অনেক সহজ ভাবেই যা হতে পারত এবং অনেক সরল পথেই যা হওয়া উচিত ছিল, এক জটিল টানাপড়েনের মধ্যে দিয়ে তা হল শেষ পর্যন্ত। একটি চলচ্চিত্রের প্রদর্শনকে ঘিরে এই জটিলতা অনর্থক তো বটেই, কাম্যও নয়।

‘ভবিষ্যতের ভূত’ ছবিটা অবশেষে ফিরল বিভিন্ন প্রেক্ষাগৃহে। এমনিতেই ছবিটা হারিয়ে গিয়েছিল প্রেক্ষাগৃহ থেকে, আবার এমনিতেই সে ফিরে এল, বিষয়টা এমন নয়। কোনও এক অ়জ্ঞাত ‘উপর মহলের’ নির্দেশে মুক্তির দিনেই আটকে গিয়েছিল ছবির প্রদর্শন। কিন্তু ছবিটা আবার দেখানো শুরু হল এবং এবার নির্দেশটা আর কোনও অজ্ঞাত কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে এল না। নির্দেশটা এল দেশের সর্বোচ্চ আদালত থেকে।

অনীক দত্ত নির্দেশিত ছবিটার প্রদর্শন বন্ধ হওয়া নিয়ে অত্যন্ত অসন্তোষ প্রকাশ করেছে সুপ্রিম কোর্ট। মত প্রকাশের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপের চেষ্টার বিরুদ্ধে কঠোর বার্তা দিয়েছেন বিচারপতি। এ ধরনের হস্তক্ষেপের চেষ্টা ভবিষ্যতে আর যাতে দেখতে না হয়, সেই মর্মে সতর্কবার্তা দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। পশ্চিমবঙ্গ সরকারকে ২০ লক্ষ টাকা জরিমানাও করা হয়েছে।

সম্পাদক অঞ্জন বন্দ্যোপাধ্যায়ের লেখা আপনার ইনবক্সে পেতে চান? সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন

দিল্লি দখলের লড়াইলোকসভা নির্বাচন ২০১৯ 

আরও পড়ুন: ‘ভবিষ্যতের ভূত’-এর প্রদর্শন বন্ধ হওয়ায় রাজ্যকে ক্ষতিপূরণের নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের

সুপ্রিম কোর্টের এই রায়কে ভারতীয় গণতন্ত্রের তথা সংবিধানের জয় হিসেবেই চিহ্নিত করা যেতে পারে। এ গণতন্ত্রে মত প্রকাশের যে স্বাধীনতা নাগরিকের রয়েছে, দেশের সর্বোচ্চ আদালত সেই স্বাধীনতাতেই আরও একবার সিলমোহর বসাল। একই সঙ্গে মনে করিয়ে দিল যে, সংবিধানের বুনিয়াদি কাঠামোটা অক্ষুণ্ণ রাখার প্রশ্নে বিন্দুমাত্র আপস ভারত করবে না।