• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

‘সকলে সুস্থ হলে সেটাই আমাদের ইদ’

Corona
গ্রাফিক- শৌভিক দেবনাথ

সপ্তাহ দুয়েক আগের কথা মনে পড়ে যাচ্ছিল গার্ডেনরিচের বাসিন্দা তিন ভাইয়ের। কোভিড পজ়িটিভ আব্বাকে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজের সুপার স্পেশ্যালিটি ব্লকে ভর্তি করে বাড়ি ফিরেছিলেন তাঁরা। সে দিনটি ছিল উদ্বেগের। সোমবার স্বস্তির হাওয়া সেই পরিবারে। করোনা আক্রান্ত আব্বাকে খুশির ইদের দিনে সুস্থ করে বাড়ি ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়ার স্বস্তি। তিন সন্তানের পিতার অবশ্য মন ভাল নেই। তাঁর কথায়, ‘‘এ বছর ইদ বলে কিছু নেই। বহু মানুষ করোনাভাইরাসের সংক্রমণে অসুস্থ। করোনা হয়নি, এমন রোগীরাও এই রোগ নিয়ে আতঙ্কের জেরে খুব কষ্টে আছেন। সকলে সুস্থ হলে  সেটাই আমাদের ইদ।’’

গার্ডেনরিচের বাসিন্দা ওই বৃদ্ধের পাশাপাশি এ দিন আরও ৫৯ জনকে ছুটি দিয়েছেন কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ কর্তৃপক্ষ। দিন চোদ্দো আগে জ্বরে আক্রান্ত হয়েছিলেন গার্ডেনরিচের বৃদ্ধ। বাড়িতে স্ত্রী, মা, তিন ছেলে এবং  বৌমাদের নিয়ে তাঁর সংসার। এ দিন বৃদ্ধ জানান,  করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন জেনে প্রথমে ভয় পেয়েছিলেন। এই রোগ হয়েছে জানার পরে সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গি যে ভাবে বদলে যাচ্ছে, সেটাই তাঁর ভয়ের ভিতকে আরও পোক্ত করে তোলে। কিন্তু সুস্থ হয়ে বাড়ি ফেরার মুহূর্তে সেই ভয় এখন অতীত। বৃদ্ধের কথায়, ‘‘এই রোগ হলে কাউকে ঘৃণা করবেন না।’’  

করোনাকে যে ভয় পাওয়ার কিছু নেই, বৃদ্ধের সঙ্গে সহমত হয়ে সেই বার্তা দিলেন ছুটি পাওয়া অন্য রোগীরাও। কো-মর্বিডিটি থাকা রোগীদের সংখ্যাও কম নয়। হাওড়ার শিবপুরের বাসিন্দা, ৮২ বছরের এক বৃদ্ধের করোনার পাশাপাশি ডায়াবিটিস এবং উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা ছিল। এ ছাড়া ক্যানসার আক্রান্ত ব্যক্তি, রক্তাল্পতায় ভোগা ভিন্ রাজ্যের এক বাসিন্দা, সদ্য কিডনি প্রতিস্থাপন হওয়া যুবকও ছিলেন সুস্থ হয়ে ওঠাদের দলে। যমজ সন্তানের জন্ম দেওয়া এক প্রসূতিও করোনার শিকার হয়ে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজে চিকিৎসাধীন ছিলেন। এ দিন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফেরার তালিকায় তাঁর নামও রয়েছে। পূর্ব মেদিনীপুরের কাঁথির বাসিন্দা ৪৭ বছরের এক ব্যক্তি জানান,  করোনা হয়েছে জানার পরে নিয়তির হাতে সব ছেড়ে দিয়েছিলেন তিনি। কোভিড হাসপাতালের চিকিৎসক-নার্সদের অক্লান্ত সেবায় সুস্থ হয়ে বাড়ি ফেরার আনন্দে কেঁদেই ফেললেন তিনি।

আরও পড়ুন: শহর সাফাইয়ে নামল পূর্ত দফতরও

এ দিন ওই রোগীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে হাজির ছিলেন অধ্যক্ষা মঞ্জুশ্রী রায়, উপাধ্যক্ষ তথা সুপার ইন্দ্রনীল বিশ্বাস এবং রাজ্যের মন্ত্রী, হাসপাতালের রোগী কল্যাণ সমিতির চেয়ারম্যান নির্মল মাজি। রোগীদের হাতে ফুল এবং স্বাস্থ্য-পানীয় তুলে দিয়ে নির্মল জানান,  এ দিন যে ৬০ জন রোগীকে ছাড়া হয়েছে তাঁদের মধ্যে অনেকে ক্রিটিক্যাল কেয়ার ইউনিটে ছিলেন। এখন করোনা রোগী চিকিৎসাধীন রয়েছেন ২৩৭ জন। ‘সারি’ রোগীর সংখ্যা ৮০। নির্মলের কথায়, ‘‘রোগীর চাপ বাড়ায় ক্যাজ়ুয়াল্টি বিল্ডিংয়ের তেতলায় করোনার চিকিৎসা এই সপ্তাহেই শুরু হবে। কলকাতা মেডিক্যাল কলেজের উপরে মুখ্যমন্ত্রী যে আস্থা রেখেছেন, তা পূরণের লক্ষ্যে প্রতিনিয়ত কাজ করছেন চিকিৎসক-স্বাস্থ্যকর্মীরা।’’

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন