মঙ্গলবার রাতে হ্যাটট্রিক করে একাই অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদকে উড়িয়ে দিয়েছিলেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো। পরের দিনই ঝলসে উঠলেন লিয়োনেল মেসি। দু-দুটো গোল করলেন। সতীর্থ পিকে ও দেম্বেলেকে দিয়ে গোল করালেন। মেসির মায়াজালে ৫-১ ম্লান অলিম্পিক লিয়ঁ।

রোনাল্ডো ক্লাব বদলে ফেললেও বিশ্বফুটবলের দুই মহাতারকার প্রতিদ্বন্দ্বিতা চলছেই। যদিও চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ১২৪টি গোল করে রোনাল্ডো এগিয়ে রয়েছেন আর্জেন্তাইন তারকার (১০৮) থেকে।

খেলার কুইজ, আপনিও খেলুন

বার্সা-লিয়ঁর প্রথম পর্বের খেলা গোলশূন্য ছিল। ন্যু ক্যাম্পে ফ্রান্সের ক্লাবটিকে পেয়ে ছেলেখেলা করল বার্সেলোনা। ১৭ মিনিটে পেনাল্টি থেকে পানেনকা শটে গোল করেন মেসি। ৩১ মিনিটে লুইস সুয়ারেসের পাস থেকে ব্যবধান বাড়ান কুটিনহো। দ্বিতীয়ার্ধে লিয়ঁর লুকাস ২-১ করেন।

আরও পড়ুন: রোনাল্ডোর হ্যাটট্রিকে অবিশ্বাস্য প্রত্যাবর্তন জুভেন্তাসের, দেখুন রোনাল্ডোর গোলের ভিডিয়ো 

আরও পড়ুন: ইতিহাস গড়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেড

৭৮ মিনিটে মেসি-ম্যাজিক শুরু। বাঁ পায়ের এক ঝটকায় মাটি ধরান লিয়ঁর দুই ডিফেন্ডারকে। তার পরে ডান পায়ের শটে গোল করেন বার্সেলোনার ১০ নম্বর জার্সিধারী। বার্সার চতুর্থ গোলটির পিছনেও রয়েছে মেসির ডান পা। পিছন থেকে উঠে এসেছিলেন ডিফেন্ডার জেরার্ড পিকে। মেসির ডিফেন্স চেরা পাস থেকে গোল করে যান তিনি। কে বলে, মেসির ডান পা অচল! 

বার্সেলোনার পঞ্চম গোলটিও এলএম টেনের পাস থেকে। বার্সার ম্যাজিশিয়ানের কাছ থেকে বল পেয়ে দেম্বেলে ৫-১ করে যান। মেসি জ্বলে ওঠায় লিয়ঁকে খুব সহজেই হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে গেল বার্সেলোনা। 

(চ্যাম্পিয়ন্স লিগ, এল ক্লাসিকো, লা লিগা, ইপিএল, বুন্দেশলিগা, সিরি এ থেকে ফিফা বিশ্বকাপ - ফুটবল জগতের সব খবর আমাদের খেলা বিভাগে।)