ভয়ঙ্কর থেকে অতি ভয়ঙ্কর ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হল ‘বুলবুল’। একই সঙ্গে চলে এল পশ্চিমবঙ্গ এবং বাংলাদেশের উপকূলের আরও কাছে। বৃহস্পতিবার রাতেই গভীর নিম্নচাপ থেকে ভয়ঙ্কর ঘূর্ণিঝড় (সিভিয়ার সাইক্লোনিক স্টর্ম)-এ পরিণত হয়েছিল ‘বুলবুল’। এখন সেটি ‘ভেরি সিভিয়ার সাইক্লোনিক স্টর্ম’ বা অতি ভয়ঙ্কর ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়েছে বলে জানালেন আবহবিদরা।

আলিপুর আবহাওয়া দফতর সূত্রে খবর, শুক্রবার দুপুর তিনটে নাগাদ ঘূর্ণিঝড়ের অবস্থান পশ্চিমবঙ্গের সাগরদ্বীপ থেকে প্রায় ৪৫০ কিলোমিটার দূরে। ওড়িশার পারাদ্বীপ থেকে তার দূরত্ব ৩১০ কিলোমিটার এবং বাংলাদেশের খেপুপাড়া থেকে ঘূর্ণিঝড় রয়েছে প্রায় ৫৫০ কিলোমিটার দূরে। আবহাওয়া বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, বঙ্গোপসাগরে বুলবুলের ঘূর্ণনের গতিবেগ ঘণ্টায় ১২০ থেকে ১৩০ কিলোমিটার। কলকাতা থেকে ‘বুলবুল’-এর দূরত্ব ৫৫০ কিলোমিটার। 

ভয়ঙ্কর ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’-এর প্রভাব পড়তে শুরু করল কলকাতা ও উপকূলবর্তী জেলাগুলিতে। শুক্রবার সকাল থেকেই কলকাতা ও দুই ২৪ পরগনায় শুরু হয়েছে ঝিরঝিরে বৃষ্টি। সঙ্গে মেঘলা আকাশ। উপকূলীয় এলাকায় বইছে দমকা হাওয়া।

আলিপুর আবহাওয়া দফতরের বিজ্ঞানীদের মতে, আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে এ রাজ্যের সাগর দ্বীপ এবং বাংলাদেশের খেপুপাড়ার মধ্যে তা আছড়ে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। কিন্তু ঠিক কোন জায়গায় আছড়ে পড়বে বুলবুল, সে ব্যাপারে এখনও নিশ্চিত হতে পারছেন না আবহবিদরা। কারণ, মাঝেমধ্যেই গতিপথ পরিবর্তন হচ্ছে বুলবুলের। তবে আবহাওয়াবিদদের অনুমান, সুন্দরবনের উপর দিয়ে এই ঘূর্ণিঝড় বয়ে যাবে। সাগরদ্বীপ থেকে বাংলাদেশের খেপুপাড়া— এর মধ্যেই কোনও একটি জায়গায় স্থলভাগে আছড়ে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে বুলবুলের। তবে অভিমুখ এখনও পর্যন্ত খেপুপাড়ার দিকেই ঝুঁকে রয়েছে বলে আবহাওয়া বিজ্ঞানীদের মত।

আলিপুর আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, শনিবার সকাল থেকে ঝোড়ো হাওয়া বইতে শুরু করবে। ধীরে ধীরে সেই গতিবেগ আরও বাড়বে। আর বুলবুল যখন আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে স্থলভাগে আছড়ে পড়বে, তখন তার গতিবেগ থাকবে ঘণ্টায় ১০০ কিলোমিটারের আশেপাশে। রবিবার সকাল থেকে ৮০ থেকে ৯০ কিলোমিটার বেগে ঝোড়ো হাওয়া বইবে।

 

আরও পড়ুন:  ঘূর্ণিঝড়ের সাতকাহন

বুলবুল এখনও সমুদ্রে থাকলেও স্থলভাগে তার প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। শুক্রবার সকাল থেকেই কলকাতা-সহ গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গের আকাশ মেঘলা। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গেই শুরু হয়েছে ঝিরঝিরে বৃষ্টি। একই পরিস্থিতি দুই ২৪ পরগনাতেও। এই পরিস্থিতির ক্রমেই আরও অবনতি হবে বলেই পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া দফতরের।

আরও পড়ুন: শক্তি বাড়িয়ে ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’, আটঘাট বেঁধে তৈরি প্রশাসন, উপূকলে নজরদারি

আরও পড়ুন: এক ঘণ্টার ‘অপারেশন’, হাবড়ায় বিডিও এবং তাঁর স্ত্রীর হাত-পা বেঁধে দুঃসাহসিক ডাকাতি

উপকূলবর্তী এলাকায় বুলবুলের প্রভাব আরও বেশি হবে। ইতিমধ্যেই দমকা হাওয়া বইতে শুরু করেছে। বেড়েছে সমুদ্রে ঢেউয়ের উচ্চতাও। শনিবার সকাল থেকে উপকূলে হাওয়ার গতিবেগ থাকতে পারে ঘণ্টায় ৫০ থেকে ৬০ কিলোমিটার। দিঘা, শঙ্করপুর, মন্দারমণি এবং বকখালির মতো পর্যটনকেন্দ্রগুলিতে সমুদ্রে নামতে বারণ করা হয়েছে।