Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

১৭ অক্টোবর ২০২১ ই-পেপার

Cooking gas: গ্যাস কম খরচ করে রান্না সারবেন কী করে? জেনে নিন কিছু দুর্দান্ত উপায়

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা ০৭ অগস্ট ২০২১ ০৯:৫০
প্রতীকী ছবি।

প্রতীকী ছবি।
ছবি: সংগৃহীত

রান্নার গ্যাসের দাম এখন আকাশছোঁয়া। আমবাঙালি এখন ঘণ্টার পর ঘণ্টা ধরে মটন কষাতে কিংবা ঘি-খিড় বানাতে দশ বার ভাবেন। খাবার গরম হয় মাইক্রোওয়েভে। এবং গ্যাসের দাম দেখে অনেকেই এখন চা তৈরি করেন ইলেকট্রিক কেট্‌লে। কিংবা দুধ জাল দেন ইনডাকশন কুক টপে। তবে এতে লাভ কতটা হচ্ছে? বিদ্যুতের বিলও তো নেহাত কম আসছে না। এক দিক বাঁচাতে গিয়ে অন্য দিক ডুবে যাচ্ছে। তার চেয়ে বরং জেনে নিন, গ্যাস কম খরচ করার কিছু সহজ উপায়।

১। ফ্রিজ থেকে শাক-সব্জি বা যে কোনও খাবার বার করে বাইরের স্বাভাবিক তাপমাত্রায় অন্তত আধ ঘণ্টা রেখে দিন। ঠান্ডা একদম কেটে গেলে রান্না শুরু করবেন। কারণ ফ্রিজের ঠান্ডা কাটতে গ্যাস অনেক বেশি খরচ হয়।

২। গ্যাসে কড়াই বা সসপ্যান চাপানোর আগে দেখে নিন সেটা একদম শুকনো রয়েছে কিনা। প্রয়োজন হলে একবার একটি শুকনো নরম কাপড় দিয়ে মুছে নিতে পারেন। কারণ ভিজে পাত্র হলে জল শুকোতে বেশি গ্যাস খরচ হবে।

Advertisement
প্রতীকী ছবি।

প্রতীকী ছবি।


৩। রান্না শুরু করার আগে গ্যাসের আঁচ বাড়িয়ে রাখুন কিছুক্ষণ। কড়াই গরম হয়ে গেলে তাতে তেল ঢেলে আঁচ কমিয়ে নিন। একবার পাত্র গরম হয়ে গেলে তেলও সহজেই গরম হয়ে যাবে এবং অনেকক্ষণ গরম থাকবেও। তখন আর বাকি রান্নায় বেশি গ্যাস খরচ হবে না।

৪। রান্নার শুরু করার আগেই যাবতীয় প্রস্তুতি নিয়ে রাখবেন। সব্জি কাটা, মশলাপাতি হাতের কাছে রাখা, মশলা বাটার মতো কাজ আগেই করে রাখুন। যাতে রান্না চাপিয়ে বাড়তি সময় না লাগে। এতে আপনার গ্যাসও বাঁচবে, আবার সময়ও।

৫। রান্নার সময় এমন পাত্র ব্যবহার করুন, যাতে সমানভাবে গরম হয়। খুব ভাল হয় যদি লোহা বা কাস্ট আয়রনের বাসনে রান্না করতে পারেন। এগুলি সমান ভাবে গরম হয় এবং অনেকক্ষণ গরম ধরে রাখে। তাই গ্যাস বেশি খরচ হবে না। আবার এই পাত্রে রান্না করা স্বাস্থ্যের জন্যেও ভাল। কোনও ভাজাভুজি করার সময়ে ছোট লোহার কড়াই ব্যবহার করতে পারলে সবচেয়ে ভাল হয়। এতে তেলও পরিমাণে কম লাগবে।

প্রতীকী ছবি।

প্রতীকী ছবি।


৬। তরকারি যতটা পারেন ছোট করে কাটুন। বিশেষ করে আলুর মতো সব্জি যেগুলি সিদ্ধ হতে অনেক বেশি সময় নেন। যদি মাংস বা ডিমের ঝোলের জন্য আলু বড় করে কাটতেই হয়, তা হলে মাইক্রোওয়েভে সিদ্ধ করে নন। বিদ্যুতের খরচ গ্যাসের তুলনায় কম হবে।

৭। অনেক বার করে চা-কফি খাওয়া অভ্যাস রয়েছে পরিবারের? একবারে বানিয়ে একটি ফ্লাস্কে রেখে দিন। বার বার গ্যাস খরচ করবেন না।

৮। যে কোনও তরকারি বা ঝোল বানানোর সময়ে যেটুকু জল প্রয়োজন, ততটাই দিন। বেশি জল দিয়ে শুকোতে সময় লাগবে এবং বেশি গ্যাস খরচ হবে।

৯। যে খাবারগুলি সিদ্ধ করতে দেরি হবে, অবশ্যই প্রেসার কুকার ব্যবহার করুন। তাতে অল্প সময়ে হয়ে যাবে এবং গ্যাসও অনেক কম খরচ হবে।

আরও পড়ুন

Advertisement