• নিজস্ব সংবাদাদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

মালগাড়ি থেকে ক্যাব, স্টিয়ারিং তাঁদের হাতেই

Woman
রানাঘাট মাতৃভূমি লোকালে গার্ড সবিতা সাউ। শিয়ালদহে।নিজস্ব চিত্র

পথে নারী বিবর্জনের আপ্তবাক্য সারবত্তা হারিয়েছে অনেক আগেই। এখন নারী অনেক ক্ষেত্রেই পথপ্রদর্শকের ভূমিকায়। শুক্রবার, আন্তর্জাতিক নারী দিবসে রাস্তায় রাস্তায় মহিলাদের সেই ভূমিকাই আরও বেশি করে সামনে উঠে এল। 

কোথাও কন্টেনারবাহী ট্রেন চালালেন মহিলারা। কোথাও বা চালালেন বিমান। দিনভর রেলের বিভিন্ন বুকিং অফিস, অনুসন্ধান কেন্দ্র সামলালেন মেয়েরাই। আবার খড়্গপুর ডিভিশনের এক মহিলা ট্র্যাক রক্ষণাবেক্ষণ কর্মীকে নিয়ে তৈরি দলিলচিত্র দেখানো হল দিল্লির জাতীয় রেল সংগ্রহশালায়। 

শুরুটা হয়েছিল শিয়ালদহ ডিভিশন দিয়ে। সকালে মাঝেরহাট টার্মিনাল থেকে ৪৬টি কন্টেনার নিয়ে বিপুল মালবাহী ট্রেন ছোটালেন মহিলা লোকো পাইলট মোনালিসা কর্মকার ও মণিকা ঘোষ। গার্ড হিসেবে তাঁদের সাহায্য করলেন জুঁই ভট্টাচার্য। তাঁদের হাত ধরেই মাঝেরহাট থেকে নেপালের বীরগঞ্জ টার্মিনালের উদ্দেশে রওনা হয় কন্টেনারবাহী ট্রেন।

আরও পড়ুন: দেশে-বিদেশে আকাশেও দিনভর শাসন মহিলাদের

দক্ষিণ-পূর্ব রেলের খড়্গপুর ডিভিশনের শ্যামচক স্টেশনের কর্মী পুষ্পা সিংহকে নিয়ে তৈরি বিশেষ দলিলচিত্র দেখানো হয়েছে দিল্লির জাতীয় রেল সংগ্রহশালার প্রেক্ষাগৃহে। স্বামীর মৃত্যুর পরে এক ছেলে এবং এক মেয়েকে নিয়ে সংসারের দায়িত্ব পুষ্পাদেবীর কাঁধে এসে পড়ে। পড়াশোনা খুব বেশি করেননি। কিন্তু পরিশ্রম আর সাহস সম্বল করে প্রতিদিন শত শত ট্রেন চলাচলের মধ্যে রেলের ট্র্যাক পরীক্ষা এবং রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব কাঁধে তুলে নেন তিনি। প্রতিদিন ভোরে বাড়ি থেকে বেরিয়ে স্কুটি চালিয়ে শ্যামচক স্টেশনে পৌঁছন পুষ্পাদেবী। লোহার ভারী সরঞ্জাম কাঁধে নিয়ে রোজ পরীক্ষা করেন ৭-৮ কিলোমিটার রেলপথ। ডিসেম্বরে রেলপথ পরীক্ষার সময় দেখতে পান, খড়্গপুর শাখার সব চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মিডল লাইনের একটি জায়গা ভাঙা। প্রায় সাত ইঞ্চির ওই ফাটল তাঁর চোখে পড়ায় নিশ্চিত দুর্ঘটনা থেকে রেহাই পায় হাওড়া-পুরী জগন্নাথ এক্সপ্রেস। দক্ষিণ-পূর্ব রেলের জেনারেল ম্যানেজারের বিশেষ পুরস্কার পান পুষ্পাদেবী। এ দিন তাঁকে নিয়ে তৈরি ছবিই দেখানো হয়েছে দিল্লিতে। আন্তর্জাতিক নারী দিবসে তাঁর হাতে বিশেষ পুরস্কার তুলে দেন রেল বোর্ডের চেয়ারম্যান বিনোদকুমার যাদব। ‘‘অন্যেরা যে-ভাবে কাজ করেন, আমিও তা-ই করেছি। নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করার চেষ্টা করেছি,’’ বললেন পুষ্পাদেবী।

আন্তর্জাতিক নারী দিবসে ভারতীয় রেলে মহিলা কর্মীদের কর্মকাণ্ড বিশেষ তুলে ধরার উদ্যোগ শুরু হয়েছিল গত বছর। এ দিন পূর্ব রেলের হাওড়া, শিয়ালদহ, মালদহ এবং আসানসোল ডিভিশনের বিভিন্ন স্টেশনে টিকিট পরীক্ষা এবং বুকিং কাউন্টার সমালানোর ভার পুরোপুরিই মহিলা কর্মীদের হাতে ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল। শিয়ালদহ স্টেশনে বুকিং কাউন্টার, টিকিট পরীক্ষা এবং অনুসন্ধান কেন্দ্র সামলেছেন মহিলারাই। পুরো একটা শিফট ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল তাঁদের হাতে। একই ভাবে বালিগঞ্জ এবং নৈহাটি স্টেশনেও নানা দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল মহিলা কর্মীদের।

কলকাতায় সম্প্রতি পিঙ্ক ক্যাব চালু হয়েছে। জনা দশেক মহিলা ওই গাড়ি চালাচ্ছেন। শুক্রবারটা তাঁদের কাছেও ছিল বিশেষ দিন। সরকারি এসি-৪৩ বাসরুটের যাত্রীরা এ দিন আলাদা করে মহিলা সহযাত্রীদের আসন ছেড়ে দিয়েছেন। তাঁদের হাতে তুলে দেওয়া হয় ফুল এবং চকোলেট।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন