গৌতম গম্ভীরের কেরিয়ার শেষ করে দিয়েছিলাম! দাবি করলেন পাকিস্তানের পেসার মহম্মদ ইরফান। শুধু তাই নয়, গম্ভীর তাঁকে রীতিমতো ভয় পেতেন বলেও দাবি করেছেন তিনি।

এক বেসরকারি বৈদ্যুতিন মাধ্যমে বাঁ-হাতি পেসার বলেছেন, ২০১২-’১৩ মরসুমে পাকিস্তানের ভারত সফরে তাঁকে সামলাতে গিয়ে সমস্যায় পড়েন গম্ভীর। তাঁর চোখে চোখ রাখার সাহসও নাকি ভারতীয় ওপেনারের ছিল না। ইরফানের কথায়, “গম্ভীরের কেরিয়ার মনে হয় আমার জন্যই শেষ হয়ে গিয়েছিল। তারপর আর কখনও জাতীয় দলে ফিরতে পারেনি ও।”

২০১২-’১৩ মরসুমে ভারতে এসে দুটো টি-টোয়েন্টি ও তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলেছিল পাকিস্তান। ইরফানের কথায়, “ফুল-লেংথ ডেলিভারিত গম্ভীর বোল্ড হয়ে যাচ্ছিল। আমার শর্টপিচ ডেলিভারগুলোয় ও পুল মারতেও পারছিল না। সেই সফরে তিনবার আউট করেছিলাম গম্ভীরকে। আর তাই আমাকে ভয় পেতে থাকে ও। এমনকি, নেটেও আমার চোখে চোখ রাখত না। মানুষ ভয় পেলেই এড়িয়ে যেতে থাকে, চোখে চোখ রাখে না, অন্যদিকে হাঁটতে থাকে।”

আরও পড়ুন: ‘স্বপ্নের শুরু’! রোহিতকে অভিনন্দন পূর্বসূরির

আরও পড়ুন: একা রোহিত নন, এই ভারতীয় ব্যাটসম্যানরাও একই টেস্টের দুই ইনিংসে সেঞ্চুরি করেছেন​

ঘটনা হল, ইরফান সেই সফরে একদিনের সিরিজে গম্ভীরকে আউট করলেও তা তিনবার ছিল না। চেন্নাইয়ে প্রথম একদিনের ম্যাচে ও নয়াদিল্লিতে তৃতীয় একদিনের ম্যাচে গম্ভীরকে ফিরিয়েছিলেন ইরফান। প্রথম টি-টোয়েন্টিতে রান আউট হয়েছিলেন বাঁহাতি ওপেনার। দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে উমর গুলের বলে আউট হন তিনি। সেই সফরে টি-টোয়েন্টি সিরিজ ১-১ ড্র হয়েছিল। আর একদিনের সিরিজে পাকিস্তান ২-১ জিতেছিল।

পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সিরিজের পর ২০১৩ সালের জানুয়ারিতে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের ভারতীয় দলে জায়গা পেয়েছিলেন গম্ভীর। যা ছিল এই ফরম্যাটে তাঁর শেষ সিরিজ। ২০১২ সালের ২৮ ডিসেম্বর আমদাবাদে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচের পর অবশ্য গম্ভীর আর জাতীয় দলের হয়ে টি-টোয়েন্টি খেলেননি। আর ২০১৬ সালের নভেম্বরে রাজকোটে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে শেষবার টেস্টে দেখা গিয়েছিল তাঁকে।