ফের রাতের শহরে ইভটিজিং ও নিগ্রহের জোড়া অভিযোগ। একটি ঘটনায় বেনিয়াপুকুর থেকে দুই যুবককে গ্রেফতার করেছে তপসিয়া থানার পুলিশ। অন্যটিতে বেলগাছিয়া থেকেও এক যুবককে গ্রেফতার করা হয়েছে।

সোমবার রাত তখন ১০টা। পাভলভ হাসপাতালের কাছে ইভটিজিংয়ের শিকার হন এক মহিলা। তাঁর অভিযোগ, অজ্ঞাতপরিচয় দুই স্কুটি আরোহী তাঁকে উত্ত্যক্ত করছিল। তাঁকে শারীরিক ভাবে নিগ্রহ করা হয় বলেও অভিযোগ। এরপর চম্পট দেয় তারা। কিন্তু, তপসিয়া থানার পুলিশকে ওই স্কুটির নম্বর জানিয়ে দেন অভিযোগকারিণী। সেই সূত্র ধরেই মঙ্গলবার রাতে বেনিয়াপুকুর থেকে দুই যুবককে গ্রেফতার করে পুলিশ। ধৃত ইভেন চহ্বাণ ওরফে অভিষেক লিন্টন স্ট্রিটের বাসিন্দা। আরেক অভিযুক্ত জুলফিকার খান ওরফে গুল্লু ডক্টর সুরেশ সরকার রোডের বাসিন্দা। একটি স্কুটিও বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। পুলিশের দাবি, ধৃতরা দোষ স্বীকার করেছে। তাদের বিরুদ্ধে মহিলাকে অনুসরণ, বাধা দেওয়া, আঘাত করা-সহ একাধিক ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছে।

আরেকটি পৃথক ঘটনায় বেলগাছিয়া থেকে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ।পরে তাকে গ্রেফতার করা হয়। ঘটনাটি ঘটে মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮টা নাগাদ। অভিযোগ, আমহার্স্ট স্ট্রিট থানার বিধান সরণি এলাকায় চল্লিশোর্ধ্ব এক মহিলাকে উত্ত্যক্ত করছিলেন পার্থসারথি গঙ্গোপাধ্যায় নামে ওই যুবক। সে সময় ওই মহিলা মোবাইলে ১০০ ডায়াল করেন। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই যুবককে প্রথমে আটক করে। জানা গিয়েছে, পার্থসারথি গঙ্গোপাধ্যায় বেলগাছিয়ার ক্ষুদিরাম বোস সরণির বাসিন্দা।

আরও পড়ুন: ফের মেট্রোর দরজায় হাত, ক্ষুব্ধ যাত্রীরা​

আরও পড়ুন: কাটমানি রুখতে কমছে ই-টেন্ডারের ঊর্ধ্বসীমা