গরমের দুপুরে অতিথিকে খাওয়ান চিংড়ির এই বাহারি ডিশ

সুজান (শেফ, ফ্রেন্ডস অব ফো)
গরমের দুপুরে অতিথিকে খাওয়ান চিংড়ির এই বাহারি ডিশ

কথায় আছে মাছে-ভাতে বাঙালি। মাছ না খেলে বাঙালির রসনাতৃপ্ত হয় না। কিন্তু তা বলে কি ভাতের সঙ্গে খালি মাছের ঝোল! একেবারেই তা নয়। আর মাছের নানা বাহারি রান্নার ক্ষেত্রে চিংড়ি সবচেয়ে এগিয়ে।

রোববারের দুপুরে বা বাড়িতে অতিথি এলে করেই দেখতে পারেন প্রন উইথ লেমনগ্রাস অ্যান্ড চিলি।  কলকাতার ‘ফ্রেন্ডস অফ ফো’ রেস্তোরাঁর শেফ সুজান এই রান্নার রেসিপির রহস্য ভাগ করেছেন  আনন্দবাজার পত্রিকা ডিজিটাল-এর সঙ্গে।

উপকরণ

লাল ও হলুদ বেলপেপার কুচি: ১ কাপ

পেঁয়াজ কুচনো: ১ কাপ

গোল করে কাটা পেঁয়াজ: ১ কাপ

লেমনগ্রাস: একটা স্টিক

রসুন কুচি: ১ টেবিল চামচ

বাগদা চিংড়ি: ৮টি

নুন ও গোলমরিচ গুঁড়ো: স্বাদ মতো

কাঁচা লঙ্কা: স্বাদ অনুযায়ী (মাঝ খান থেকে চিরে)

ময়দা বা আটা: ১ কাপ

কর্ন ফ্লাওয়ার: ১ কাপ

সয়া সস

আরও পড়ুন: এমন হায়দরাবাদি চিকেনে জমিয়ে দিন দুপুর

প্রণালী

একটা বাটিতে ময়দা বা আটা, দু’ টেবিল চামচ কর্নফ্লাওয়ার আর নুন মেশান। মিশ্রণে আস্তে আস্তে হালকা গরম জল মেশান। মিশ্রণটি ঘন হলে চিংড়িগুলি মিশ্রণে ডুবিয়ে হালকা করে ভাজুন। মাঝারি আঁচে সেগুলি ফ্রাইংপ্যানে ভাজুন। হালকা বাদামি হলে নামিয়ে নিন।

এ বার অন্য একটি ফ্রাইং প্যানে দুই টেবিল চামচ তেল গরম করুন। গরম তেলে রসুন কুচি দিন। যতক্ষণ না হলুদ রং হচ্ছে ভাজতে থাকুন। তবে দেখবেন যাতে পুড়ে না যায়। রসুনের রং হলুদ হয়ে গেলেই পেঁয়াজ কুচি ও কাটা পেঁয়াজ দিয়ে দিন। হালকা ভাজা হলেই বেলপেপার কুচনো ও লেমনগ্রাস দিন। একদম হালকা আঁচে ৩-৫ মিনিট রান্না করুন। এর পরে কাঁচা লঙ্কা, দুই টেবিল চামচ সয়া সস, দুই কাপ জল এবং আন্দাজ মতো নুন দিন। এক মিনিট ধরে রান্না করুন।

আরও পড়ুন:  সন্ধে জমে যাক কুঁচো চিংড়ির এমন বড়া দিয়ে!

এ বার মিশ্রণের মধ্যে দুই টেবিল চামচ কর্নফ্লাওয়ার দিন।  ভাল করে কর্নফ্লাওয়ার মেশাতে থাকুন, যত ক্ষণ না গ্রেভিটি ঘন হচ্ছে। এ বার ওই গরম, ঘন মিশ্রণে ভেজে রাখা চিংড়ি ডুবিয়ে পাত্রটিকে একটু নাড়ান যাতে ভাজা চিংড়িগুলির গায়েও গ্রেভি ভাল ভাবে লাগে। পরিবেশনের আগে লেমনগ্রাস কুচি দিয়ে গার্নিশ করুন।