×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

০২ মার্চ ২০২১ ই-পেপার

ন্যুডিটি, অপসংস্কৃতি এখন পয়সা দিয়ে ওটিটি-তে দেখেন আমরা তো ফ্রি-তে দেখাচ্ছি: সায়ন ঘোষ

উপালি মুখোপাধ্যায়
কলকাতা ০১ ডিসেম্বর ২০২০ ১৩:৪৩
বিখ্যাত ‘টুম্পা’ গানের একটি দৃশ্য।

বিখ্যাত ‘টুম্পা’ গানের একটি দৃশ্য।

ইন্ডি ওয়েব সিরিজ ‘রেস্ট ইন প্রেম’-এর বিরুদ্ধে ন্যুডিটি, অপসংস্কৃতির নালিশ। সেই সব বাধা কাটিয়ে প্রথম সিজনের পঞ্চম পর্ব হইহই করে চলছে ইউটিউবে।জানালেন সিরিজের মুখ্য অভিনেতা সায়ন ঘোষ ।

রিসেপশনে সৃজিত-অনির্বাণ-রুদ্রনীল ‘টুম্পা' গানের সঙ্গে নেচেছেন। জানেন?

সায়ন:
দারুণ ব্যাপার। শুনে ভাল লাগছে।

ইউটিউবের সঙ্গে সমস্ত ঝামেলাও মিটে গিয়েছে?

সায়ন:
একদম। অভিযোগ ছিল, ‘রেস্ট ইন প্রেম’ ওয়েব সিরিজের দ্বিতীয় পর্বের শেষ দৃশ্যে নাকি ন্যুডিটি দেখানো হয়েছে। সিরিজ রাতারাতি টেক ডাউন করা হয়েছিল ইউটিউব থেকে। তার পর কিছু মেল চালাচালি হয়। ওরা আবার ভিডিয়ো ফিরিয়ে দিয়েছে। আমাদের লড়াইও শেষ।

শোনা যাচ্ছিল এক বা একাধিক প্রযোজনা সংস্থার নাকি হাত ছিল এর পিছনে?

সায়ন:
আমরা এটুকু বলতে পারি, কোনও ভেরিফাইড সংস্থা স্ট্রাইক দিয়ে বন্ধ করে দিয়েছিল। সেটা কে বা কারা? জানি না। ইউটিউব কর্তৃপক্ষ থেকে জানার চেষ্টা করেছি। আমাদের জানানো হয়নি। তাই কোনও বিশেষ প্রযোজক সংস্থার প্রতি আমাদের কোনও অভিযোগ নেই। এমনও হতে পারে, কোনও বড় ইউটিউব চ্যানেল এর পিছনে রয়েছে।

হঠাৎ একদম ফ্রি-তে দর্শকদের দেখাতে একটা সিরিজ বানালেন কেন?

সায়ন:
নিজেদের প্রমাণ করতে। আমরা বহুবার বহু জায়গায় দাঁড়িয়ে বহু প্রোজেক্ট জমা দিয়েছি। বারবার শুনতে হয়েছে, অমুককে নয় তমুককে নিতে হবে। কিছু জায়গা বদলাতে হবে। একটা সময় নিজেদের কাছেই মনে হল, আমরা কি তাহলে ভুল? শেষে তথাকথিত ‘মিডল ম্যান’ ছাড়াই নিজেদের যাচাই করতে এই পদক্ষেপ।

Advertisement



সব বাধা কাটিয়ে ‘রেস্ট ইন প্রেম’-এর প্রথম সিজনের পঞ্চম পর্ব হইহই করে চলছে ইউটিউবে

তার পর নামীদামি তারকা ছাড়াই ১৯ মিলিয়ন ভিউয়ার্স...

সায়ন:
আমরা কিন্তু প্রত্যেকেই ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ করেছি। আমি অভিনয় করেছি। দীপাংশু আচার্য, যিনি ‘টুম্পা’ গানের র্যাপ অংশটি গেয়েছেন তাঁরই লেখা ‘কিচ্ছু চাইনি আমি’ সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের ‘হোটেল শাজাহান রিজেন্সি’তে সুপারহিট। সবাই জানেন ওটা অনির্বাণ ভট্টাচার্যের গান!

কিছু বলেননি কাউকে?

সায়ন:
কাকে, কী বলব! অনির্বাণ নিজে এক জায়গায় ভুল করে বলেছেন গানটির গীতিকার প্রসেন। বাংলায় তো গীতিকারদের কোনও সম্মান, জায়গাই নেই।

রাতারাতি জনপ্রিয়তা সমস্ত আক্ষেপ মেটাল?

সায়ন:
(হেসে ফেলে) আমরা ভুল নই, প্রমাণিত হল। নেট দুনিয়ায় তারকা ছাড়াই নিজেদের যোগ্যতা প্রমাণ করা যায়, সেটাও আবার বুঝলেন সবাই। পছন্দসই কনটেন্ট, সংলাপ, গান, অভিনয় এক ছাদের নীচে জড়ো করতে পারলে স্বাধীন ভাবেও দর্শক টানা যায়, বোঝা গেল।

আরও পড়ুন: ফের বলিউডে কাস্টিং কাউচ! অভিযুক্ত ধর্ষকের সঙ্গে অক্ষয় কুমারের ‘বেল বটম’-এর নাম জুড়ল

‘অপসংস্কৃতি’র তকমাও লাগল। কিছু জনের দাবি, ভোজপুরী স্টাইল, গালাগালি বঙ্গ সংস্কৃতিকে উচ্ছ্বন্নে পাঠিয়েছে!

সায়ন:
ন্যুডিটি, অপসংস্কৃতি সবাই এখন পয়সা দিয়ে ওটিটি-তে দেখেন। আমরা তো ফ্রি-তে দেখাচ্ছি। পছন্দ না হলে দেখবেন না! এটাও মনে রাখতে হবে, বাংলা ভাষা শুধুই 'শান্তিনিকেতনি' ভাষা নয়। সেখানে খেউড়, খ্যামটা গানও রয়েছে। যা সাধারণ মানুষের প্রতিনিধি। অশরীরী টুম্পাকে দেখে সমস্ত মধ্যবিত্ত বলছে, ওর মতো প্রেমিকাই আমরা চাই। গানের মধ্যে বলা ‘কোনও মধুর রাতে আমি টুম্পার সাথে বসে বাদাম খাব আমার টালির ছাতে’-ই শুনতে চায় সাধারণ মানুষ। একে অপসংস্কৃতি বলবেন? শহরতলির প্রেমের গন্ধ, রসিকতা, স্যাটায়ার আছে বলেই ‘রেস্ট ইন প্রেম’ হিট।

আগামী দিনে আরও স্বাধীন সিরিজ বানাবেন? বহু জনের ‘অন্ন’ মেরে?

সায়ন:
আমরা কারওর অন্ন মারার জন্য কাজ করিনি (হাসি)। আমাদের নিজেদের অন্ন জোটাতেই এক হয়েছি বন্ধুদের সঙ্গে। জনতা আমাদের পাশে। সিজনের সব এপিসোড হিট। আরও সিরিজ আনবে কনফিউজড পিকচার। মজার মোড়কে সাধারণের গল্প থাকবে সেখানে।

আরও পড়ুন: গর্ভাবস্থায় ‘কঠিন’ শীর্ষাসনে মনযোগী অনুষ্কা, সাহায্য করছেন ‘দক্ষ’ বিরাট

Advertisement