×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২০ জুন ২০২১ ই-পেপার

কর্নাটক থেকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রাজ্যসভায় গেলেন দেবগৌড়া ও খড়গে

সংবাদ সংস্থা
বেঙ্গালুরু ১৩ জুন ২০২০ ১২:২৫
মল্লিকার্জুন খাড়গে ও এইচডি দেবেগৌড়া।

মল্লিকার্জুন খাড়গে ও এইচডি দেবেগৌড়া।

শেষ বার ভোটে দাঁড়িয়েছিলেন গত লোকসভা নির্বাচনে। দু’জনকেই হার মানতে হয়েছিল। শুক্রবার অবশ্য কর্নাটক থেকে রাজ্যসভায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়ে গেলেন দেশের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী এইচডি দেবগৌড়া ও কংগ্রেস নেতা মল্লিকার্জুন খড়গে। এ ছাড়াও বিজেপির দুই প্রার্থী এরান্না কালাডি এবং অশোক গাস্তিও বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় কর্নাটক থেকে রাজ্যসভায় যাচ্ছেন।

কর্নাটকে রাজ্যসভার আসন চারটি। সেই আসনগুলি থেকে রাজ্যসভায় প্রার্থীপদ প্রত্যাহারের শেষ দিন ছিল শুক্রবার। ভোট হত আগামী ১৯ জুন। কিন্তু ওই চার আসনে চার জনই প্রার্থী থাকায় তাঁদের বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী বলে ঘোষণা করেন কর্নাটক বিধানসভার সচিব তথা ওই নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার এমকে বিশালাক্ষী। ওই রাজ্য থেকে রাজ্যসভার প্রতিনিধি ছিলেন কংগ্রেসের বিকে হরিপ্রসাদ, রাজীব গৌড়া, জনতা দল (সেকুলার)-এর কুপেন্দ্র রেড্ডি এবং বিজেপির প্রভাকর কোর। আগামী ২৫ জুন তাঁদের মেয়াদ শেষ হচ্ছে।

১৯৯৬ সালে দেশের একাদশতম প্রধানমন্ত্রী হয়েছিলেন এইচডি দেবগৌড়া। সে সময়েও ছিলেন রাজ্যসভায়। ফের তিনি রাজ্যসভায়। ৮৭ বছরের ওই নেতা বলছেন, ‘‘লোকসভা ভোটে হারের পর আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম, আর ভোটে দাঁড়াব না। কিন্তু আমার দলের সব বিধায়কই একমত হয়ে সিদ্ধান্ত নেন যে, আমার রাজ্যসভায় যাওয়া উচিত। তবুও আমি সেই প্রস্তাব গ্রহণ করিনি। কিন্তু তখন রাজি হলাম যখন সনিয়া গাঁধী আমাকে বলেন যে, আমরা আপনার সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় রয়েছি।’’

Advertisement

আরও পড়ুন: ৩ লাখ ছাড়াল মোট আক্রান্তের সংখ্যা, একা মহারাষ্ট্রেই লক্ষাধিক​

এত দিন লোকসভায় কংগ্রেসের প্রতিনিধি হিসাবে ছিলেন মল্লিকার্জুন খড়গে। এই প্রথম বার রাজ্যসভায় যাচ্ছেন তিনি। এ নিয়ে সনিয়া গাঁধী ও রাহুল গাঁধীকে কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন তিনি। খাড়গে বলছেন, ‘‘কর্নাটকের মানুষ আমাকে সংসদে প্রতিনিধিত্বের সুযোগ দিয়েছেন। আশা করি, তাঁদের আশা পূরণ করতে পারব। আমি কর্নাটকের সমস্যার কথা রাজ্যসভায় তুলে ধরব।’’

কর্নাটক থেকে রাজ্যসভায় মোট আসন চার। তার মধ্যে গত বার একটি মাত্র আসন ছিল বিজেপির হাতে। এ বার তাদের দখলে দু'টি আসন। ফলাফলে তৃপ্ত মুখ্যমন্ত্রী ইয়েদুরাপ্পা বলছেন, ‘‘বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব সাধারণ কর্মীদের ওই আসনে নির্বাচিত করার সুযোগ দিয়েছেন। আমি তাঁদের ধন্যবাদ জানাই। বাস্তবে বিজেপিই এক মাত্র দল, যারা এমন একটা সিদ্ধান্ত নিতে পারে।’’

আরও পড়ুন: মৃতের অমর্যাদায় ক্ষুব্ধ সুপ্রিম কোর্ট, বাংলা-সহ ৫ রাজ্যকে নোটিস​

কর্নাটকে শাসকদল বিজেপির হাতে রয়েছে ১১৭টি আসন। কংগ্রেসের দখলে রয়েছে ৬৮ বিধায়ক। জেডিএস-এর হাতে রয়েছে ৩৪ জন। রাজ্যসভায় এক জন প্রার্থীকে পাঠাতে গেলে প্রয়োজন ছিল ৪৫টি ভোটের। সেই অঙ্কেই রাজ্যসভায় দু'টি আসন নিশ্চিত করে ফেলেছিল বিজেপি। কংগ্রেস একটি আসন নিশ্চিত করার পর সমর্থন করে দেবগৌড়াকে।

Advertisement