কর্মব্যস্ত জীবন, অনিয়ন্ত্রিত খাদ্যাভ্যাস, জীবনযাপনের জটিলতা যে সব সমস্যাকে প্রকট করে তোলে, মেদবৃদ্ধি তার মধ্যে অন্যতম। সারা দিন এক জায়গায় বসে কাজ, শরীরচর্চার সময় কমে যাওয়া এ সব থেকেই এই বিপদ হানা দিতে পারে শরীরে।

ওবেসিটির হাত ধরেই কোলেস্টেরল, উচ্চ রক্তচাপ, হার্টের অসুখের মতো সমস্যার সূত্রপাত। চিকিৎসকরাও তাই প্রতি নিয়ত ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখার পরামর্শ দেন। কিন্তু সময়ের অভাবে নিয়মিত ডায়েট বা শরীরচর্চার সুযোগ হয়ে ওঠে না অনেকেরই।

“তার মধ্যে অনেকেই ওজন কমানোর নেশায় পড়ে, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ ছাড়াই লোকমুখে প্রচলিত কিছু ডায়েট মানতে যান, আর তাতেই বিপদ বাড়ে”— জানাচ্ছেন ফিটনেস বিশেষজ্ঞ ও পুষ্টিবিদ সুমেধা সিংহ। তাঁর মতে, অনেকেই ওজন কমানোর জন্য কলা খাওয়া ছেড়ে দেন। কিন্তু কলার ফসফরাস পেশী গঠনে অত্যন্ত কার্যকর একটি ফল। তাই এই ভুল ধারণা থেকে বেরোন। বরং দেখা গিয়েছে, শরীরের বিপাকহার বাড়িয়ে চর্বি কমাতে পারে কলার স্মুদি।

আরও পড়ুন: মাত্র তিন আউন্স! ভায়াগ্রার মতো শক্তিশালী হাতের কাছে থাকা এই জিনিস

এই স্মুদি-ই মেদ ঝরানোর হাতিয়ার।

সহজলভ্য কিছু উপকরণ কলার সঙ্গে মিশিয়ে বানানো এই স্মুদি প্রতি দিন নিয়ম করে খেতে পারলে পেটের চর্বি কমে দ্রুত। কিন্তু কী ভাবে বানাবেন এই স্মুদি?

একটি পাকা কলা, অর্ধেক চা চামচ আদার গুঁড়ো, আধ কাপ লো ফ্যাট টক দই, ২ টেব‌্ল চামচ প্রোটিন পাউডার, দুই চামচ ফ্লাক্স সিডওসামান্য নারকেল তেল নিন। এ বার সব ক’টি উপাদান একসঙ্গে মিশিয়ে ব্লেন্ড করে নিন। প্রতি দিন সকালে জলখাবারে এই স্মুদি রাখুন। সঙ্গে লো ফ্যাট বা প্রোটিনযুক্ত ব্রেকফাস্ট করুন।

আরও পড়ুন: হোয়াটসঅ্যাপ গোল্ড নিয়ে আপনিও চিন্তিত? জেনে নিন আসলে তা কী

সকালে না পারলে বিকেলে ফল খাওয়ার সময়ও এই স্মুদি খেতে পারেন। পেশী গঠনের সঙ্গে শরীরের কঠিন ফ্যাট গলিয়ে দিতে সক্ষম কলা। সুতরাং অন্য কোনও অসুখের জন্য কলা খাওয়ার নিষেধাজ্ঞা না থাকলে বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ অনুযায়ী আপনার ডায়েটে রাখতেই পারেন এই স্মুদি।

(ইতিহাসের পাতায় আজকের তারিখ, দেখতে ক্লিক করুন — ফিরে দেখা এই দিন।)