• সংবাদ সংস্থা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

‘ওরা সে দিন লর্ডসকে ওয়াংখেড়ে বানিয়ে ফেলেছিল’

India team
লর্ডসে টিম ইন্ডিয়া।

যুবরাজ সিংহ ও মহম্মদ কইফ লর্ডসকে ওয়াংখেড়ে বানিয়ে ফেলেছিলেন। ২০০২ সালের ন্যাটওয়েস্ট ট্রফির ফাইনালে এই দু’জনের ব্যাট ভারতকে এনে দিয়েছিল দুর্দান্ত জয়। সেই ম্যাচের স্মৃতি রোমন্থন করতে বসে ইংল্যান্ডের প্রাক্তন অধিনায়ক নাসের হুসেন দুই ভারতীয় তারকাকেই কৃতিত্ব দিয়েছেন। যুবি ও কইফের জন্যই প্রায় ঝিমিয়ে পড়া লর্ডস জেগে উঠেছিল। ভারতীয় সমর্থকরা আবার প্রাণ পেয়েছিলেন।

নাসের হুসেন বলছেন, ‘‘যুবরাজ ও কইফ যখনই বাউন্ডারি মারতে শুরু করে দিল, তখনই ভারতীয় দর্শকরা যেন জেগে উঠল। মনে হচ্ছিল লর্ডস নয়, যেন ওয়াংখেড়েতে খেলা হচ্ছে।’’ অবশ্য যুবরাজ ও কইফের কাজটা সহজ হয়ে গিয়েছিল বল পরিবর্তন করায়। পুরনো বলে রিভার্স সুইং পাচ্ছিলেন ইংল্যান্ডের বোলাররা। তাতে সমস্যায় পড়ছিলেন ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা। এমন সময়ে আম্পায়ার স্টিভ বাকনর জানিয়ে দেন, তিনি বল পরিবর্তন করবেন। এই বল পরিবর্তনের পক্ষপাতী ছিলেন না নাসের হুসেন। তাঁর সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয় বাকনরের।

সেই প্রসঙ্গে নাসের হুসেন বলেন ‘‘আমরা তখন রিভার্স সুইং পাচ্ছিলাম। স্টিভ বাকনার বললেন, বল নরম হয়ে গিয়েছে, রংও চটে গিয়েছে। আমি বল পরিবর্তন করবো।’’ হুসেন চাননি বল বদলাতে। তিনি বলছেন, ‘‘বাকনরের সঙ্গে আমার কথা কাটাকাটি হয়। আমি বলছিলাম, আগের বলেই আমরা খেলবো। বাকনার বল বদলানোর জন্য একরকম জেদ ধরেছিল।’’

আরও পড়ুন: ‘যুবরাজরা চেয়েছিল আমি সহবাগের রেকর্ড ভাঙি’

আর বল বদলাতেই খেলার ছবিও বদলে গেল। যুবরাজ ও কইফ শট খেলতে শুরু করে দিল। তাঁদের শট বাউন্ডারিতে জায়গা পাওয়ায় ঝিমিয়ে পড়া ভারতীয় দর্শকরাও জেগে উঠেছিলেন।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন