×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১২ এপ্রিল ২০২১ ই-পেপার

রাজভবনের মঞ্চে পাসওয়ার্ডে মিলে গেলেন দেব-ধনখড়

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা ১৫ জানুয়ারি ২০২১ ২৩:০৩
দেবের সঙ্গে রাজ্যপাল।—নিজস্ব চিত্র।

দেবের সঙ্গে রাজ্যপাল।—নিজস্ব চিত্র।

রাজনীতি না। সেলুলয়েডে মেলালেন একে অপরকে। একটি ছবি দেখেই সুপারস্টার দেবের ফ্যান হয়ে গিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। ছবি দেখার সময়ে বাংলা বুঝতে কোনও অসুবিধা হয় না তাঁর। কেবল দেব না, অভিনেতা প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়, অভিনেত্রী দিতিপ্রিয়া রায়, পাওলি দাম, শ্রীলেখা মিত্র— টলিউডের তাবড় তাবড় নায়ক নায়িকার সামনেও ‘লিড স্টার’ জগদীপ ধনখড়ই। দেব-এর ‘পাসওয়ার্ড’ ছবিটি দেখেছেন বাংলার রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। অভিনেতা দেব অধিকারীর সূত্রে জানা গেল, সেটিই রাজ্যপালের প্রথম দেখা বাংলা ছবি। কেবল দর্শকই যে অভিনেতার ফ্যান, তা নয়, ধনখড়ের মতো এমন দর্শক আগে পাননি দেবও। আর সেই সূত্রে দেব জানালেন, ‘‘স্যারের সঙ্গে রাজনৈতিক ক্ষেত্রে আমার মিল না হলেও ছবির মাধ্যমে আমরা একই জায়গায় দাঁড়িয়ে।’’

জগদীপ ও দেবের আলোচনা পর্ব শুরু হওয়ার আগে ঘটনাপ্রবাহের কোনও আঁচ পাওয়া যায়নি। ধোঁয়াশা ছিল অতিথিদের মনে। মঞ্চে মুখোমুখি দু’জন। প্রশ্নকর্তা প্রস্তুত। সকলে তটস্থ। এ বারে তর্ক শুরু হল বলে। আনন্দবাজার ডিজিটালের সম্পাদক অনিন্দ্য জানা প্রশ্ন করলেন অভিনেতা ও সাংসদ দেবকে, ‘‘রাজনীতি নিয়ে একটু আলোচনা হোক নাকি?’’ সাফ মানা করে দিলেন দেব। জানিয়ে দিলেন, এ দিন অন্য কোনও বিষয় নিয়ে কথা হোক। রাজনীতি নিয়ে তো কথা হয়েই থাকে। আর সে সূত্রেই তাঁদের পূর্ব এক সাক্ষাতের ঘটনা তুলে ধরলেন সকলের সামনে। ‘পাসওয়ার্ড’ ছবির ক্লোজ ডোর স্ক্রিনিং ছিল। অতিথি দর্শক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যপাল। সকলেই হাসিমুখে ‘খুব ভাল কাজ’ বলে বেরিয়ে যাচ্ছিলেন। এক মাত্র রাজ্যপাল বিশ্লেষণ করতে বসেছিলেন ছবিটিকে। দেব-কে একের পর এক প্রশ্ন করতে থাকলেন তিনি। ‘এটা কেন হল’? ‘এটা কী ভাবে হল’? দেবের ভাল লেগেছিল সেটা। কোনও রকম ভদ্রতা দেখিয়ে বেরিয়ে যাননি তিনি। ‘সেই থেকেই আমার আর স্যারের বন্ডিং। আর সেটা ছবির দৌলতেই। এর পর থেকে আমাদের কথা হলে ছবির কথাই হয়।’ শেষে ধনখড়ের সুস্বাস্থ্য ও জীবনের সমস্ত ক্ষেত্রের কথা উল্লেখ করে শুভ কামনা করলেন দেব। তার পর মুখ খুললেন দেবের প্রিয় দর্শক। প্রথমেই অবশ্য জানালেন, ‘বাংলার রাজ্যপাল আমি। শুভ কামনার প্রয়োজন রয়েছে বটে।’ তবে রাজনৈতিক কথা আর বাড়ালেন না। চলে এলেন সুপারস্টারের প্রশংসায়। নিজের ফোন বা কম্পিউটারের পাসওয়ার্ড মনে রাখতে পারেন না কিছুতেই। তার জন্য স্ত্রীয়ের কাছে বকুনিও খেতে হয় তাঁকে। শুনতে হয়, ‘পাসওয়ার্ড মনে রাখতে পারো না! কোনও কম্মের নও তুমি।’ কিন্তু দেবের পাসওয়ার্ড কোনও দিন ভোলেননি ধনখড়। ‘পাসওয়ার্ড’ ছবির পর দুই তারকার মনের পাসওয়ার্ডও মিলে গেল। সাক্ষী রইল আনন্দবাজার ডিজিটাল।

Advertisement
Advertisement