২৩ বাউন্ডারি, ৬ ওভার বাউন্ডারি, ৩৭১ বল, ২১৫ রান। দেশের মাঠে খেলতে নেমেই একাধিক নজির গড়ে ফেললেন ময়াঙ্ক আগরওয়াল। বৃহস্পতিবার বিশাখাপত্তনমে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে সিরিজের প্রথম টেস্টের দ্বিতীয় দিনে দ্বিশতরান করেলেন ময়াঙ্ক। যা ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের ক্ষেত্রে তিন নম্বরে থাকল।

এ দিনই টেস্ট কেরিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরি করেন ময়াঙ্ক। তারপর সেটাকে দ্বিশতরানে পরিণত করলেন। এটাই ঘরের মাঠে ময়াঙ্কের প্রথম টেস্ট। এর আগে অস্ট্রেলিয়া, ওয়েস্ট ইন্ডিজে টেস্ট খেলেছেন তিনি। এটা তাঁর কেরিয়ারের পঞ্চম টেস্ট।

২৮ বছর বয়সি কেরিয়ারের অষ্টম টেস্ট ইনিংসে পৌঁছে গেলেন দ্বিশতরানে। এর আগে করুণ নায়ার তৃতীয় টেস্ট ইনিংসে দুশো করেছিলেন। বিনোদ কাম্বলির টেস্টে ডাবল সেঞ্চুরি করতে লেগেছিল চার ইনিংস। এই দু’জনের পরেই আছেন সুনীল গাওস্কর। কিংবদন্তি ওপেনারের লেগেছিল আট টেস্ট ইনিংস। ময়াঙ্ক স্পর্শ করলেন গাওস্করকে।

আরও পড়ুন: রোহিত-ময়াঙ্কের ব্যাটে বিশাখাপত্তনমে ভাঙল যে সব রেকর্ড​

আরও পড়ুন: ময়াঙ্কের ২১৫, রোহিতের ১৭৬, বিশাখাপত্তনমে রানের পাহাড়ে ভারত​

ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের মধ্যে প্রথম টেস্ট শতরানকে দ্বিশতরানে নিয়ে যাওয়ার কৃতিত্ব রয়েছে এর আগে তিনজনের। ১৯৬৫ সালে দিলীপ সারদেশাই নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে প্রথমবার এটা করেছিলেন। ১৯৯৩ সালে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে বিনোদ কাম্বলি, ২০১৬ সালে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে করুণ নায়ারও তা করেন। ময়াঙ্ক হলেন চতুর্থ ভারতীয়।

২০০৯ সালের ডিসেম্বরে শেষবার কোনও ভারতীয় ওপেনার টেস্টে দুশো করেছিলেন। শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে ২৯৩ এসেছিল বীরেন্দ্র সহবাগের ব্যাটে। তারপর ময়াঙ্কই প্রথম ভারতীয় ওপেনার হিসেবে টেস্টে দ্বিশতরান করলেন। ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের মধ্যে বিরাট কোহালি, বীরেন্দ্র সহবাগ ও সচিন তেন্ডুলকরের টেস্টে মোট ছয়টি দ্বিশতরান রয়েছে। রাহুল দ্রাবিড় (৫), সুনীল গাওস্কর (৪) ও চেতেশ্বর পূজারা (৩) রয়েছেন তারপর।