Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

০৪ জুলাই ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

ডায়াবেটিক? এ সব নিয়ম মেনে পুজোর ক’দিনের অনিয়মেও থাকুন সুস্থ

একটু অনিয়মের মধ্যেও নিজেকে নিয়মের বেড়াজালে বাঁধলে অসুখবিসুখকে এড়ানো যায়। কী ভাবে কী করবেন তার খুঁটিনাটি জানিয়েছেন ‘আমেরিকান ডায়াবেটিক অ্যা

সুজাতা মুখোপাধ্যায়
কলকাতা ০৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ১২:৪৪
Save
Something isn't right! Please refresh.
ডায়াবেটিক কিটো-অ্যাসিডোসিসে শ্বাসকষ্ট হয়, সতর্ক থাকুন। ফাইল ছবি।

ডায়াবেটিক কিটো-অ্যাসিডোসিসে শ্বাসকষ্ট হয়, সতর্ক থাকুন। ফাইল ছবি।

Popup Close

ডায়াবিটিসের সমস্যা আজ ঘরে ঘরে৷ তার হাত ধরেই উচ্চ রক্তচাপ, খারাপ কোলেস্টেরলের বৃদ্ধি, মেদবাহুল্য, ইসকিমিয়া ইত্যাদিরও রমরমা৷ এক রোগের হাত ধরে শরীরে ঢোকে আর এক রোগ। সামান্য ৪–৫ দিন কি দিন দশেকের বেপরোয়া আচরণে তারা এমন জায়গায় চলে যেতে পারে যে পূজোর মধ্যেই অসুস্থ হতে পারেন আপনি।

কিন্তু তা বলে যে পূজোর ক’দিনও আনন্দ করতে পারবেন না, এমন কিন্তু মোটেও নয়৷ একটু শুধু সতর্ক হয়ে চলুন৷ তা হলে আর রোগ বাড়বে না৷ আপনিও পূজো উপভোগ করতে পারবেন পুরো মাত্রায়৷

বরং একটু অনিয়মের মধ্যেও নিজেকে নিয়মের বেড়াজালে বাঁধলে অসুখবিসুখকে এড়ানো যায়। কী ভাবে কী করবেন তার খুঁটিনাটি জানিয়েছেন ‘আমেরিকান ডায়াবেটিক অ্যাসোসিয়েশন’-এর চিকিৎসকেরা৷

Advertisement

ডায়াবিটিস থাকলে দিনভর উপোশ করা চলবে না৷ বড়জোর বাদ দিতে পারেন সকালের চা–বিস্কুট৷ তার পর অঞ্জলি দিয়ে সময় মতো ওষুধ খেয়ে বা ইনসুলিন নিয়ে সকালের খাবার খেয়ে নিন৷ খাওয়াদাওয়া ভুলে আনন্দ করলে নিরানন্দের ঘণ্টা বেজে যেতে পারে যখন–তখন৷ কাজেই ৩ ঘণ্টা পর পর অল্প কিছু খান৷ অর্থাৎ সারা দিনে ৬–৭বার অল্প করে খান এবং চেষ্টা করুন সব ক’টাতেই কার্বোহাইড্রেট কম রাখার৷ পুজোর ক’দিন খাওয়াদাওয়ায় ডায়েট মানার পাঠ থাকে না খুব একটা। ঘরে-বাইরে ইচ্ছে মতো খাওয়াদাওয়া সারেন অনেকেই। পুজোয় না হয় কড়া রুটিন না-ই মানলেন। তবে ভূরিভোজের আগের ও পরের খাবার যেন হালকা হয়৷ দিনের মোট ক্যালরি যেন মোটের উপর ঠিক থাকে৷

​আরও পড়ুন: হাঁটু-কোমরে ব্যথা নিয়েও বেড়াতে যেতে পারেন নিশ্চিন্তে, মেনে চলুন এ সব নিয়ম



নরম পানীয় এড়িয়ে চলুন।

উপোশ এবং বেশি খাওয়া পর পর চললে, সুগারের মাত্রার যে ওঠানামা হয় তাতে পূজোর মধ্যেই অসুস্থ হয়ে পড়তে পারেন৷ দীর্ঘমেয়াদি ক্ষতির আশঙ্কা তো আছেই৷ এ সব এড়াতে ওষুধে রদবদল আনতে হয়৷ বিশেষ করে যাঁরা ইনসুলিন নেন৷ কাজেই আজই চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ করে সাধারণ ইনসুলিনের বদলে ইনসুলিন অ্যানালগ ব্যবহার করুন ক’দিন৷ এই ওষুধ খাওয়ার আগে ও পরেও এটি নেওয়া যায়৷ কাজেই কতটা বেশি খাওয়া হয়ে যাচ্ছে তা বুঝে ওষুধের মাত্রা ঠিক করা যাবে৷ শত প্রলোভনেও নরম পানীয়, মিষ্টি, পেস্ট্রি, তিলের নাড়ু, নারকোলের তক্তি ইত্যাদি অনেকটা খেয়ে ফেলবেন না। একেবারে না খেলেই ভাল হয়, তবে পুজোর ক’দিন অতটা এড়াতে না পারলেও কিছুটা নিয়ম মানুন। মদ্যপানের বিষয়ে সচেতন থাকুন৷ না খেলেই ভাল। এতে কম ক্যালোরি ঢুকবে শরীরে৷ মদ্যপানের আনুষঙ্গীক অসুবিধাও দূরে থাকবে।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)


Tags:
Something isn't right! Please refresh.

Advertisement