• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

ভুঁড়ি কিছুতেই কমছে না? ঘরোয়া এই সব উপায় মানলেই কমবে পেটের মেদ

belly fat
ভুঁড়ি ডেকে আনে নানা নানা অসুখবিসুখ। ছবি: শাটারস্টক।

Advertisement

সুঠাম, মেদহীন শরীরের গঠন কে না চায়?। বিশেষত মেদবহুল পেট কারুরই পছন্দ নয়। খাওয়াদাওয়ায় অনিয়ম, ভুল খাবারে পেট ভরানো, কায়িক শ্রম কম করা, পর্যাপ্ত ঘুমের অভাব ইত্যাদি কারণে পেটের মেদ বাড়তে পারে হু হু করে। সঠিক সময় ব্যবস্থা না নিলে ভুঁড়ি কিংবা ওজন বৃদ্ধির মতো সমস্যা দীর্ঘস্থায়ী হতেও সময় লাগে না। ডেকে আনে নানা নানা অসুখবিসুখ।

ভুঁড়ি সাধারণত দু’ধরনের হয়ে থাকে। এক ধরনে তলপেটের অংশে মেদ জমে শক্ত হয়ে যায়। একে ‘বালজিং বেলি’ বলে। আর এক ধরনের ক্ষেত্রে সমগ্র পেটেই মেদ জমে ভুঁড়ির আকার ধারণ করে। একে ‘ব্লোটেড বেলি’ বলা হয়। বালজিং বেলির তুলনায় ব্লোটে়ড বেলি কমানো বেশি সহজ।

তবে ইচ্ছে থাকলেই উপায় বেরয়। তার জন্য জিমে ছুটতে হয় না। খেতে হয় না মুঠো মুঠো বাজারচলতি ক্ষতিকর সাপ্লিমেন্ট। বরং কিছু ঘরোয়া পদ্ধতিতে এই ধরনের ভুঁড়ি খুব সহজেই কমিয়ে ফেলা সম্ভব। বিপাকের হার বাড়িয়ে কী ভাবে সে সব পদ্ধতি শরীরের অযাচিত মেদ কমবে, রইল তার হদিশ।

আরও পড়ুন: মিলন রাতে ‘সতীত্ব’ প্রমাণে কৃত্রিম রক্তের পিল অনলাইনে! নিন্দার ঝড় সমাজ জুড়ে

প্রচুর পরিমাণে জল: পেট ভার হয়ে থাকলেও আরও বেশি করে জল পান করুন। আপনার মনে হতেই পারে পেট ভার অবস্থায় জল পান করলে আপনার অস্বস্তি আরও বাড়বে, কিন্তু জল পানের ফল হয় তার উল্টোটাই। অতিরিক্ত জল পানের ফলে?পাচনতন্ত্রে আগে থেকে জমে থাকা জল অপসরণের কাজ শুর করে দেয় এবং হজম তাড়াতাড়ি হয়। শরীরে জলের ঘাটতি তৈরি হয় না বলে শরীর জলকে অকারণে জমিয়েও রাখে না।

শরীরকে ডিটক্সিফাই করার জন্য প্রচুর পরিমাণে জল পান করুন। আদা ভেজানো জলের সঙ্গে মিশিয়ে নিন মধু ও পাতিলেবু। এতে শরীর খুব সহজেই ডিটক্সিফাই় হয়ে যায়। বরং স্ফীত পেটের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে চাইলে কফি বর্জন করুন। কফিতে থাকা ক্যাফিন আপনার শরীরে ডিহাইড্রেশনের মাত্রা বাড়িয়ে দিতে পারে। সেই সঙ্গে শরীরে শর্করা এবং ক্যালোরির মাত্রা বাড়িয়ে

কলা খান: স্ফীত পেটের সমস্যা থেকে মুক্তির আরও এক উপায় কলা খাওয়া। কলায় প্রচুর পটাশিয়াম থাকে যা, শরীরের জল ধারণ ক্ষমতাকে নিয়ন্ত্রন করে, পাচনতন্ত্রে থাকা সোডিয়ামের  মাত্রা নিয়ন্ত্রন করে।

আরও পড়ুন: ঝকঝকে ও নীরোগ ত্বক চাই? পার্লার নয়, ভরসা রাখুন রান্নাঘরের এ সব সামগ্রীতে

এপশম লবণে স্নান করুন: এতে আছে প্রচুর পরিমানে ম্যাগনেশিয়াম। যা শরীর থেকে অতিরিক্ত জল বের করে দিতে সাহায্য করে। এবং শরীরের যে অতিরিক্ত জল ধরে রাখার প্রবণতা থাকে , তাও দূর হয়ে যায় এই লবণে স্নানের ফলে। নিয়মিত এই জলে স্নান করলে স্ফীত পেটের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব।

জলখাবারে থাকুক প্রোটিন: যাঁদের ভুঁড়ির সমস্যা আছে তাঁরা অবশ্যই সকালের জলখাবারে প্রোটিন এবং ফাইবারযুক্ত খাবার খান। যাতে পাচনক্রিয়া ভাল এ ছাড়া রাতের খাবার তাড়াতাড়ি খাওয়ার অভ্যাস করুন।  অন্তত খাওয়ার দু’ঘণ্টা পর ঘুমতে যান।

সবাই যা পড়ছেন

Advertisement

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন
বাছাই খবর

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন