×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১৯ এপ্রিল ২০২১ ই-পেপার

টোকিয়ো অলিম্পিক্সে নামার আগে স্বস্তিতে সিন্ধুরা

নিজস্ব সংবাদদাতা 
কলকাতা ১০ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ১৭:৫১
আসন্ন অলিম্পিক্সে নিভৃতবাসে থাকতে হবে না।  স্বস্তিতে সিন্ধুরা।

আসন্ন অলিম্পিক্সে নিভৃতবাসে থাকতে হবে না। স্বস্তিতে সিন্ধুরা।
ফাইল চিত্র

করোনাভাইরাসকে হার মানিয়ে চলতি বছরের ২৩ জুলাই থেকে শুরু হচ্ছে টোকিয়ো অলিম্পিক্স। আর বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্রীড়া প্রতিযোগিতা শুরু হওয়ার আগে বেশ স্বস্তি পেলেন ক্রীড়াবিদরা। কারণ আসন্ন অলিম্পিক্সে খেলতে নামার আগে কিংবা প্রতিযোগিতা চলার সময় কোনও প্রতিযোগীকে আর নিভৃতবাসে থাকার প্রয়োজন নেই। তবে প্রতিযোগিতার শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সবাইকে চার দিন অন্তর কোভিড পরীক্ষা করাতেই হবে। সেই পরীক্ষার ফল পজিটিভ এলেই খেলোয়াড়রা মাঠে নামার অনুমতি পাবেন। জাপান সরকারের তরফ থেকে এমন নির্দেশ দেওয়া হল।

মঙ্গলবার জাপান সরকারের তরফে ৩৩ পাতার একটি নিয়মলিপি প্রকাশ করা হয়েছে। যেখানে লেখা রয়েছে যে আসন্ন অলিপিক্সে অংশ নেওয়ার জন্য নিভৃতবাসে থাকার কোনও প্রয়োজন নেই। তবে তাদের দেশ ও গেমস ভিলেজে ঢোকার আগে করোনা পরীক্ষা করা বাধ্যতামূলক। প্রত্যেক খেলোয়াড় ও অলিম্পিক্সের সঙ্গে জড়িত সবাইকে চার দিন অন্তর কোভিড পরীক্ষা করাতেই হবে।

যদিও অলিম্পিক্সের সঙ্গে জড়িয়ে থাকা কোনও ব্যাক্তি বাস, ট্রেনে যাতায়াত করতে পারবেন না। অলিম্পিক্স কমিটির তরফ থেকে দেওয়া গাড়ি ব্যবহার করতে হবে। ৩৩ পাতার নিয়মলিপিতে সেটাও স্পষ্ট করে বলা হয়েছে। তাছাড়া গেমস ভিলেজের বাইরে যাওয়ার পাশাপাশি খেলার শেষে করমর্দনের বিষয়েও নিষেধাজ্ঞা জারি করার হল। এই বিষয়ে জাপান সরকারের এক মুখপাত্র বলেছেন, “খেলোয়াড় ও প্রতিযোগিতার সঙ্গে জড়িত কেউ সাধারণ মানুষদের ব্যবহার করা জিম, ভ্রমণ স্থান, বাজার, রেস্তোরাঁ, পানীয়ের জায়গায় যেতে পারবেন না। এমনকি যৌনসম্পর্কও পুরোপুরি নিষিদ্ধ। এ ছাড়াও, শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখতে হাত মেলানো, জড়িয়ে ধরার মতো চিরাচরিত প্রথাও দেখা যাবে না। ক্রীড়াবিদদের থেকে দু’মিটার এবং বাকিদের নিজেদের মধ্যে অন্তত এক মিটার দূরত্ব রাখতে হবে। ম্যাচ খেলা, অনুশীলন করা, খাওয়া দাওয়া, ঘুমোতে যাওয়া ও খোলা জায়গা ছাড়া বাকিটা সময় সবার মাস্ক পড়ে থাকা বাধ্যতামূলক।”

Advertisement

এই খবরে যে গোটা বিশ্বের তামাম প্রতিযোগীরা স্বস্তি পাবেন এই বিষয়ে কোনও সন্দেহ নেই। কারণ একাধিক খেলাধুলোর সঙ্গে জড়িত ক্রীড়াবিদরা একাধিক দিন নিভৃতবাসে থাকার জন্য প্রকাশ্যে বিরক্তি প্রকাশ করেছেন। তাই জাপান সরকারের এই সিদ্ধান্তকে সবাই স্বাগত জানাচ্ছেন।

Advertisement