সাহস থাকলে সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ ফিরিয়ে আনার কথা নিজেদের ইস্তাহারে ঘোষণা করুন। মহারাষ্ট্রে আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনের আগে নিজের প্রথম ভোটপ্রচারে গিয়ে বিরোধীদের দিকে এমন চ্যালেঞ্জই ছুঁড়ে দিলেন নরেন্দ্র মোদী

কাশ্মীর প্রসঙ্গে শুধুমাত্র চ্যালেঞ্জ ছোড়াই নয়, সেই সঙ্গে তা নিয়ে বিরোধীদের মনোভাব যে পড়শি দেশের মতোই, তা-ও দাবি প্রধানমন্ত্রীর। মোদীর মতে, ‘‘কাশ্মীর শুধুমাত্র এক টুকরো জমি নয়, তা ভারতের মাথার মুকুট।’’ বিরোধীদের দিকে চ্যালেঞ্জ ছোড়ার পাশাপাশি আগামী চার মাসের মধ্যে কাশ্মীরের পরিস্থিতি স্বাভাবিক করারও আশ্বাস দিয়েছেন তিনি।

আগামী সপ্তাহেই ২১ অক্টোবর মহারাষ্ট্রের বিধানসভা নির্বাচন। তার আগে রবিবার দলের হয়ে প্রথম নির্বাচনী প্রচার সারেন মোদী। জলগাঁওতে এক জনসভায় মূলত কংগ্রেস এবং এনসিপি-কে লক্ষ্য করে তীব্র আক্রমণ করেন তিনি। সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বিলোপ করে কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা রদের বিষয়টিকে বিরোধীরা অহেতুক রাজনৈতিক রং লাগানোর চেষ্টা করছে বলেও অভিযোগ করেন মোদী। ৩৭০ অনুচ্ছেদ রদ করা নিয়ে কংগ্রেস এবং এনসিপি-কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে তিনি বলেন, ‘‘আমি চ্যালেঞ্জ জানাচ্ছি, যদি সাহস থাকে তবে বিজেপি তথা মোদী সরকারের ৫ অগস্টের সিদ্ধান্ত বদল করুন। রাজ্যের নির্বাচনে বা ভবিষ্যতের ভোটগুলিতেও ৩৭০ এবং ৩৫এ অনুচ্ছেদ ফিরিয়ে আনার কথা নিজেদের ইস্তাহারে ঘোষণা করুন।’’

আরও পড়ুন: প্লগিং-এর সময় হাতে ওটা কী? টুইট করে নিজেই জানালেন মোদী

আরও পড়ুন: দূষিত হচ্ছে দিল্লির বাতাস, ফের কাঠগড়ায় হরিয়ানা-পঞ্জাবে পোড়ানো খড়কুটো

কাশ্মীর নিয়ে বিরোধীদের মনোভাব একেবারে পড়শি দেশের মতোই বলে অভিযোগ মোদীর। এ প্রসঙ্গে পাকিস্তানের নামোল্লেখ না করে তিনি বলেন, ‘‘কংগ্রেস এবং এনসিপি-র সাম্প্রতিক বিবৃতিগুলো দেখুন। মনে হয় যেন, পড়শি দেশের মতোই তাদের চিন্তাধারা।’’ বিরোধীদের প্রতি তাঁর পরামর্শ, ‘‘কুম্ভীরাশ্রু বিসর্জন বন্ধ করুন!’’ কিন্তু বিরোধীরা যদি তাঁর চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করে ৩৭০ অনুচ্ছেদ ফিরিয়ে আনেন? মোদীর দাবি, এমনটা করলে ভবিষ্যৎ বলে কিছু থাকবে না বিরোধীদের। তাঁর মতে, বছরের পর বছর উপত্যকায় বিচ্ছিন্নতাবাদ ও সন্ত্রাসবাদের রমরমা বজায় রয়েছে। কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বিলোপের আগে উপত্যকার শোষিত, দরিদ্র, মহিলা, দলিত সম্প্রদায়ের মানুষজনের উন্নয়নের সুযোগ কম ছিল। সেই সঙ্গে জম্মু ও কাশ্মীর এবং লাদাখের বাল্মীকি সম্প্রদায়ের মানুষদের মানবাধিকার থেকেও বঞ্চিত করা হয়েছে বলে দাবি মোদীর। কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বিলোপের সিদ্ধান্ত নেওয়াটাও অভাবনীয় ছিল বলে দাবি করেন তিনি।

আরও পড়ুন: শুধু সাইকোপ্যাথই নন, সম্পত্তি দখলের লক্ষ্যেই ছ’টি খুন করেছিল জলি, তদন্তে নেমে বলছে পুলিশ

৩৭০ অনুচ্ছেদ ফেরানোর পাশাপাশি তিন তালাকের প্রথা বিলোপ নিয়েও বিজেপি সরকারের গুণগান করেছেন নরেন্দ্র মোদী। তিনি বলেন, ‘‘মুসলিম মা-বোনেদের দেওয়া প্রতিশ্রুতি রক্ষা করেছি।’’ এই প্রথা ফিরিয়ে আনারও চ্যালেঞ্জ বিরোধীদের দিকে ছুড়েছেন তিনি।

কংগ্রেস বা এনসিপি— কোনও দলই মহারাষ্ট্রের যুবসম্প্রদায় তথা রাজ্যের নাগরিকদের স্বপ্নপূরণ করতে পারবেন না বলে এ দিন দাবি করেছেন নরেন্দ্র মোদী। মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়ণবীসের আমলে রাজ্যের উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরে এ সরকারকে দ্বিতীয় বারের জন্য ফেরানোর  আর্জি জানান তিনি।