মলদ্বীপের প্রাক্তন উপরাষ্ট্রপতি আহমেদ আদিব আবদুল গফুরকে শনিবার তাঁর দেশে ফেরাল ভারত। বৈধ নথিপত্র ছাড়া সমুদ্রপথে ভারতে এসে আশ্রয় নেওয়ার সময় গত ১ অগস্ট তামিলনাড়ু পুলিশের হাতে আটক হয়েছিলেন গফুর।  

তামিলনাড়ু পুলিশ জানিয়েছে, ভারতে ঢোকার জন্য ভার্গো-৯ নামে একটি মালবাহী জাহাজের সাহায্য নেন গফুর। তাতে চেপেই তুতিকোরিন পৌঁছতেই পুলিশের হাতে ধরা পড়েন তিনি। পুলিশ সূত্রে খবর, গফুরের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে। মলদ্বীপে তাঁর বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি মামলাও চলছে। প্রাণ সংশয়ের কথা উল্লেখ করে ভারতে আশ্রয়ের আর্জি জানিয়েছিলেন গফুর। কিন্তু তা খারিজ করে দেয় সরকার। তার পরই গফুর অবৈধ ভাবে ভারতে ঢোকার চেষ্টা করেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

গফুর আটক হওয়ার পরেই ভারতীয় বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র রবীশ কুমার জানান, জলপথে ভারতে আসার জন্য নির্দিষ্ট কয়েকটি প্রবেশপথ রয়েছে। ওই পথে বিদেশিরা ভারতে আসতে পারে। কিন্তু ওই পথ দিয়ে আসতে গেলেও বৈধ কাগজপত্র এবং অনুমতির প্রয়োজন হয়। কিন্তু গফুর সেই নির্দিষ্ট পথ ধরে না এসে অবৈধ ভাবে এ দেশে ঢোকার চেষ্টা করেন। শুধু তাই নয়, তাঁর কাছে কোনও বৈধ কাগজপত্রও ছিল না। গফুর আটক হওয়ার দিনই মলদ্বীপ পুলিশ এক বিবৃতি প্রকাশ করে জানায়, তাঁকে দেশে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা চালানো হচ্ছে। এর পরই শনিবার গফুরকে মলদ্বীপে ফেরত পাঠানো হয়।

২০১৫ সালে মলদ্বীপের কনিষ্ঠতম উপরাষ্ট্রপতি হিসেবে নিযুক্ত হন গফুর। রাষ্ট্রপতি আবদুল্লা ইয়ামিনের উপর হামলা চালানোর অভিযোগে তাঁকে গ্রেফতার করা হয়। তার পরই তাঁকে উপরাষ্ট্রপতির পদ থেকে বরখাস্ত করা হয়। গত মে মাসে জেল থাকে ছাড়া পান গফুর।

আরও পড়ুন: গুজবে কান দেবেন না, রাজ্যে শান্তি বজায় রাখুন, আহ্বান জানালেন জম্মু-কাশ্মীরের রাজ্যপাল

আরও পড়ুন: পাশ হল ইউএপিএ বিল, সন্ত্রাসবাদী কে? উত্তর দিতে ব্যর্থ মোদী সরকার