• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

চাবি দিয়ে খুলতে হল স্ক্রিন ডোর

Screen Door
ফাইল চিত্র।

দিন কয়েক আগে স্টেশনে না থেমেই চলে গিয়েছিল ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রো। সোমবার প্ল্যাটফর্মের স্বয়ংক্রিয় কাচের দরজা না খোলার অভিযোগ উঠল সেই ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোতেই।

মেট্রো সূত্রের খবর, সেক্টর ফাইভ স্টেশনে এ দিন যাত্রীরা প্ল্যাটফর্মে দাঁড়িয়েছিলেন। ট্রেন এসে থামলেও খোলেনি প্ল্যাটফর্মে বসানো স্ক্রিন ডোর। অনেক চেষ্টা করে চালকও ওই দরজা খুলতে পারেননি। শেষে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মী এসে চাবি ঘুরিয়ে স্ক্রিন ডোর খুলে দেন। তাতে ট্রেন ছাড়তে দেরিও হয়। 

মেট্রোর আধিকারিকেরা জানান, প্রযুক্তিগত ভাবে এগিয়ে থাকা ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোয় দুর্ঘটনা ঠেকাতে প্ল্যাটফর্মে স্ক্রিন ডোর বসানো হয়েছে। এক-একটি প্ল্যাটফর্মে ২৪টি স্ক্রিন ডোর রয়েছে। ট্রেন এলে কামরার দরজার সঙ্গে ওই দরজাগুলিরও খুলে যাওয়ার কথা। যাত্রীদের ওঠানামা হয়ে গেলে আবার সেগুলি বন্ধ হয়ে যাওয়ার কথা।

যাত্রীদের অভিযোগ, এ দিন দুপুর ১টা ৫০ মিনিটে সেক্টর ফাইভ স্টেশনে সল্টলেক স্টেডিয়ামগামী মেট্রো এসে থামলে দেখা যায়, প্ল্যাটফর্মের স্ক্রিন ডোর খুলছে না। ফলে ট্রেনের দরজাও খোলেনি। কিছু ক্ষণ পরে স্টেশন মাস্টারের নজরে আসে ঘটনাটি। তখন তাঁর নির্দেশে বিশেষ চাবি ঘুরিয়ে স্ক্রিন ডোর খোলা শুরু হয়। তার পরে খোলে ট্রেনের কামরার দরজা। কারশেড থেকে ট্রেনটি আসায় সে সময়ে তাতে কোনও যাত্রী ছিলেন না। মেট্রোর দাবি, অনেক সময়ে তড়িৎ-চুম্বকীয় সঙ্কেত ঠিক মতো বুঝতে না পারায় দরজা খোলার যন্ত্র ঠিক মতো কাজ করে না।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন