সম্পর্ক যতই মধুর হোক, বেশ কিছু জিনিস কখনওই ভাগ করতে নেই প্রিয় জনের সঙ্গে। এ কথা কমবেশি সকলেই জানেন। তোয়ালে-গামছা, অন্তর্বাস, ব্রাশ, জামাকাপড় এ সব জিনিস অন্যের সঙ্গে ভাগ করে নেওয়া যে খুবই অস্বাস্থ্যকর, তা মেনেও চলেন প্রায় সকলেই।

কিন্তু এর বাইরেও নানা রকমের ব্যবহার্য জিনিস আছে যা ভাগ করে নিলেও নানা শারীরিক সমস্যায় পড়তে পারেন। প্রত্যেকের শরীরের ধরন আলাদা। শরীরে ব্যাকটিরিয়া, ভাইরাসের সংক্রমণের কায়দাও আলাদা তাই অসুখবিসুখে পড়ার প্রবণতাও ভিন্ন। যে কারণে বেশ কিছু জিনিস ভাগ করে নেওয়ার আগে সতর্ক হোন।

জানেন কি, কী কী দ্রব্যের ক্ষেত্রে এই সব সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে? দেখে নিন সে সব।

আরও পড়ুন: হার্টের যত্ন থেকে ক্লান্তি দূর করতে এই একটি পানীয়ই যথেষ্ট

একই হেডফোনে দু’জনেই গান শুনছেন এমন দৃশ্যও কম চেনা নয়। এই স্বভাব অত্যন্ত ক্ষতিকর। 

হেডফোন: প্রায়ই নিজের হেডফোনের ভাগ দেন অন্যকে, কিংবা বন্ধু বা সহকর্মীর হোডফোন নিয়ে নিজের কাজটুকু চালিয়ে নেন, এমন মানুষের সংখ্যা নেহাত কম নয়। একই হেডফোনে দু’জনেই গান শুনছেন এমন দৃশ্যও কম চেনা নয়। চক্ষু-কর্ণ-নাসিকার বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের মতে, এই সব জিনিস শরীরের অভ্যন্তরে প্রবেশ করে। তাই তা একেবারে নিজেরটা ব্যবহার করাই উচিত। কানের অসুখ ভিন্ন ভিন্ন রকমের। এক জনের কানে থাকা ক্ষতিকারক ব্যাকটিরিয়া এই হেডফোনের মারফত অন্যের কানে পৌঁছয়, ফলে রোগও ছড়ায় এ ভাবে।

জুতো: জামা-কাপড়, মোজার মতোই জুতোটাও আলাদা রাখুন। সবসময় চোখে দেখা না গেলেও পায়ের তলা কমবেশি সকলেরই ঘামে। সেই ঘাম জুতোতেও ছড়ায়। ঘামে থাকা ক্ষতিকর ব্যাকটিরিয়া ও ছত্রাক এড়াতে অন্যের জুতো এড়িয়ে চলুন। 

আরও পড়ুন: ফেসিয়ালের পর এ সব কৌশল মেনে চললে তবেই জেল্লা দীর্ঘস্থায়ী হবে

সরাসরি ত্বকে লাগান এমন মেক আপ:  লিপস্টিক হোক বা লিপগ্লস, যে সব সাজের সরঞ্জাম সরাসরি ত্বকে লাগান তা অন্য কাউকে ভাগ দেবেন না। এতে রোগ ছড়ানোর সম্ভাবনা বাড়ে। সাবান ও ত্বকে সরাসরি ঘষেন এমন পারফিউমও আলাদা করে রাখতে পারলে ভাল। ত্বক ও রোমকূপের মধ্যে জমে থাকা ব্যাকটিরিয়া ও শরীরের ভাইরাস অনেকাংশেই এই সব জিনিসের মাধ্যমে সঞ্চারিত হয়।

সিগারেট: এমনিতেই ধূমপান করা শরীরের পক্ষে অত্যন্ত ক্ষতিকর, তার উপর অন্যের থেকে ভাগ নিয়ে সিগারেট খাওয়ার অভ্যাস আছে অনেকেরই, সে স্বভাব অত্যন্ত অস্বাস্থ্যকর।