• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

পেসার হিসাবে জীবন শুরু করেছিলেন দেশের অন্যতম সেরা এই অলরাউন্ডার!

Yuvraj
সতীর্থদের সঙ্গে যুবরাজ সিংহ। —ফাইল চিত্র।

ছেলেবেলায় হতে চেয়েছিলেন সিমার। ভাল লাগত দৌড়ে এসে জোরে বল করতে। কিন্তু একটা ঘটনা বদলে দেয় জীবনের গতিপথ। হঠাৎ ব্যাটিং প্রতিভার কথা উপলব্ধি করেন যুবরাজ সিংহ। জোরে বোলার হওয়া আর হয়নি। নিজেকে মেলে ধরেন প্রধানত ব্যাটসম্যান হিসেবেই। সেই ঘটনার কথা তুলে ধরলেন খোদ তিনিই।

এক ওয়েবসাইটে যুবরাজ সিংহ বলেছেন, “পালামে বিষেণ সিংহ বেদীর ক্যাম্পে ছিলাম। তখন ১১-১২ বছর হবে আমার। আমি ছিলাম সিমার। তখন ব্যাটসম্যান ছিলাম না মোটেই। মনে আছে এক ম্যাচে ছয় নম্বরে নেমে সেঞ্চুরি করেছিলাম। ৯০ রান পর্যন্ত একটাও ছয় মারিনি। তার পর একটা বাঁ-হাতি স্পিনার বল করতে এল। ছেলেটার নাম সম্ভবত অঙ্গদ বেদী। আমি ওকে দুটো ছয় মারলাম। বল অনেক দূরে গিয়ে পড়ল। ১১-১২ বছর বয়সি ছেলেদের সাধারণত ওই শক্তি থাকে না।”

আরও পড়ুন: আমিরশাহিতে এখনও পর্যন্ত কোনও আইপিএল ম্যাচই জেতেনি মুম্বই ইন্ডিয়ান্স!​

আরও পড়ুন: ‘বিশ্বের কোনও ক্রিকেটারই ওর ধারেকাছে নয়’, গম্ভীরের মুখে ইংল্যান্ডের ক্রিকেটারের নাম​

সেই ইনিংসই পাল্টে দিয়েছিল যুবির জীবনের গতিপথ। তিনি আরও বলেছেন, “সেই দিনই বুঝতে পারলাম যে আমি ব্যাটও করতে পারি। আমি ভেবেছিলাম যে সিমিং অলরাউন্ডার হতে পারি। কিন্তু পিঠের সমস্যার জন্য পরবর্তীকালে স্পিনার হয়ে উঠি।”

যুবরাজ খেলেছেন ৪০ টেস্ট, ৩০৪ ওয়ানডে ও ৫৮ টি-টোয়েন্টি। এই তিন ফরম্যাটে তাঁর ব্যাট থেকে এসেছে ১৯০০, ৮৭০১ ও ১১৭৭ রান। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তাঁর মোট উইকেটের সংখ্যা ১৪৮। ২০০৭ সালে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ও ২০১১ সালে ওয়ানডে বিশ্বকাপ জেতার নেপথ্যে বড় অবদান ছিল যুবির। ২০১১ সালের বিশ্বকাপের সেরা ক্রিকেটার হন তিনি। সে বারের প্রতিযোগিতায় ৩৬২ রান করার পাশাপাশি ১৫ উইকেট নিয়েছিলেন তিনি।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন