আর চাই নয় শিকার। তা হলেই মহেন্দ্র সিংহ ধোনিকে টপকে রেকর্ড গড়বেন ঋদ্ধিমান সাহা। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে দুই টেস্টের সিরিজে যা হওয়ার সম্ভাবনা যথেষ্ট। বিশেষ করে সদ্য দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে তিন টেস্টের সিরিজে যে ছন্দে ছিলেন বাংলার উইকেটকিপার, তাতে এটা না হলেই তা অবাক করবে ক্রিকেটমহলকে।

বাংলাদেশের বিরুদ্ধে তিনটি টেস্টে খেলেছেন মহেন্দ্র সিংহ ধোনি। তাতে তাঁর মোট শিকারসংখ্যা ১৫। এর মধ্যে ক্যাচ ১২টি, স্টাম্পিং তিনটি। ঋদ্ধি এখনও পর্যন্ত বাংলাদেশের বিরুদ্ধে দু’টি টেস্ট খেলেছেন। তাতে তাঁর শিকারসংখ্যা সাত। এর মধ্যে ক্যাচ পাঁচটি, স্টাম্পিং দু’টি। অর্থাৎ, ধোনির থেকে আট শিকার পিছনে রয়েছেন তিনি। দুই টেস্ট, মানে বাংলাদেশের চার ইনিংস পাচ্ছেন তিনি। প্রতি ইনিংসে ঋদ্ধির যদি দুটো শিকারও হয়, সে ক্ষেত্রে এমএসডি-র সঙ্গে একই বিন্দুতে পৌঁছে যাবেন ময়দানের পাপালি।

ধোনিকে টপকে যাওয়ার পথে ঋদ্ধি পেরিয়ে যাবেন বাংলাদেশের উইকেটরক্ষক মুশফিকুর রহিমকেও। ভারত-বাংলাদেশ টেস্ট সিরিজে মুশফিকুরের রয়েছে ১১ শিকার। এর মধ্যে ক্যাচ নয়টি, স্টাম্পিং দু’টি।

আরও পড়ুন: মোমিনুলের বাংলাদেশকে হারাতে পেসাররাই বাজি? দেখে নিন ইনদওর টেস্টে ভারতের সম্ভাব্য প্রথম একাদশ

আরও পড়ুন: কোহালিদের গোলাপি বলের প্রস্তুতি শুরু হয়ে গেল ইনদওরেই

চোটের জন্য দেড় বছরেরও বেশি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের বাইরে থাকতে বাধ্য হয়েছিলেন ঋদ্ধি। চোট সারিয়ে উঠলেও সঙ্গে সঙ্গে তাঁকে টেস্টের প্রথম এগারোয় রাখা হয়নি। ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে ঋষভ পন্থই দাঁড়িয়েছিলেন গ্লাভস হাতে। কিন্তু দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে ঘরের মাঠে বিরাট কোহালি উইকেটকিপার হিসেবে ভরসা রেখেছিলেন ঋদ্ধির উপরই। ভারতীয় স্পিনারদের বিরুদ্ধে উন্নত মানের কিপিং দক্ষতার প্রয়োজন বলে মনে করেছিল টিম ম্যানেজমেন্ট। সিরিজের আগেই ঋদ্ধিকে বিশ্বের সেরা উইকেটকিপার হিসেবে চিহ্নিত করেছিলেন অধিনায়ক বিরাট কোহালি। আর সেই আস্থার মর্যাদাও দিয়েছেন ঋদ্ধি। তাঁর কিপিং কুড়িয়েছে প্রশংসা। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ধারাবাহিক থাকাই এখন তাঁর লক্ষ্য।