• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

এই ভাবে মাংস খেলে করোনার হানা থেকে দূরে থাকা সম্ভব

meat and chicken
করোনা এড়াতে মাংস রান্নার ক্ষেত্রে মেনে চলুন এ সব নিয়ম। ছবি: শাটারস্টক।

করোনার ভয়ে ভারতীয় বহু হেঁশেল থেকে বাদ পড়েছে মাছ-মাংস। অনেকেরই ধারণা, এই ভাইরাস (কোভিড-১৯) হয়তো মাছ-মাংসের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়তে পারে শরীরে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক কেউই কিন্তু মাংস খাওয়ায় বাধানিষেধ দেননি। শুধু জানিয়েছেন কিছু বিশেষ নিয়মের কথা।

মাংস খাওয়ায় কোনও বাধা নেই। ভারতীয়রা যে সব মাংস খান, তাতে কোনও ভাবেই কোভিড-১৯ বাসা বাঁধে না। কাজেই নিশ্চিন্তে মাংস খান, তবে মেনে চলুন কিছু নিয়ম।

ফ্রিজেও বেঁচে থাকে এই ভাইরাস। তাই মাংস কেনা, রান্না ও ফ্রিজে সংরক্ষণ করে রাখার বিষয়ে সচেতন থাকলেই এড়ানো যাবে করোনা গ্রুপের এই কোভিড-১৯-এর হানা। কোন কোন দিকে খেয়াল রাখবেন, দেখে নিন।

আরও পড়ুন: কেমন মাস্ক পরলে করোনা এড়াতে পারবেন, ব্যবহারের নিয়ম কী?

মাংস কেনার সময়

মাংস কেনার আগে ভাল করে দেখে নিন, যে মাংস কিনছেন তা টাটকা কি না। বাসি মাংস মানেই যে করোনার ভয় থাকবে, তা একেবারেই নয়। তবে বাসি মাংস থেকে অন্য সংক্রমণ ছড়াতে পারে। মাংস বাসি হলে তাতে অন্য জীবাণু ধারণ করার আশঙ্কাও বেড়ে যায়। তা ছাড়া যে মাংস কিনছেন, সেই পশু বা পাখিটি আগেই মৃত হলে কী কারণে তার মৃত্যু হয়েছে সেটা জানার উপায় থাকে না। তাই অন্তত এই সময়টুকুর জন্য পারলে সামনে দাঁড়িয়ে কাটিয়ে নিন অথবা সদ্য কাটা হয়েছে এমন মাংস কিনুন।

কেমন করে ঠেকাবেন করোনা, দেখে নিন।

প্রক্রিয়াজাত মাংস নয়

প্রিজারভেটিভ মেশানো টিনবন্ধ বা প্যাকেটজাত করা মাংস কয়েকটা দিন এড়িয়ে চলুন। বিভিন্ন ফুড চেনে মেলা বার্গার, পিৎজা বা চিকেনে যে সব মাংস ব্যবহার করা হয়, তারাও অধিকাংশই প্যাকেটজাত কিংবা প্রিজারভেটিভ মেশানো। সাবধানতার জন্য এড়িয়ে চলুন সে সব। বরং মাংস কিনে বাড়িতেই রান্না করে নিন।

মাংস ধোওয়া

গরম জলে ধুয়ে নিন মাংস। ঈষদুষ্ণ গরম জলে নুন ফেলে দিয়ে সেই জলে মাংস ধুলে মাংসের গায়ে থাকা রোগজীবাণু অনেকটাই ধুয়ে যায়। এতেই কাজ হয়ে যায় অনেকখানি।

আরও পড়ুন: করোনা ঠেকাতে কী করবেন? এই অসুখের লক্ষণই বা কী? জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা

গ্রাফিক: শৌভিক দেবনাথ।

মাংস রান্না

একটাই শর্ত মানুন। মাংস যেন সুসিদ্ধ হয়। ভারতীয়রা যে তাপমাত্রায় মাংস রান্না করে খান, তাতে কোনও ভাইরাস বেঁচে থাকতে পারে না। তাই মাংস সুসিদ্ধ হলেই নিশ্চিন্ত থাকতে পারেন। অনেক সময় কম আঁচে বা কম সময়ে মাংস রান্না করলে ভাল করে সেদ্ধ হয় না মাংস। তাতে রোগ হানা দিতে পারে।

মাংস সংরক্ষণ

ফ্রিজেও বেঁচে তাকতে পারে করোনা গ্রুপের কোভিড-১৯ ভাইরাস। তাই ফ্রিজ পরিষ্কার রাখতেই হবে। মাংস-সহ যে কোনও খাবার ফ্রিজে রাখার পর তা গরম করে খাওয়ার আগে বার করে কিছু ক্ষণ বাইরে রাখুন। ভাল করে গরম করে খান। তাতে আর ভয় থাকবে না।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন