Advertisement
২২ জুন ২০২৪
Enforcement Directorate

এ বার সিউড়ি থানার আইসিকে তলব ইডির, আনতে বলা হয়েছে নথি, গরু পাচারকাণ্ডে যোগ!

কেন তলব করা হল মহম্মদ আলিকে? ইডি সূত্রে খবর, গরু পাচারকাণ্ডে যোগ রয়েছে মহম্মদের। আরও জানা গিয়েছে, গত কয়েক মাস ধরে অনুব্রত মণ্ডলের মামলা লড়ার খরচও জুগিয়েছেন সিউড়ি থানার আইসি।

image of ic siuri police

ইডি সূত্রে খবর, শনিবার আইসি (ইনস্পেক্টর-ইনচার্জ) মহম্মদ আলিকে হাজিরা দিতে বলা হয়েছে। — নিজস্ব চিত্র।

নিজস্ব সংবাদদাতা
সিউড়ি শেষ আপডেট: ২৪ মার্চ ২০২৩ ১০:১৯
Share: Save:

আসানসোলের বিশেষ সংশোধনাগারের সুপারিন্টেন্ডেন্টের পর সিউড়ি থানার আইসিকে তলব করল এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি)। ইডি সূত্রে খবর, শনিবার আইসি (ইনস্পেক্টর-ইনচার্জ) মহম্মদ আলিকে হাজিরা দিতে বলা হয়েছে। ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের সমস্ত নথিও নিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

কেন তলব করা হল মহম্মদ আলিকে? ইডি সূত্রে খবর, গরু পাচারকাণ্ডের সঙ্গে সরাসরি যোগ রয়েছে মহম্মদের। সূত্র মারফত আরও জানা গিয়েছে, গত কয়েক মাস ধরে অনুব্রত মণ্ডলের মামলা লড়ার খরচও জুগিয়েছেন সিউড়ি থানার আইসি। সম্ভবত, এ সব নিয়েই তাঁকে ইডি জিজ্ঞাসাবাদ করতে পারে বলে খবর। সে কারণে তাঁর ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের নথিও আনতে বলা হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।

এর আগে গরু পাচার মামলায় আসানসোলের বিশেষ সংশোধনাগারের সুপারিন্টেন্ডেন্ট কৃপাময় নন্দীকে তলব করেছে ইডি। আগামী ৫ এপ্রিল তাঁকে হাজিরা দিতে হবে দিল্লিতে ইডির দফতরে। সঙ্গে ব্যাঙ্কের নথি নিয়ে আসতে হবে বলেও খবর। এই প্রসঙ্গে কৃপাময় বলেন, ‘‘আমাকে আগামী ৫ এপ্রিল তলব করা হয়েছে। তবে ঠিক কী কারণে ডাকা হয়েছে, আমি এখনও জানি না। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানিয়েছি। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ যা সিদ্ধান্ত নেবেন, সেই মতো কাজ করব।’’

গরু পাচারকাণ্ডে মূল অভিযুক্ত এনামুল হক থেকে শুরু করে বীরভূমের তৃণমূল জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল, তাঁর এক কালের দেহরক্ষী সহগল হোসেন আদালতের নির্দেশে আসানসোল জেলে বন্দি ছিলেন। অভিযোগ, সে সময় ফোন ব্যবহারের মতো বাড়তি কিছু সুবিধা পেয়েছিলেন তাঁরা। সে সব কারণেই কি কৃপাময়কে তলব! উঠছে প্রশ্ন। ইডি সূত্রে আরও খবর, বন্দি থাকার সময়ে জেলে কারা অনুব্রতের সঙ্গে দেখা করেছেন, তাঁদের সম্পর্কেও জানতে চাওয়া হবে সুপারের কাছে।

অনুব্রত এখন তিহাড় জেলে রয়েছেন। তিনি আসানসোল জেলে বন্দি থাকার সময় বেশ কয়েক বার প্রশ্নের মুখে পড়েছিলেন সংশোধনাগার কর্তৃপক্ষ। চলতি মাসে অনুব্রতকে দিল্লি নিয়ে যাওয়ার আগে কলকাতা পর্যন্ত নিয়ে গিয়ে ইডির হাতে তুলে দেওয়ার দায়িত্বভার জেল কর্তৃপক্ষের উপরেই ছিল। সেই যাত্রাপথে কড়া পুলিশি নিরাপত্তার মধ্যেও অনুব্রতের সঙ্গে তিন ব্যক্তির সাক্ষাতের ঘটনায় জেল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে গাফিলতির অভিযোগ উঠেছিল। তা নিয়ে রাজ্য রাজনীতিতে তরজাও হয়। সেই জেলের সুপারকে ডেকে পাঠায় কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। এ বার সিউড়ি থানার আইসিকেও তলব করা হল।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের মাধ্যমগুলি:
Advertisement

Share this article

CLOSE