চলছিল আন্তর্জাতিক যোগ দিবসের অনুষ্ঠান। আর সেখানে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ও হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী মনোহরলাল খট্টর। কিন্তু তাঁরা মঞ্চ ছাড়তেই শুরু হয়ে গেল ‘লুঠতরাজ’।

হরিয়ানার রোহতকে যোগ দিবসের অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল। সেখানে অস্থায়ী ছাউনি, ব্যারিকেড তৈরি করা হয়েছিল। মেঝেতে কার্পেটের ওপর পাতা হয়েছিল ম্যাট। প্রত্যেকের জন্যে একটি করে ম্যাটের ব্যবস্থা করা হয়েছিল।

অনুষ্ঠানে অমিত শাহ বলেন, যোগাসন গোটা বিশ্বকে সুস্থ থাকতে শেখাচ্ছে। এক সময় যোগাসনের অনুষ্ঠান শেষে যা দেখা গেল তাকে কোনও মতেই সুস্থতার লক্ষণ বলা যাবে না। অনুষ্ঠান শেষ হতেই শুরু হয় অন্য যুদ্ধ। যে ম্যাটে বসে যোগাসন হচ্ছিল সেগুলি যে যার মতো বাড়ি নিয়ে যেতে চাইছিলেন। আর এক ম্যাটে একাধিক দাবিদার হয়ে যাওয়াতেই সমস্যা তৈরি হয়।

আরও পড়ুন : নকল সিংহ ধরার প্রশিক্ষণ দেখে হতবাক ‘আসল’ সিংহরা

আরও পড়ুন : ‘চাহিয়ে কেয়া?’ নিরাপত্তা কর্মীর ডাকে এ ভাবে সাড়া দিয়ে মন জয় করে নিলেন দীপিকা

ভিডিয়োতে দেখা যাচ্ছে, ম্যাট নিয়ে চলছে জোর কাড়াকাড়ি। কয়েকজন রীতিমতো যুদ্ধে নেমে পড়ে ম্যাট ছিনিয়ে নিতে। গলায় পরিচয়পত্র ঝোলানো স্বেচ্ছাসেবকরা বোঝাচ্ছিলেন, এই ম্যাট নিয়ে যাওয়া যাবে না। কিন্তু কে শোনে কার কথা। কেউই বিনাযুদ্ধে ম্যাট ছাড়তে রাজি ছিলেন না। পুরুষদের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে পড়ে যাচ্ছিলেন মহিলারাও।

 

এই ভিডিয়ো সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড হতেই ভাইরাল হতে সময় নেয়নি। ইতিমধ্যেই প্রায় ৪০ হাজার বার দেখা হয়েছে ভিডিয়োটি। সেই সঙ্গে কটাক্ষে ভরে গিয়েছে কমেন্ট বক্স।