• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

কোহালিদের গোলাপি বলের প্রস্তুতি শুরু হয়ে গেল ইনদওরেই

VK
অভিযান: বিশ্রাম সেরে ফের মাঠে নেমে পড়লেন বিরাট। পিটিআই

Advertisement

দিনরাতের টেস্ট ঘিরে গোটা দেশের মতো ভারতীয় শিবিরেও উন্মাদনা তুঙ্গে। মঙ্গলবার ইনদওরের হোলকার স্টেডিয়ামেও যে ছবি ধরা পড়ল ভারতের অনুশীলনে। সিরিজের প্রথম টেস্ট লাল বলে হলেও অধিনায়ক বিরাট কোহালি ‘থ্রো-ডাউন’ অনুশীলন করে গেলেন গোলাপি বলে। 

ভারতীয় দলের অধিকাংশ ক্রিকেটারেরই গোলাপি বলে খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে। মায়াঙ্ক আগরওয়াল, চেতেশ্বর পুজারা দলীপ ট্রফিতে গোলাপি বলে খেলেছেন। ইনদওরে আসার আগে জাতীয় ক্রিকেট অ্যাকাডেমিতেও গোলাপি বলে অনুশীলন করে এসেছেন চেতেশ্বর পুজারা, অজিঙ্ক রাহানে ঋদ্ধিমান সাহারা। ভারতে প্রথম গোলাপি বলের ম্যাচে খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে তাঁর। সিএবি সুপার লিগ ফাইনালে মোহনবাগানের হয়ে খেলেছিলেন ভারতীয় উইকেটকিপার। কিন্তু অধিনায়কের গোলাপি বলে খেলার অভিজ্ঞতা ছিল না এত দিন। তাই লাল বল ও গোলাপি বলের পার্থক্য আরও ভাল করে বুঝে নিতে আলাদা করে অনুশীলন করতে দেখা গেল কোহালিকে। গোলাপি বলে থ্রো-ডাউন নেওয়ার পরেই নেটে মহম্মদ শামি, ইশান্ত শর্মা ও উমেশ যাদবের বিরুদ্ধে লাল বলে প্রস্তুতি নেন। 

কোহালির পরেই পুজারা, মায়াঙ্ক, রাহানে সামনে থেকে ছোড়া গোলাপি বলে অনুশীলন করলেন। তখন কিন্তু তাঁদের বেশি পরাস্ত হতেই দেখা যাচ্ছিল। সাংবাদিক বৈঠকে রাহানে বলছিলেন, ‘‘জাতীয় ক্রিকেট অ্যাকাডেমিতে প্রথম বার গোলাপি বলের বিরুদ্ধে খেলার অভিজ্ঞতা হল। এক দিন দুপুরে ও এক দিন নৈশালোকে প্র্যাক্টিস করেছি। লাল বলের তুলনায় এই বলের আচরণ একেবারেই আলাদা।’’ আরও বলে গেলেন, ‘‘লাল বলের বিরুদ্ধে যে টেকনিকে খেলি, গোলাপি বলে তা কিছুটা পরিবর্তন করতে হতে পারে। গোলাপি বল অনেক বেশি নড়াচড়া করে। সাধারণ লাল বলের তুলনায় অনেক দেরিতে খেলতে হয়। শরীরের আরও কাছ থেকে খেলতে না পারলে সমস্যা হতে পারে ব্যাটসম্যানদের।’’

রাহানে আরও বলেন, ‘‘টেকনিকের সঙ্গে মানসিক ভাবে মানিয়ে নিতে হবে গোলাপি বলের সঙ্গে। প্রত্যেকে আলাদা আলাদা ফর্ম্যাটে খেলে অভ্যস্ত। টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলার পরেই টেস্ট সিরিজের জন্য সবাই নিজেদের মানিয়ে নিচ্ছে। গোলাপি বলের বিরুদ্ধেও মানিয়ে নেওয়াই আসল। ইডেন টেস্টের আগের দু’দিন নৈশালোকে অনুশীলন করার সুযোগ পাব। টেকনিকের সঙ্গেই মানসিক ভাবেও মানিয়ে নিতে হবে তখন।’’

পর্যবেক্ষণ: অনুশীলনের ফাঁকে চেতেশ্বর পুজারার ব্যাট দেখছেন অধিনায়ক কোহালি। মঙ্গলবার। এএফপি

বাংলাদেশ এখনও গোলাপি বলে অনুশীলন করতে পারেনি। ব্যাটসম্যান মহম্মদ মিঠুন সাংবাদিক বৈঠকে বলছিলেন, ‘‘টি-টোয়েন্টি সিরিজ নিয়েই ব্যস্ত ছিল দল। গোলাপি বলে অনুশীলন করার সুযোগ এখনও হয়নি। ইডেন টেস্টর আগে দু’দিন পাচ্ছি। সেখানেই প্রস্তুতি নেওয়া যাবে।’’ 

গোলাপি বলে দিনরাতের টেস্টের আগে কোহালিরা কোনও ঝুঁকি নিচ্ছেন না। ইডেনে দর্শকঠাসা গ্যালারি এবং ক্রীড়াজগতের একঝাঁক তারকার সামনে পরীক্ষায় ব্যর্থ হতে চান না তাঁরা। তাই অধিনায়কের নেতৃত্বে ইনদওরেই শুরু হয়ে গেল গোলাপি বলের মহড়া। 

গোলাপি বল ও লাল বলের আচরণে মধ্যে তফাত যে অনেকটাই, তা বোঝা গেল কোহালিদের অনুশীলনে। বিরাট থ্রো-ডাউন নেওয়ার সময় বেশ কয়েক বার পরাস্ত হন। সুইংয়ের সঙ্গে বাউন্সও করছিল বেশি। কিন্তু নেটে লাল বলে মহম্মদ শামিদের বিরুদ্ধে তিনি সেই পরিচিত মেজাজে। কপিবুক কভার ড্রাইভ থেকে কব্জির মোচড়ে ফ্লিক, সব কিছুই যেন বড় ফ্রেমে বাঁধিয়ে রাখার মতো। ২০১৬-তে নিউজ়িল্যান্ডের বিরুদ্ধে এ মাঠেই ডাবল সেঞ্চুরি করেছিলেন। ৩৬৬ বলে ২১১ রানের ইনিংস উপহার দিয়েছিলেন বিরাট। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ফের সেই বিরাট ঝলক দেখার আশায় থাকবেন ক্রিকেট ভক্তরা।  

সবাই যা পড়ছেন

Advertisement

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন