অভিষেকের কেন্দ্রে ‘দুর্নীতিহীন প্রার্থী’ ফুয়াদকে ভোট দেওয়ার ডাক নাসিরুদ্দিনের
অভিষেক নিজে বিষয়টি নিয়ে এখনও কোনও মন্তব্য করেননি।দলের মুখপাত্ররাও কোনও প্রতিক্রিয়া দিতে চাননি।
Naseeruddin

ফুয়াদের সমর্থনে নাসির। ছবি: সংগৃহীত।

বাংলার রাজনীতিতে যখন প্রায় প্রান্তিক হতে চলেছে বাম শিবির, তখন আচমকাই তাঁদের প্রতি সমর্থন এল এক অপ্রত্যাশিত উৎস থেকে। গত কয়েক বছর ধরে অসহিষ্ণুতা, কট্টরবাদ, বাকস্বাধীনতা-সহ নানা ইস্যুতে মোদী সরকারের বিরুদ্ধে বার বার সরব হয়েছেন যিনি, সেই নাসিরুদ্দিন শাহ বুধবার ভোট চাইলেন ডায়মন্ডহারবার আসনের সিপিএম প্রার্থী ফুয়াদ হালিমের হয়ে| নাসিরুদ্দিনরা যে সব ইস্যুতে বিরোধিতা করছেন মোদী সরকারের, এ রাজ্যে ঠিক সেই সব ইস্যু তুলে ধরেই বিজেপির সঙ্গে তীব্র সঙ্ঘাতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। অদ্ভুত সমাপতন হল এই যে, সেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভাইপো অভিষেকের প্রতিদ্বন্দ্বীকেই ভোট দিতে বললেন নাসিরুদ্দিন। এতেই শেষ নয় অবশ্য।  ফুয়াদ হালিমের হয়ে সওয়াল করতে গিয়ে নাসিরুদ্দিন বললেন, “এমন প্রার্থীকে ভোট দিন, যিনি দুর্নীতিগ্রস্ত নন।”

নাসিরুদ্দিন শাহের যে ভিডিয়ো বার্তাটি সামনে এসেছে বুধবার, তাতে অভিনেতা জানিয়েছেন, ফুয়াদ হালিমের সঙ্গে তাঁর ব্যক্তিগত পরিচয় রয়েছে। কম খরচে চিকিৎসা দিয়ে এবং অন্যান্য উপায়ে ফুয়াদ কী ভাবে সাহায্য করেন 'প্রান্তিক ও সুবিধা বঞ্চিত' লোকজনকে, সে সম্পর্কে তিনি অবহিত বলে জানিয়েছেন নাসিরুদ্দিন শাহ।

তবে শুধু ফুয়াদের 'কাজের' কথা তুলে ধরেই তিনি থামেননি। কারা আমাদের প্রার্থী, সে সম্পর্কে আমাদের প্রত্যেকের অবহিত থাকা উচিত বলে তিনি মন্তব্য করেছেন। তিনি বলেছেন, এমন কাউকেই আমাদের প্রতিনিধি হিসেবে বেছে নেওয়া উচিত, যিনি দুর্নীতিগ্রস্ত নন।

 

আরও পড়ুন: কাঁকিনাড়ায় মদন মিত্রের রোডশো-এ ‘জয় শ্রীরাম’ স্লোগান

সরাসরি রাজনীতি না করলেও বামপন্থার প্রতি নাসিরুদ্দিনের আস্থা বার বারই স্পষ্ট হয়েছে নানা কথায় ও কাজে। তাই ব্যক্তিগত বন্ধু ফুয়াদ হালিম যখন বামফ্রন্টের প্রার্থী, তখন ফুয়াদের হয়ে নাসিরুদ্দিনের ভোট ভিক্ষায় আশ্চর্য হওয়ার কিছু নেই। অন্য যে কোনও কেন্দ্রের সিপিএম প্রার্থীর হয়ে ভোট চাওয়া, আর ডায়মন্ড হারবারের সিপিএম প্রার্থীকে সমর্থনের ডাক দেওয়ার মধ্যে ফারাক রয়েছে বলে রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মত।

বাংলার বর্তমান রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে ডায়মন্ড হারবারের তাৎপর্য আলাদা।রাজ্যের শাসক দলে 'নাম্বার টু' এখন যিনি, সেই অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ওই আসনে লড়ছেন।প্রথম বার লড়ছেন এমন নয়, তিনিই ওই এলাকার বিদায়ী সাংসদ। সব জেনেও ফুয়াদ হালিমকে ভোট দিতে বলা মানে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে ভোট দিতে বারণ করা। অতএব প্রশ্ন উঠছে যে, নাসিরুদ্দিন ভেবেচিন্তেই এমনটা করলেন কি?

আরও পড়ুন: এ এক অন্য অযোধ্যা, ভোপালের ভোটযুদ্ধে প্রজ্ঞার সঙ্গেই হিন্দুত্বের নৌকায় দিগ্বিজয়

দেশের সাম্প্রতিক রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে নাসিরুদ্দিনরা সবচেয়ে বেশি সরব যে দলের বিরুদ্ধে, সেই বিজেপির সঙ্গে তিক্ততম টক্করটা যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই নিচ্ছেন, তা নিয়ে রাজনৈতিক শিবিরের সন্দেহ কমই।নাসিরুদ্দিন-সহ বলিউডের আরও অনেকের এই অবস্থানকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বরাবর শ্রদ্ধাও করে এসেছেন। সেই মমতার দলের নাম্বার টু তথা মমতার ভাইপোর কেন্দ্রে ফুয়াদ হালিমকে ভোট দেওয়ার আহ্বান কী ভাবে জানালেন নাসিরুদ্দিন? এই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে তৃণমূলের একাংশে। তবে অভিষেক নিজে বিষয়টি নিয়ে এখনও কোনও মন্তব্য করেননি।দলের মুখপাত্ররাও কোনও প্রতিক্রিয়া দিতে চাননি।

২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের ফল

আপনার মত