গাড়িতে টানা তল্লাশি, প্রতিবাদে সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউতে বসে পড়লেন ডায়মন্ডহারবারের বিজেপি প্রার্থী
এর পরই তিনি সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউতেই বসে পড়েন সঙ্গে থাকা কর্মী এবং অনুগামীদের নিয়ে।
Nilanjan Roy

ডায়মন্ড হারবারের বিজেপি প্রার্থী নীলাঞ্জন রায়। নিজস্ব চিত্র।

গাড়ি তল্লাশির নামে প্রায় দু’ঘন্টার বেশি সময় পুলিশ তাঁকে আটকে রেখেছে।এই অভিযোগে সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউতে ধর্নায় বসে পড়লেন ডায়মন্ড হারবার কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী নীলাঞ্জন রায়।

সোমবার তিনি মুরলিধর সেন স্ট্রিটে দলীয় সদর কার্যালয়ে এসেছিলেননীলাঞ্জন রায়। তিনি বলেন, ‘‘দেড়টা নাগাদ তিনি গাড়ি নিয়ে বেরনোর সঙ্গে সঙ্গে সাদা পোশাকের কয়েক জন আমার গাড়ি আটকান। তাঁরা নিজেদের পুলিশ কর্মী হিসাবে পরিচয় দেন এবং বলেন গাড়ি তল্লাশি করবেন।”

বিজেপি প্রার্থী বলেন, ‘‘আমি নিজে একজন আইনজীবী। গাড়ি থেকে নেমে পুলিশকে সহযোগিতা করি। এক দফা তল্লাশিতে কিছু পাওয়া যায়নি। তার পর ওই পুলিশকর্মীরা ফের আরও ভালভাবে তল্লাশি করবেন বলে জানান। আরও কয়েকজন পুলিশ কর্মী এসে ফের তল্লাশি করেন।”

নীলাঞ্জন বাবুর অভিযোগ, দু’দফা চিরুণি তল্লাশির পরও কোনও কিছু পাওয়া যায়নি। তারপরেও পুলিশ বলে বৌবাজার থানাতে যেতে। তিনি বলেন,‘‘আমার কেন্দ্রে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক রয়েছে। প্রায় দু’ঘণ্টারও বেশি সময় আমাকে অযথা আটকে রেখেছে পুলিশ।” এর পরই তিনি সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউতেই বসে পড়েন সঙ্গে থাকা কর্মী এবং অনুগামীদের নিয়ে।

ঘটনাস্থলে আসেন বৌবাজার থানার অতিরিক্ত ওসি সিদ্ধার্থ চট্টোপাধ্যায়। তিনি বিজেপি প্রার্থীর সঙ্গে কথা বলেন। তাঁকে অনুরোধ করেন থানায় একবার গিয়ে তল্লাশির পরবর্তী নিয়মমাফিক নথি সই করে নিতে। প্রথমে যেতে রাজি না হলেও পৌনে চারটে নাগাদ তিনি থানাতে যেতে রাজি হন।

অন্যদিকে পুলিশের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, নির্বাচন কমিশনের নির্দেশেই এই তল্লাশি। নিয়ম মাফিক ওই তল্লাশি কমিশনের নির্দেশ মেনে ভিডিয়োগ্রাফও করে রাখা হয়েছে। এর মধ্যে অস্বাভাবিক কিছু নেই। 

আরও পড়ুন: নেতাদের পাইলট দিতে ঘুম উড়েছে পুলিশের

২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের ফল

আপনার মত