• সংবাদ সংস্থা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

কোভিড পজিটিভ ১ লক্ষ হলেও ফের লকডাউন নাকচ ইমরানের

Imran Khan
পাক প্রধানমন্ত্রীর দাবি, লকডাউন অভিজাতদের পক্ষেই সুবিধাজনক। ছবি: সংগৃহীত।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ১ লক্ষ। প্রতি দিনই তা বাড়ছে রেকর্ড সংখ্যক হারে। তা সত্ত্বেও পাকিস্তানে লকডাউনের কড়া দাওয়াই দিতে রাজি নয় ইমরান খান সরকার। পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরানের দাবি, এ সবই অভিজাতদের ধারণা। তাঁর মতে, ফের লকডাউনের ফলে পাকিস্তানের অর্থনীতি ধসে পড়বে। সেই সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়বে দারিদ্র। 

লকডাউনের সম্ভাবনাকে নাকচ করলেও করোনা রুখতে সুচতুর ভাবে এগোনোর পথ বেছে নিতে চান ইমরান খান। দেশের মানুষকে করোনা নিয়ে সচেতন করায় জোর দিয়েছেন তিনি। সেই সঙ্গে তাঁর দাওয়াই, সংক্রমণের হাত থেকে বাঁচতে আদর্শ আচরণবিধি (স্য়ান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিউর বা এসওপি) মেনে চলতে হবে মানুষজনকে। শনিবার এ নিয়ে একাধিক টুইট করেছেন ইমরান। তার একটি টুইটে তিনি লিখেছেন, “গোটা বিশ্বই স্মার্ট লকডাউনের পথ খুঁজে নিয়েছে। যাতে রয়েছে এসওপি মেনে সমস্ত অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাওয়া।”

স্মার্ট লকডাউনের অন্যতম পথপদর্শক হিসেবে পাকিস্তানও রয়েছে বলে দাবি ইমরানের। তাঁর কথায়, “এ ধরনের পথ বেছে নেওয়ার ক্ষেত্রে আমরাই অন্যতম। আমি সমস্ত নাগরিক সমাজ, মিডিয়া, উলেমা এবং আমাদের টাইগার ফোর্সকে অনুরোধ করব যাতে কোভিড-১৯ নিয়ে জনমানসে সচেতনতার প্রসার করে। এবং যথাযথ ভাবে এসওপি মেনে চলার প্রয়োজনীয়তার কথা বলে।”

আরও পড়ুন: স্কুল-কলেজ খুলছে অগস্টের পর, জানালেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী পোখরিয়াল

আরও পড়ুন: ট্রাম্পের সেনা নামানোর হুমকিতে ওয়াশিংটন ও পেন্টাগনের মধ্যে সংঘাত বাড়ল

পাকিস্তান জুড়ে কোভিড-১৯ পজিটিভের মোট সংখ্যা ৯৮ হাজার ৯৪৩। সে দেশে মৃত্যু হয়েছে ২ হাজারেরও বেশি। সেই সঙ্গে আশঙ্কা বাড়িয়েছে প্রতি দিনে সংক্রমিতের সংখ্যাও। পাকিস্তানের জাতীয় স্বাস্থ্য পরিষেবা মন্ত্রকের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় সে দেশে আক্রান্ত হয়েছেন ৪ হাজার ৯৬০ জন। তবে এই পরিসংখ্যান সত্ত্বেও পাক প্রধানমন্ত্রীর দাবি, লকডাউন অভিজাতদের পক্ষেই সুবিধাজনক। তাতে সবচেয়ে বেশি অসুবিধায় পড়বেন দেশের গরিবরাই। এই প্রসঙ্গে নরেন্দ্র মোদী সরকারকে খোঁচা দিতেও ছাড়েননি ইমরান। তিনি বলেন, “লকডাউন চাইছেন— অভিজাতরা যাঁদের বিশাল বাড়ি রয়েছে, সেই সমস্তদের আয়ে লকডাউনে তফাত পড়বে না। তবে লকডাউনের ফলে অর্থনীতি ধসে পড়বে এবং গরিব দেশে দারিদ্র আরও বাড়বে। গরিব মানুষকে ধ্বংস করে দেবে, ঠিক যেমনটা মোদীর লকডাউনের সময় ভারতে হয়েছে।” 

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন