খাগড়াগড়-কাণ্ডে ফেরার ‘মোস্ট ওয়ান্টেড’ জহিরুল শেখকে মধ্যপ্রদেশের ইনদওর থেকে গ্রেফতার করল জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা (এনআইএ)।

জামাতুল মুজাহিদিনের বর্ধমান মডিউলের অন্যতম শীর্ষ নেতা জহিরুল নদিয়ার থানেরপাড়ার বাসিন্দা। এনআইএ-র তদন্তকারীরা জানিয়েছেন, শিমুলিয়া মাদ্রাসাতে থাকত জহিরুল।

ওই মাদ্রাসাতে যে কমলা রঙের ছোট গাড়ি পাওয়া গিয়েছিল, সেটির মালিক সে-ই। গোয়েন্দাদের দাবি, ওই গাড়িতে করে শিমুলিয়া থেকে মুর্শিদাবাদের মুকিমনগর, বেলডাঙা-সহ বিভিন্ন ডেরাতে অস্ত্র, বিস্ফোরকের মালমশলা পৌঁছে দিত জহিরুল। একই ভাবে ওই গাড়িতে করেই অস্ত্র প্রশিক্ষণ যারা নিত তাদেরও এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় নিয়ে যেত সে।

আরও পড়ুন: পুজোর দখল নিতে পারেনি বলেই আয়কর নোটিস: বঙ্গজননীর মঞ্চ থেকে তোপ ববির

২০১৫ সালে জহিরুলের নাম তাদের প্রথম চার্জশিটে উল্লেখ করে এনআইএ। এখনও পর্যন্ত খাগড়াগড় মামলায় ৩৩ জনকে চার্জশিট দেওয়া হয়েছে। মূল অভিযুক্ত সবাই এই মুহূর্তে এনআইএ হেফাজতে। একমাত্র ফেরার সালাউদ্দিন সালেহিন ওরফে বড়ভাই।

আরও পড়ুন: অসমে বাতিল নাগরিকদের তালিকা আর যাচাই নয়, এনআরসি মামলায় জানিয়ে দিল সুপ্রিম 

এ দিন ইনদওরের আদালতে পেশ করা হয় জহিরুলকে। সেখানে বিচারক ট্রানজিট রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন। তাকে নিয়ে আসা হবে কলকাতায়।