ডোপিংয়ের দায়ে শাস্তি পাওয়ার খবরটা যে তাঁকে রীতিমতো ধাক্কা দিয়েছে, তা জানাচ্ছেন পৃথ্বী শ। বুধবার তাঁর শাস্তি পাওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়ার পরে পৃথ্বী একটি টুইট করেন। যেখানে তিনি লেখেন, ‘‘আমার ভাগ্যকে আমি মনে নিচ্ছি। শেষ প্রতিযোগিতায় খেলার সময় আমি চোট পেয়েছিলাম। সে-ই চোট সারিয়ে ওঠার চেষ্টায় আছি আমি। তারই মধ্যে শাস্তির এই খবরটা আমাকে রীতিমতো ধাক্কা দিয়েছে।’’

পৃথ্বী আরও লিখেছেন, ‘‘এই বছর ফেব্রুয়ারি মাসে মুম্বইয়ের হয়ে মুস্তাক আলি ট্রফিতে খেলার সময় আমি ভীষণ সর্দি-কাশিতে ভুগছিলাম। ওই সময় কাশির একটা সিরাপ খেয়েছিলাম। যার মধ্যে ওই নিষিদ্ধ বস্তুটি ছিল। অসাবধানতাবশতই আমি ওই নিষিদ্ধ ড্রাগ নিয়ে ফেলেছিলাম। যে কারণে নভেম্বর মাসের মাঝামাঝি পর্যন্ত ক্রিকেট খেলতে পারব না।’’ 

পৃথ্বী স্বীকার করে নিয়েছেন, তাঁকে অনেক সতর্ক হওয়া উচিত ছিল ওষুধ খাওয়ার সময়। দোষ স্বীকার করে পৃথ্বীর টুইট, ‘‘অস্ট্রেলিয়া সফরে চোট পেয়ে ফিরে আসার পরে ওটাই ছিল আমার প্রথম প্রতিযোগিতা। যে কারণে আমি খেলার জন্য মরিয়া হয়ে ছিলাম। ওই রকম ওষুধ খাওয়ার ক্ষেত্রে যে সাবধানতা অবলম্বন করা উচিত, তা আমি করিনি।’’ 

টুইট মারফত পৃথ্বী নিজের ভুল স্বীকার করে নিয়েছেন। পাশাপাশি তিনি আশা করছেন, অজান্তে করা তাঁর এই ভুল থেকে ভারতীয় ক্রীড়াবিদরা শিক্ষা নিতে পারবেন। ভারতের এই তরুণ প্রতিভা তাঁর টুইট-বিবৃতিতে আরও বলেন, ‘‘এই ঘটনার পরে ভারতীয় ক্রীড়াবিদরা নিশ্চয়ই আরও সতর্ক হবেন। সবাইকে বুঝতে হবে, খুব সাধারণ একটা ওষুধ, যা যে কোনও ওষুধের দোকানে পাওয়া যায়, সেটা খেতে গেলেও কতটা সাবধানী হওয়া প্রয়োজন। এ সব ক্ষেত্রে আমাদের সব সময় নিয়ম মেনে চলতে হবে।’’

শাস্তি পেলেও পাশে থাকার জন্য ভারতীয় বোর্ডকে ধন্যবাদ দিয়েছেন পৃথ্বী। পাশাপাশি লিখেছেন, ‘‘যারা সব সময় আমার পাশে থেকেছেন, তাঁদেরও আমি ধন্যবাদ দিতে চাই।’’ সব শেষে পৃথ্বীর শপথ, ‘‘ক্রিকেট আমার জীবন। মুম্বই এবং ভারতের হয়ে খেলার চেয়ে গর্বের আর কিছু নেই। আমি এই দুঃসময় থেকে দ্রুত এবং আরও শক্তিশালী হয়ে বেরিয়ে আসব। আমার পাশে থাকার জন্য সবাইকে আবার ধন্যবাদ।’’