বিতর্কের পটভূমিতেই চুক্তির চার বছরের মাথায় প্রথম রাফাল যুদ্ধবিমান পেল ভারত। আনুষ্ঠানিক ভাবে হস্তান্তর অনুষ্ঠানে যোগ দিতে ফ্রান্স সফরে গিয়েছেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংহ। ওই অনুষ্ঠানেই রাজনাথ বলেছেন, রাফাল যুদ্ধবিমান ভারতীয় বায়ুসেনার শক্তি বাড়াবে। ইন্দো-ফ্রান্স সম্পর্কে এটা নতুন মাইলস্টোন। এই আনুষ্ঠানিক হস্তান্তরের পর দশেরা উপলক্ষে ‘শস্ত্র পূজা’ করেন রাজনাথ। তার পর কিছুক্ষণের জন্য রাফালে চড়ে আকাশেও ওড়েন প্রতিরক্ষামন্ত্রী।

ইউপিএ জমানায় ১২৬টি রাফাল যুদ্ধবিমান কেনার জন্য ফ্রান্সের দাসো এভিয়েশন এবং ভারতের রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থা হিন্দুস্তান অ্যারোনটিক্যাল লিমিটেড (হ্যাল)-এর সঙ্গে চুক্তি করেছিল প্রতিরক্ষা মন্ত্রক। কিন্তু ২০১৪ সালে ক্ষমতায় আসে বিজেপি তথা এনডিএ জোটের সরকার। প্রধানমন্ত্রী হন নরেন্দ্র মোদী। তার পর থেকেই সেই চুক্তি খতিয়ে দেখা শুরু হয় এবং ২০১৫ সালে সেই চুক্তি বাতিল করে দিয়ে ফ্রান্সের সংস্থা দাসো এভিয়েশনের সঙ্গে শুধুমাত্র ৩৬টি রাফাল যুদ্ধবিমান কেনার চুক্তি করে মোদী সরকার। এই চুক্তি নিয়ে অবশ্য বিরোধীরা দুর্নীতির অভিযোগ তোলেন।

চার বছর পর প্রথম রাফাল যুদ্ধবিমানটি ভারতকে হস্তান্তর করছে দাসো এভিয়েশন। সেই উপলক্ষেই ফ্রান্স সফরে রয়েছেন রাজনাথ সিংহ। সোমবার ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল মাকরঁর সঙ্গে বৈঠক করেন। তার পর ফ্রান্স বায়ুসেনার বিশেষ বিমানে সেখান থেকে যান মেরিগনাক বোরডুয়ক্স-এ। এখানেই হস্তান্তরের অনুষ্ঠান হয়। 

 

আরও পড়ুন: ব্রহ্মাণ্ডের বিবর্তন তত্ত্বে নতুন দিশা, পদার্থবিদ্যায় নোবেল পেলেন তিন জন

আরও পড়ুন: গণপিটুনি পাশ্চাত্যের সংস্কৃতি, ভারতকে কলুষিত করবেন না, বললেন আরএসএস প্রধান

অনুষ্ঠানে রাজনাথ বলেন, ‘‘ভারত-ফ্রান্স কূটনৈতিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে এটা একটা মাইলস্টোন। এই সম্পর্ক দীর্ঘজীবী হোক। নির্ধারিত সময়েই রাফাল হস্তান্তর হওয়ায় আমি খুশি। আমি নিশ্চিত যে, রাফাল যুদ্ধবিমান ভারতীয় বায়ুসেনার ক্ষমতা বাড়াবে, আমাদের দুই বৃহৎ গণতন্ত্রের (ফ্রান্স ও ভারত)সম্পর্ক সব দিক দিয়েই মজবুত হবে।

এ দিন আনুষ্ঠানিক হস্তান্তর হলেও ভারত রাফাল হাতে পাবে আগামী বছর। ২০২০ সালের মে মাস নাগাদ প্রথম ধাপে চারটি যুদ্ধবিমান আসবে বায়ুসেনার হাতে। তার আগে ফ্রান্সে গিয়ে ভারতীয় বায়ুসেনার অফিসাররা প্রশিক্ষণ নেবেন।