Advertisement
২৮ জানুয়ারি ২০২৩
ISF

ধর্মতলায় আইএসএফের বিক্ষোভে সেনা জওয়ান! মুর্শিদাবাদ থেকে ধরে আনল কলকাতা পুলিশ

সেনার চাকরি থেকে ছুটিতে বাড়ি ফিরে গত শনিবার কলকাতায় আইএসএফের সভায় যোগ দিয়েছিলেন সেনা জওয়ান সৈয়দ আলমগির হোসেন। তাঁকে মঙ্গলবার গ্রেফতার করেছে কলকাতা পুলিশ।

গত শনিবার ধর্মতলায় আইএসএফের বিক্ষোভ।

গত শনিবার ধর্মতলায় আইএসএফের বিক্ষোভ। — নিজস্ব চিত্র।

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা শেষ আপডেট: ২৪ জানুয়ারি ২০২৩ ১৭:৩৫
Share: Save:

সেনার চাকরি থেকে ছুটিতে বাড়ি ফিরেছিলেন। তারই মধ্যে গত শনিবার এসেছিলেন ইন্ডিয়ান সেকুলার ফ্রন্ট (আইএসএফ)-এর সভায়। মঙ্গলবার মুর্শিদাবাদের বাড়ি থেকে সৈয়দ আলমগির হোসেন নামের ওই যুবককে গ্রেফতার করল কলকাতা পুলিশ।

Advertisement

গত শনিবার বিকেলে আইএসএফ এবং কলকাতা পুলিশের মধ্যে ধুন্ধুমার বাধে ধর্মতলায়। ওই দিন কলকাতায় সভা ছিল আইএসএফের। ওই বিক্ষোভে লাঠিচার্জের অভিযোগ ওঠে পুলিশের বিরুদ্ধে। টেনেহিঁচড়ে পুলিশের গাড়িতে তোলার অভিযোগ ওঠে ভাঙড়ের বিধায়ক নওশাদ সিদ্দিকিকে। পরে তাঁকে গ্রেফতার করা হয়। একই সঙ্গে পুলিশের উপর পাল্টা আক্রমণ করার অভিযোগ ওঠে আইএসএফের কর্মী-সমর্থকদের বিরুদ্ধে। ওই ঘটনায় মঙ্গলবার মুর্শিদাবাদের খড়গ্রাম থানার এরোয়ালি গ্রাম থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে আলমগিরকে। কলকাতা পুলিশ জানিয়েছে, বছর পঁয়ত্রিশের আলমগির ‘টেরিটোরিয়াল আর্মি’র ইঞ্জিনিয়ারিং রেজিমেন্টের হাবিলদার। মঙ্গলবার এরোয়ালি গ্রামের বাড়ি থেকে তাঁকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

পুলিশ আরও জানিয়েছে, আদতে আলমগিরের বাড়ি বর্ধমানে। তবে খড়গ্রামেও তাঁর একটি বাড়ি রয়েছে। আলমগির গুজরাতে কর্মরত। ২ মাসের ছুটি নিয়ে তিনি বাড়ি এসেছিলেন বলে জানা গিয়েছে। তার মাঝেই ধর্মতলার ঘটনায় গ্রেফতার হতে হল। কলকাতা পুলিশ জানিয়েছে, গত শনিবার ধর্মতলায় ধুন্ধুমারের পর হেয়ার স্ট্রিট থানায় অভিযোগ দায়ের হয়। তার ভিত্তিতেই গ্রেফতার করা হয়েছে আলমগিরকে। এ প্রসঙ্গে আলমগীরের স্ত্রী হাসিনা বেগম বলেন, ‘‘রাতে কলকাতা থেকে এসে স্বামীকে নিয়ে গিয়েছে। এর বেশি কিছু জানি না। পুলিশের পক্ষ থেকে আমাদের এখনও কিছু জানানো হয়নি।’’

Advertisement
(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.