গত কয়েক দিনের বৃষ্টিতে কার্যত জলবন্দি হয়ে পড়ে কলকাতা। বেহালা-সহ শহরের বেশ কিছু এখনও বেশ কিছু জায়গায় জলমগ্ন। এই জলযন্ত্রণা থেকে কবে মুক্তি পাবেন শহরবাসী? তা নিয়েই বুধবার কলকাতা পুরসভার মাসিক অধিবেশন উত্তাল হয়ে উঠল। বাম, কংগ্রেস,বিজেপি— সব কাউন্সিলররা এককাট্টা হয়ে এর স্থায়ী সমাধানের দাবি জানালেন মেয়র ফিরহাদ হাকিমের কাছে।

যদিও শহরে জল জমার বিষয়টিবেশি বাড়িয়ে বলা হচ্ছে বলে দাবি করেন মেয়র। তাঁর কথায়, ‘‘কোথাও কোথাও জল জমেছে ঠিকই।কিন্তু, বাড়িয়ে দেখানো হচ্ছে। যেখানে আগে নিকাশি ব্যবস্থা ছিল না, সে সব জায়গায়এখন তা হয়েছে। ফলে বেশিক্ষণ জল দাঁড়াচ্ছে না।’’ আগামী বছর ভারী বৃষ্টি হলেও চার-পাঁচ ঘণ্টার বেশি জল দাঁড়াবে না বলে এ দিনের অধিবেশনে আশ্বস্ত করেন মেয়র।

পুরসভা অধিবেশনে বাম কাউন্সিলর রত্না রায় মজুমদার জল জমার প্রসঙ্গ তোলেন। পাম্পিং স্টেশনগুলির কাজ কেন এখনও শেষ হয়নি তা জানতে চান তিনি। ১২৮ নম্বর ওয়ার্ডের বিভিন্ন জায়গায় জল জমার বিষয়ে মহানগরের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন রত্না। এ ছাড়াও কেইআইপি পাম্পিং স্টেশন সংস্কারের কাজ কবে থেকে শুরু হবে,তিনি তা-ও জানতে চান।

মেয়র পারিষদ তারক সিংহ এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘‘সব জায়গায় জল জমে রয়েছে, বিরোধীদের এই অভিযোগ একেবারেই ভুল। কোথাও কোথাও জল জমে রয়েছে। তবে তা নেমেও গিয়েছে।’’ তারকের দাবি,গত ১৬অগস্ট বিকেল তিনটের পর থেকে পরবর্তী সাত ঘণ্টায় ১৮৩ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। ওই ভারী বৃষ্টির কারণে জল জমা স্বাভাবিক। কিন্তু এখন যা নিকাশি ব্যবস্থা রয়েছে, তাতে জল নেমে গিয়েছে বলেই জানিয়েছেন তারক।

আরও পডু়ন: খিদিরপুরের নামী স্কুলে দিদিদের হাতে শিশু ছাত্রীর যৌন হেনস্থার অভিযোগ, বিক্ষোভ

আরও পড়ুন: এখনও স্বস্তির ইঙ্গিত নেই সুপ্রিম কোর্টে, চিদম্বরমের বিরুদ্ধে লুক আউট নোটিস ইডির

এরই পাশাপাশি এ দিন পুরো অধিবেশনে বিরোধীরা জলাশয় সংরক্ষণ, বৃক্ষরোপণ এবং প্লাস্টিক মুক্ত কলকাতার দাবি জানান। কলকাতায় বেআইনি নির্মাণ নিয়েও সরব হন তাঁরা। মেয়র ফিরহাদ হাকিম এ সব বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন।