা আর তার পুনরাবৃত্তি চাই না।’’

Advertisement
(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.