নথিভুক্ত সংস্থার আর্থিক অনিয়ম ও বেআইনি লেনদেন সম্পর্কে তথ্য পেতে নতুন ‘হুইসল ব্লোয়ার’ নীতি আনার কথা ভাবছে সেবি। যে স্বাধীন ডিরেক্টর, অডিটরেরা ওই তথ্য দেবেন, তাঁদের সুরক্ষা নিশ্চিত করার সংস্থান রয়েছে প্রস্তাবিত বিধিতে। সূত্রের খবর, প্রস্তাব  নিয়ে নানা পক্ষের সঙ্গে কথা বলে পরবর্তী পদক্ষেপ করা হবে। 

সংশ্লিষ্ট মহলের বক্তব্য, সম্প্রতি বেশ কিছু সংস্থার আর্থিক অনিয়মের অভিযোগকে কেন্দ্র করে অডিট সংস্থা তাদের কাজ থেকে সরে দাঁড়িয়েছে। কিন্তু সেবি চায় এই অনিয়মের তথ্য আরও আগে হাতে আসুক। নিয়ন্ত্রক ও তদন্তকারী সংস্থাগুলি মাঝেমধ্যেই বলে, এ নিয়ে অডিটর, স্বাধীন ডিরেক্টর, ভ্যালুয়ার, ইনভেস্টমেন্ট ব্যাঙ্কারদের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ। 

সম্প্রতি সেবি জানিয়েছে, সংস্থার গোপন তথ্য ফাঁস করে শেয়ারে মুনাফা করার মতো ঘটনার খবর দিলে ১ কোটি টাকা পর্যন্ত পুরস্কার দেওয়া হবে। গোপন রাখা হবে নাম-পরিচয়। কিন্তু এই ব্যবস্থায় অডিটরদের রাখা হয়নি। এ বার তাদের কাছ থেকে তথ্য পাওয়ার জন্যও নতুন নীতির কথা ভাবা হচ্ছে। অডিটরদের পাশাপাশি আইনজীবী এবং পরামর্শদাতাদেরও প্রস্তাবিত বিধির সুবিধা দেওয়ার সুপারিশ এসেছিল। কিন্তু সেবির মতে, আইনজীবীদের পক্ষে মক্কেলদের গোপন তথ্য প্রকাশ করা পেশাগত ভাবেই অনৈতিক। তাই তা সম্ভব নয়।