পর্তুগাল ৩ •  আলজিরিয়া ০
 

জাতীয় দলের জার্সি গায়ে বিশ্বকাপের প্রস্তুতি ম্যাচে খেলতে নেমেই পর্তুগালকে জয়ে ফেরালেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো। আর তার পরে ম্যাচ শেষে মাঠে দাঁড়িয়ে দেখলেন তাঁর পুত্র ক্রিশ্চিয়ানো জুনিয়রের ফুটবলের অ-আ-ক-খ ঝালিয়ে নেওয়া। যা অনেকটা তাঁর মতোই দর্শনীয়।

সব দেখে, মাঠ ফেরৎ দর্শকদের উপলব্ধি, বাবার মতো স্কিল সাত বছর বয়সেই কিছুটা হলেও আয়ত্ব করে ফেলেছে রোনাল্ডো-পুত্র।

বৃহস্পতিবার রাতে আলজিরিয়াকে ৩-০ হারায় ফের্নান্দো স্যান্টোসের দল। যে ম্যাচে রোনাল্ডো গোলের বল বাড়ালেও গোলদাতাদের তালিকায় নাম তুলতে পারেননি। ম্যাচে তাঁর বাইসাইকেল কিক অল্পের জন্য লক্ষভ্রষ্ট হয়। বাতিল হয় গোলও। কিন্তু ম্যাচের শেষে দর্শকদের সেই খেদ বাবার হয়ে পুষিয়ে দিয়েছে রোনাল্ডোর ছেলে।

তারকা ফুটবলারের ছেলের বল ধরা, পাস দেওয়া, রামধনুর মতো বাঁকানো শট, ও শূন্য শরীর ভাসিয়ে তার দুরন্ত বাইসাইকেল ভলিতে গোল দেখে হাততালির বন্যা বয়ে যায় লিসবনের স্টেডিয়ামে। মাঠে দাঁড়িয়ে গর্বিত পিতা হিসেবে যা উপভোগ করলেন স্বয়ং ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো। ফেরার পথে ছেলের মাথায় বুলিয়ে দিলেন স্নেহের হাতও।

লিসবনে পর্তুগালের প্রস্তুতি ম্যাচ শেষ হতেই মাঠে নেমে পড়েছিল রোনাল্ডো-পুত্র। পাঁচ বারের ব্যালন ডি ওর জয়ী ফুটবলারের ছেলে শুরুতে বক্সের বাইরে থেকে রোনাল্ডোর মতোই বাঁক খাওয়ানো শটে দু’টি দুরন্ত গোল করে। রোনাল্ডো তখন মাঠের অন্য প্রান্তে ছিলেন দর্শকদের অভিবাদন গ্রহণ করতে। তাঁর ছেলের সঙ্গে তখন মাঠে খেলছিল পর্তুগালের আর এক ফুটবলারের পুত্র। এই দু’জনেই মেতে ওঠে ফুটবল নিয়ে।

ছেলেকে খেলতে দেখে এ বার তার কাছে এসে পৌঁছে যান রোনাল্ডো। বক্সের এক প্রান্ত থেকে ক্রিশ্চিয়ানো জুনিয়রের উদ্দেশে বল ভাসিয়ে দিতে শুরু করেন তিনি। তাঁর ছেলে প্রথম বলটিতে পা ছোঁয়াতে সময়ের ভুল করে ফেলেছিল। তবে দ্বিতীয় বারে আর ভুল হয়নি ক্রিশ্চিয়ানো জুনিয়রের। রোনাল্ডোর মতোই এ বার শূন্যে শরীর ভাসিয়ে বাইসাইকেল কিক মেরে বল জালে পাঠিয়ে দেয় সে। একই সঙ্গে জিতে নেয়, গোটা মাঠের ভালবাসা। এর পরেই রোনাল্ডোর প্রথম সন্তান তাঁর মতোই একটি ‘রাবোনা শট’ (যে পায়ে বল মারছেন না, ‘কিকিং ফুট’ সেই পায়ের পিছন দিয়ে এনে বলে মারা) মারে।  তার পরেই রোনাল্ডো বল শূন্যে তুলে দেন। ক্রিশ্চিয়ানো জুনিয়র তা বুক দিয়ে প্রথমে মাটিতে নামায় (ফুটবলের পরিভাষায় ‘চেস্ট ট্র্যাপ’)। তার পরে জোরালো শটে তা গোলে পাঠিয়ে দেয়।

ইউরো কাপ জয়ীরা গত মার্চ মাসের পরে কোনও আন্তর্জাতিক ম্যাচে জয় পায়নি। আলজিরিয়ার বিরুদ্ধে পর্তুগালের হয়ে জোড়া গোল করলেন প্যারিস সাঁ জারমাঁ-র ফরোয়ার্ড গনসালো গিয়াদেস। ১৭ মিনিটে পর্তুগালকে প্রথম এগিয়ে দেন তিনি। যে গোলের পিছনে রয়েছে উইলিয়াম কার্ভালহো এবং বার্নার্দো সিলভার প্রয়াস। অন্য গোলদাতা স্পোর্টিং লিসবনের মাঝমাঠের ফুটবলার ব্রুনো ফার্নান্দেজ। দেশের জার্সিতে এটি তাঁর প্রথম গোল।

এর আগে প্রস্তুতি ম্যাচে তিউনিসিয়া (২-২) এবং বেলজিয়াম (০-০) ম্যাচে জিততে পারেনি পর্তুগাল। চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনাল জিতে ছুটিতে যাওয়ায় এই দুই ম্যাচে খেলেননি সি আর সেভেন। সোমবার দলের সঙ্গে প্রথম অনুশীলনে নামেন তিনি। কিন্তু এই ম্যাচে খেলতে নেমেই ভাল খেললেন রোনাল্ডো। দুরন্ত ফের্নান্দো স্যান্টোসের দলও। পর্তুগালের প্রতিটি আক্রমণেই নেতৃত্ব দিয়ে খেলেন রোনাল্ডো। তবে পুরো সময় তাঁকে মাঠে রাখেননি পর্তুগাল কোচ। ৭৪ মিনিটে তাঁকে তুলে নেওয়া হয়।

বিশ্বকাপে গ্রুপ ‘বি’ তে রয়েছে পর্তুগাল। বিশ্বকাপে সোচিতে তাদের প্রথম ম্যাচ ১৫ জুন। প্রতিপক্ষ স্পেন।