ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার করা হল নাট্য পরিচালক সুদীপ্ত চট্টোপাধ্যায়কে। শুক্রবার সন্ধ্যায় তাকে গ্রেফতার করে ফুলবাগান থানার পুলিশ। তদন্তকারীদের দাবি, জেরার মুখে ওই নাট্য ব্যক্তিত্ব স্বীকারও করেছেন গোটা ঘটনা।

ঘটনার সূত্রপাত বুধবার রাতে।  সোশ্যাল মিডিয়ায় সুদীপ্ত চট্টোপাধ্যায়ের নাটকের দলেরই এক তরুণী  অভিযোগ করেন, নাটকের মহলার সময়ে, অভিনয় শেখানোর অছিলায় তাঁকে ধর্ষণ করে সুদীপ্ত। সুদীপ্তর নাটকের দল ‘স্পেক্ট্যাক্টরস’-এ নিয়মিত অভিনয় করতেন ওই তরুণী। তিনি দাবি করেন, শুধু একবার নয়। বার বার ঘটনার পুনরাবৃত্তি হয়েছিল। দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে থাকে ওই তরুণীর বয়ান। ইতিমধ্যেই ওই নাট্যব্যক্তিত্বকে তার কর্মস্থল থেকেও ইস্তফা দিতে বলা হয়।

শুক্রবার সকালে ওই তরুণী ফুলবাগান থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। এর পরই অভিযুক্তের বেলেঘাটা থানা এলাকার বাড়িতে যায় পুলিশ। অভিযুক্ত নাট্য পরিচালককে নিয়ে আসা হয় থানায়। সেখানে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ পর্বের পর তাকে গ্রেফতার করা হয়।

আরও পড়ুন:অভিনয় শেখানোর নামে ‘ধর্ষণ’, পরিচালকের বিরুদ্ধে তরুণীর অভিযোগ ভাইরাল ফেসবুকে
আরও পড়ুন:পরাঠা-পরোটা, সওরভ-সৌরভ! আচমকা ফ্লেক্স প্রচার শহর জুড়ে, ‘উস্কানি’ দেখছে বিজেপি, তৃণমূল চুপ

প্রাথমিক ভাবে সুদীপ্ত দাবি করেছিলেন ওই পোস্ট সর্বৈব তথ্যবিকৃতি রয়েছে। এই নাট্যব্যক্তিত্বের বক্তব্য, স্টেজ শো হওয়ার পরে তাঁর মনে হয়, নামভূমিকায় অভিনয়কারী ওই তরুণীর অভিনয়ে খামতি ছিল। তাই ‘ডায়াফ্রাম ব্রিদিং টেকনিক’ প্রয়োজন অভিনয় তথা থিয়েটারের স্বার্থেই। এবং তিনি নন, ওই তরুণীই তাঁর কাছে অনুরোধ করেছিলেন ত্রুটি সংশোধনের, দাবি সুদীপ্তর। আনন্দবাজার ডিজিটালকে বৃহস্পতিবার তিনি বলেন, ওই ছাত্রীকে তিনি ধর্ষণ করেননি। 

তবে পুুলিশের দাবি, শুক্রবার জেরার মুখে সুদীপ্ত ধর্ষণের কথা স্বীকারও করে নেন। এদিন ওই তরুণীর বক্তব্য সমর্থন করে একই রকম অভিজ্ঞতার কথা জানান অন্য এক তরুণীও। তিনি বেলেঘাটা থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন বলে জানা গিয়েছে পুলিশ সূত্রে।