• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

শরীরের মেদ ও ভুঁড়ি কিছুতেই বাগে আনতে পারছেন না? এ সব খাবারেই রয়েছে সমাধান

obesity
ভুঁড়ি কমাতে পাতে রাখুন বিশেষ কিছু খাবার। ছবি: আইস্টক।

অনিয়মের জীবন আর খিদে পেলেই যখন তখন ফাস্ট ফুড, চাউমিন, বিরিয়ানিতে পেট ভরানোর যুগে ওবেসিটি আর ফ্যাটি লিভার খুব পরিচিত অসুখ। মেদবৃদ্ধির প্রবণতা থাকলে ডায়াবিটিস, হৃদরোগ, হাড়ের অসুখের সমস্যাগুলোয় যোগ হয় বাড়তি ভয়। তাই শরীরচর্চা, ডায়েট ও নিজেকে নিয়মের বেড়াজালে বেঁধে ওজন কমানোর পরামর্শ সব সময়ই চিকিৎসকরা দিয়ে থাকেন।

তবে সব সময় নিয়ম মেনে চলা সম্ভবপর নয়। কোনও না কোনও সময় পরিস্থিতি বুঝে নিয়মের পরিবর্তনও ঘটাতে হতে পারে। তাই প্রতি দিন খেতে হবে এমন কিছু, যা মেদ ঝরাতে সাহায্য করে নানা ভাবে।

সাধারণত, মেদ কমাতে কার্বোহাইড্রেটের পরিমাণে হ্রাস টেনে প্রোটিন দিয়ে পেট ভরানোর একটা উপায় আছে ঠিকই। তবে তার সঙ্গে আরও কিছু খাবারদাবার যোগ করলে মেদের সঙ্গে লড়াই করা সহজ হয়। রইল সে সবের হদিশ।

আরও পড়ুন: দুর্ঘটনায় বাদ যাওয়া অঙ্গ জুড়তে চাইলে মানতেই হয় কিছু নিয়ম, এমন বিপদে কী করবেন?

প্রোটিন: কার্বোহাইড্রেট ও ফ্যাট কম খাওয়ার পরামর্শ ডায়াটেসিয়ানরা দিয়েই থাকেন। ফলে পেট ভরাতে আস্থা রাখতে হয় প্রোটিনের উপর। প্রাণীজ বা উদ্ভিজ্জ প্রোটিনই পারে পেট ভরানোর সঙ্গে শরীরে বাড়তি মেদ জমার রাস্তায় বাধা হয়ে দাঁড়াতে। তাই হাই প্রোটিনযুক্ত যে কোনও খাবার ওজন কমাতে সাহায্য করে। মাছ, মাংস, ডিম, পনীরের সঙ্গে মুসুর ডাল, সয়াবিনও থাকুক পাতে।

টক দই: শরীরকে কেবল ডিটক্স করতেই নয়, ওবেসিটি কমাতেও টক দইয়ের ভূমিকা রয়েছে। টক দইয়ের ফারমেন্টেড এনজাইম খাবার হজমের জন্য ভীষণ উপযোগী। টক দইয়ে ফ্যাটও কম থাকে এবং এটি কোলেস্টরলের মাত্রা কমাতেও বিশেষ ভাবে উপযোগী। তবে ঘরে পাতা দইয়েই আস্থা রাখুন।

আরও পড়ুন: শীতের পোশাক থেকেও হানা দিতে পারে ত্বকের অসুখ, সংক্রমণ এড়াতে মেনে চলুন এ সব

লেবু: যে কোনও ধরনের লেবু, বিশেষ করে বাতাবিলেবু বা কমলালেবু মেদ ঝরাতে বিশেষ উপযোগী। শরীরে জিঙ্ক, ম্যাগনেশিয়াম, ভিটামিন ই-র মতো নিউট্রিয়েন্টের পরিমাণ কম থাকলে ওজন বাড়ে। সেই প্রবণতা দূর করে লেবু।

মরসুমি শাক-সব্জি: ভাত-রুটির পরিমাণ কমিয়ে বা ভাত বন্ধ করে পেট ভরাতে অনেকটা সব্জি, মাছ-মাংস, টক দই এ সবে ভরসা করলে সহজে ঝরে মেদ। শরীরে ফাইবারের জোগান বাড়িয়ে ওজন কমাতে বিশেষ কার্যকর সব্জি।

গ্রিন টি: অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টে ভরপুর এই পানীয় শরীরে মেটাবলিজমের হার বাড়িয়ে তোলে। মেটাবলিজম হার বাড়লে খিদে কমে। ওজন নিয়ন্ত্রণে থাকে।

ওটমিল: ব্রেকফাস্টে ওটমিল দিনের শুরুতেই শরীরকে অনেকটা ফাইবারের জোগান দেয়। পেট ভরাও রাখে অনেক ক্ষণ। ফলে ওজন নিয়ন্ত্রণ করতে এটি বেশ কার্যকর।

আমন্ড: শরীরে যেটুকু ফ্যাট প্রয়োজন, তার জোগান বাড়ায় বাদাম জাতীয় ফল। রোজের রুটিনে বিকেলের হালকা খিদে মেটান ৫০ গ্রাম বাদাম জাতীয় ফল দিয়ে। আমন্ড, কাজু, চিনেবাদাম মিশিয়ে ৫০ গ্রাম বাদামই হোক বিকেলের খাবার।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন