সৌদি সাংবাদিক জামাল খাশোগি খুনের জের টেনে সৌদি আরবের উপর ফের কড়া পদক্ষেপ করার হুমকি দিল মার্কিন কংগ্রেস। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প মানতে না চাইলেও, এঁদের একটা বড় অংশের দাবি, সৌদি যুবরাজ মহম্মদ বিন সলমনের নির্দেশেই খুন করা হয়েছিল খাশোগিকে। ট্রাম্প যাতে মত পরিবর্তন করেন, সে জন্য শুক্রবার পর্যন্ত সময়সীমা দিয়ে রেখেছে কংগ্রেস। এরই মধ্যে তদন্তকারী দলের সঙ্গে কথা বলে কাল এক মার্কিন সংবাদমাধ্যম দাবি করেছে, যুবরাজ নিজেই ২০১৭-র মাঝামাঝি তাঁর এক অনুগত কর্তাকে বলেছিলেন, ‘‘দেশে ফিরতে না চাইলে প্রয়োজনে গুলির ব্যবহার করব।’’ 

২ অক্টোবর, ইস্তানবুলের সৌদি কনসুলেটে খুন করা হয় খাশোগিকে। গোড়ায় খুনের কথা অস্বীকার করলেও, পরে তা মেনে নেয় রিয়াধ। তবে তাদের মতে, অহেতুক এর সঙ্গে সৌদি রাজ পরিবারকে জড়ানো হচ্ছে। কিন্তু খুনের আগে-পরে কয়েকটি ফোন-কলের ভিত্তিতে এতে নাম জড়িয়ে যায় সৌদি যুবরাজের। তুরস্কের সঙ্গে তদন্ত চালিয়ে যাচ্ছে আমেরিকাও। সম্প্রতি তুরস্ক থেকে ফেরা এক রাষ্ট্রপুঞ্জের এক তদন্ত-কর্তা দাবি করেছেন, পরিকল্পিত ভাবে সম্পূর্ণ তৈরি হয়েই সে দিন ইস্তানবুলে গিয়েছিল সৌদি হিট স্কোয়াড।

                                      ‌