Advertisement
২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
Extra marital Affair

Malda: অন্য সম্পর্কে মজে দরজায় খিল দিলেন স্বামী, সন্তান নিয়ে শ্বশুরবাড়ির সামনে ধর্নায় স্ত্রী

 

 

ধর্নায় বসে স্ত্রীর হুমকি সংসার করতে না দিলে আত্মহত্যা করবেন।

ধর্নায় বসে স্ত্রীর হুমকি সংসার করতে না দিলে আত্মহত্যা করবেন। নিজস্ব চিত্র।

নিজস্ব সংবাদদাতা
হরিশ্চন্দ্রপুর শেষ আপডেট: ২১ মার্চ ২০২২ ১৭:২৫
Share: Save:

১০ বছর সংসার করার পর স্ত্রীর প্রতি আকর্ষণ কমেছে স্বামীর। স্ত্রীর দাবি, স্বামীর মন মজেছে নতুন সঙ্গীর রূপে। তাই সারাক্ষণ মোবাইল ফোনের স্ক্রিনে চোখ থাকে তাঁর। প্রতিবাদ করতেই দুই নাবালক সন্তান-সহ তাঁকে বাড়ি থেকে বার করে দেওয়ার অভিযোগ তুললেন স্ত্রী। তবু সংসার করার দাবিতে ২৪ ঘণ্টা ধরে ধর্নায় বসে আছেন তিনি। সোমবার এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে তীব্র চাঞ্চল্য ছড়াল মালদহের হরিশ্চন্দ্রপুর থানার হোসেনপুর গ্রামে।

বছর ছাব্বিশের বধূ বিজলি খাতুনের অভিযোগ, আগেও স্বামী সাহবাজ আলির এই কাজের প্রতিবাদ করেছিলেন। তা নিয়ে সংসারে নিত্যদিন অশান্তি চলছিল। তাঁদের বিবাদ মেটাতে বেশ কয়েকবার সালিশি সভাও হয় গ্রামে। কিন্তু স্বামীকে পরকীয়া থেকে বিরত করা যায়নি। মানসিক এবং শারীরিক নির্যাতন সহ্য করেও স্বামীর ঘরে মাথা গুঁজে ছিলেন তিনি। গ্রামের মুরুব্বিদেরও বিষয়টি জানিয়েছিলেন। দ্বারস্থ হয়েছিলেন প্রশাসনের। তাতেই নাকি বেজায় চটেছেন স্বামী। তাই তাঁকে-সহ দুই নাবালক সন্তানকে ঘর থেকে তাড়িয়ে ঘরে তালা দিয়েছেন তিনি।

এখন স্বামী ও শাশুড়ি ‘আত্মগোপন’ করেছেন কোনও ‘আস্তানা’য়। তাই মাথার ছাদ ফিরে পেতে স্বামীর ঘরের সামনেই ধর্নায় বসলেন স্ত্রী। রবিবার রাত গড়িয়ে সকাল, সকাল গড়িয়ে দুপুর হয়েছে। এখনও পর্যন্ত তাঁরা কেউ খোঁজ নেননি বলে দাবি তাঁর। অনাহারে বসে রয়েছেন বিজলি। বাড়িতে ঢুকতে না দিলে শ্বশুরবাড়ির সামনে আত্মহত্যার হুমকি দেন তিনি।

বিজলি জানান, স্বামী দ্বিতীয় বিয়ে করবেন বলে মাস দুয়েক আগে তাঁকে জোর করে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেন। তার পর থেকে আর তাঁকে বাড়িতে ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না। বিষয়টি স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন ও গ্রামের সমাজের সদস্যদের জানিয়েছেন। তাঁরাই রবিবার সকালে গ্রামে সালিশি সভা বসার কথা বলেন। কিন্তু স্বামী ও শ্বাশুড়ি সালিশি সভায় উপস্থিত না হয়ে বাড়িতে তালা ঝুলিয়ে কোথাও পালিয়ে গিয়েছেন।

কুশিদা গ্রাম পঞ্চায়েতের সদস্য অলক পোদ্দার জানান, ছেলেটি চরিত্রহীন, চণ্ডীপুর গ্রামে এক মেয়ের সঙ্গে পরকীয়া সম্পর্ক রয়েছে। আবার মোটা অঙ্কের যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে প্রায়শই মারধর করে।এই নিয়ে গ্রামে বেশ কয়েকবার সালিশি সভা বসেছে। ছেলে স্ত্রীকে নিতে অস্বীকার করছে। মেয়েটি রবিবার সন্ধ্যা থেকে ধর্নায় বসে রয়েছেন। এই নিয়ে প্রশাসনকে জানানো হয়েছে। প্রশাসন বিষয়টি দেখার আশ্বাস দিয়েছে।

অভিযুক্ত স্বামী সাহবাজ আলির সঙ্গে মোবাইল ফোন মারফত যোগাযোগ করেও কোনও উত্তর পাওয়া যায় নি।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement

Share this article

CLOSE