×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১৮ জুন ২০২১ ই-পেপার

পিচ বিতর্ক নিয়ে কটাক্ষের পাল্টা জবাব দিলেন অজিঙ্ক রাহানে

নিজস্ব সংবাদদাতা 
কলকাতা ০২ মার্চ ২০২১ ২১:৫১
অনুশীলনে মগ্ন অজিঙ্ক রাহানে।

অনুশীলনে মগ্ন অজিঙ্ক রাহানে।
ছবি - বিসিসিআই

চেন্নাইতে ইংল্যান্ড দ্বিতীয় টেস্ট হারতেই বাইশ গজ নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়েছিল। গোলাপি বলের টেস্ট মাত্র দুই দিনে শেষ হতেই সেটা আরও বেড়েছে। যদিও ভারতের সহ-অধিনায়ক অজিঙ্ক রাহানে ইংরেজদের এই কটাক্ষ ও অভিযোগকে বাড়তি গুরুত্ব দিতে নারাজ। মঙ্গলবার সাংবাদিক সম্মেলনে পাল্টা জবাব দিয়ে সেটা বুঝিয়েও দিলেন। জানিয়ে দিলেন যে গত দুই টেস্টের মত ৪ মার্চ থেকে শুরু হতে চলা লাল বলের টেস্টেও অতিথি দলের জন্য ঘূর্ণি উইকেটই থাকবে।

নতুন মোতেরার বাইশ গজ নিয়ে প্রশ্ন উঠতেই এদিন সাংবাদিক সম্মেলনে রাহানে সটান বলে দেন, “আমার ধারণা চিপকের দ্বিতীয় ম্যাচ ও গোলাপি বলের টেস্টে যেমন পিচ ছিল এবারও তেমন পিচেই খেলা হবে। অর্থাৎ এই ম্যাচেও বল ঘুরবে। গোলাপি বল কিন্তু লাল বলের তুলনায় অনেক জোরে ব্যাটে আসে। তাই আমাদের পরিস্থিতির সঙ্গে মানিয়ে নিতে হবে।”

মাইকেল ভন, মাইকেল আথারটন, মার্ক ওয়ার মত বিদেশিরা ভারতের বাইশ গজ নিয়ে নেট মাধ্যমে লাগাতার কটাক্ষ করে যাচ্ছেন। এমনকি নরেন্দ্র মোদী স্টেডিয়ামের বাইশ গজকে যাতে নির্বাসিত করে দেওয়া হয়, আইসিসি-র কাছে এমন অভিযোগ করা হয়েছে। যদিও এই বিষয় নিয়ে মাথা ঘামাতে নারাজ ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্ট। এর আগে পিচ বিতর্ক নিয়ে রোহিত শর্মা, রবিচন্দ্রন অশ্বিন মুখ খুলেছেন। এবার রাহানেও বিস্ফোরণ ঘটালেন, যা তাঁর স্বভাব বিরুদ্ধ। তিনি বলেন, “ওঁদের যা ইচ্ছে হয় বলতে দিন। আমাদের কিছু আসে যায় না। আমরা যখন বিদেশে যাই তখন কি আমাদের সুবিধামত ব্যবস্থা করা হয়! বিদেশের মাঠে খেলতে নামলেই আমাদের ব্যাটসম্যানদের টেকনিক নিয়ে কথা শুরু হয়ে যায়। কিন্তু আমরা কি ওঁদের কাছে পাটা উইকেটের আবেদন করেছি! কিংবা পিচ নিয়ে কোনওদিন অভিযোগ করেছি! তাই কে কি বললো সেটাকে গুরুত্ব দেওয়া উচিত নয়।”

Advertisement

এখানেই থামেননি এই রাহানে। আরও যোগ করেছেন, “বিদেশে বিশেষ করে ইংল্যান্ডে প্রথমদিনের পিচে মারাত্মক স্যাঁতস্যাঁতে ভাব থাকে। পিচে আবার বাড়তি ঘাস থাকলে বল আচমকা লাফিয়ে ওঠে। কোনও বল আবার হঠাৎ গোড়ালির নিচে নেমে যায়। সেগুলো নিশ্চয়ই আপনারাও দেখেছেন। কিন্তু আমরা কি কখনও অভিযোগ করেছি! দুটো দলকে কিন্তু একই পিচে খেলতে হবে। তাই ইংল্যান্ড ভাল খেললে ওরাও টেস্ট জিততে পারে।”

এই টেস্ট জিতলেই মিলবে বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল খেলার টিকিট। ইশান্ত শর্মা, চেতেশ্বর পুজারা-র মত তিনিও ইদানীং একটাই ফরম্যাট খেলেন। তাই রাহানেও বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ ফাইনাল জিততে চান। সেটা তাঁর কাছে বিশ্বকাপ জয়ের সমান বলে মনে করেন এই মুম্বইকর। তাই ইশান্তের সঙ্গে একমত হয়ে রাহানে বলছেন, “আমিও বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ ফাইনাল জয়ের স্বাদ পেতে চাই। কারণ ওটা আমার কছে বিশ্বকাপ জয়ের সমান। তবে এখন আমাদের লক্ষ্য সিরিজের শেষ টেস্ট জয়। সেই ম্যাচ জিততে পারলে বাকি পথ সুগম হবে।”

Advertisement